Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ১৯ জুন ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬, ১৬ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

জীবন দিয়ে হলেও ভোটের মর্যাদা রক্ষা করব: প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯, ৭:১০ পিএম

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যে আস্থা এবং বিশ্বাস নিয়ে জনগণ আমাকে ভোট দিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছে; জনগণের সে মর্যাদা আমি রক্ষা করব। প্রয়োজনে আমার জীবন দিয়ে হলেও ভোটের মর্যাদা রক্ষা করব।’

রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শনিবার বিকেলে আওয়ামী লীগের বিজয় সমাবেশে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ব্যক্তিগত জীবনে আমার কোনো চাওয়া-পাওয়া নেই। আমি কী পেলাম না পেলাম তার চেয়ে আমি কী দিতে পারলাম সেটাই বড় কথা। দেশের জনগণ আমার ওপর আস্থা ও বিশ্বাস রেখে ভোট দিয়েছে। আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তুলব।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ। এ বাংলাদেশকে আমরা উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলব। বাংলাদেশের মানুষ যেন বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে চলতে পারে। ওয়াদা করছি, দুর্নীতি, জঙ্গি, মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত বাংলাদেশ জাতিকে উপহার দেব। আমি সব শ্রেণি পেশার মানুষের সহযোগিতা চাই। আমার গ্রাম হবে আমার শহর। গ্রামে শহরের সব সুযোগ সুবিধা থাকবে। তৃণমূল পর্যায়ে মানুষের উন্নত জীবন গড়াই হবে প্রধান লক্ষ্য।’

এ সময় কবি সুকান্তের ভাষায়-এ বিশ্বকে শিশুর বাসযোগ্য করে গড়ে তোলার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এ সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আমির হোসেন আমু, সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, সাবেক মন্ত্রী মোহাস্মদ নাসিম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি, মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোল্লা আবু কাউসার ও যুব মহিলা লীগ সভাপতি নাজমা আক্তার। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম।

এর আগে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে অভিনন্দনপত্র পাঠ করেন দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে অভিনন্দনপত্র তুলে দেন তিনি।

দুপুর আড়াইটার দিকে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিজয় সমাবেশের কার্যক্রম শুরু হয়। দুপুর ১২টা থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন মমতাজ বেগম, ফাহমিদা নবী, সালমা ও জলের গান ব্যান্ড।

সমাবেশ শুরুর আগে সকাল থেকেই মাইকে দেশাত্মবোধক, পল্লীগীতি, ভাওয়াইয়া গান বাজানো হয়। মাঝে মধ্যে কবিতাও আবৃতি করা হয়।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯, ৮:২২ পিএম says : 1
    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন ‘যে আস্থা এবং বিশ্বাস নিয়ে জনগণ আমাকে ভোট দিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছে; জনগণের সে মর্যাদা আমি রক্ষা করব। প্রয়োজনে আমার জীবন দিয়ে হলেও ভোটের মর্যাদা রক্ষা করব।‘ আমি বিশ্বাসকরি আমাদের নেত্রী এখানে যা বলেছেন সেটাই কঠিন সত্য। তিনি এবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন দেশ থেকে দুর্নীতি দূর করে দেশকে সেই দেশ যেদেশ বানানোর জন্যে ৩০ লক্ষ লোক জীবন দিয়েছে এবং মা বোনেরা তাদের সম্ভ্রম দিয়েছে সেই দেশ আমারা পাবো নেত্রী হাসিনার কাছ থেকে এটাই আল্লাহ্ দরবারে আমার (একজন গাজীর) দোয়া। আমি আল্লাহ্র এই নেয়ামত সমৃদ্ধ পৃথিবী থেকে যে বাংলাদেশের জন্যে আমি লড়েছি সেই বাংলাদেশ না দেখে যেতে চাই না এটাই আমার দাবী আল্লাহ্র কাছে। আমি আমাদের সৃষ্টি দেশ থেকে কিছুই পাইনি এমনকি জীবিকার জন্যে বাধ্য হয়ে প্রবাসী হয়েছি তারপরও আল্লাহ্র কাছে দোয়া করেছি আল্লাহ্ যেন মৃত্যুর আগে আমাকে শুনায় যে বাংলার জন্যে আমার সহযোদ্ধারা প্রাণ দিয়েছে আমার মা বোনেরা ইজ্জৎ দিয়েছে সেই বাংলাকে যেন আমি এক নজর দেখে যেতে পারি। আল্লাহ্ আমাকে আমার সন্তান দিয়ে শুখ দিয়েছেন, আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী করেছেন, প্রতিবছর দুইবার দেশে গিয়ে থাকর ক্ষমতা দিয়েছেন কিন্তু একটাই আমার পাবার বাকী আছে সেটা হচ্ছে আমাদের চাওয়া বাংলা। আমি কয়েক বছর ধরে এই ইনকিলাবে প্রতি নিয়ত এটাই লিখে আসছি আল্লাহ্ নেত্রী হাসিনাকে দীর্ঘায়ু ও সুসাস্থ দান করেন এবং দেশের ক্ষমতায় রাখেন। আল্লাহ্ আমার নেত্রী হাসিনাকে সঠিক ভাবে তার দায়িত্ব পালন করে যেই যায়গায় গিয়ে তিনি শেষ আঘাত করবেন দেশকে অপশক্তি মুক্ত করতে সেই যায়গায় আল্লাহ্ ওনাকে নিয়েছেন। আমার বিশ্বাস আল্লাহ্ ওনাকে যেভাবে এতকাল বাঁচিয়ে রেখে ওনাকে দিয়ে দেশের মঙ্গল করাচ্ছেন এখন সেই একই ভাবে আল্লাহ্ ওনাকে বাঁচিয়ে রেখে ওনাকে দিয়েই দেশের দুর্নীতি বন্ধ করে দেশকে একটি ইসলামিক দেশের মর্যাদায় নিয়ে যেতে সক্ষম করাবেন ইনশ’আল্লাহ। দেশে নামের প্রথমে ইসলাম না থাকলেও একটা দেশে যদি মুসলিম সংখ্যা গরিষ্ট হয় তাহলে সেই দেশ অবশ্যই ইসলামের চাহিদা মত দেশ হবেই। নেত্রী হাসিনা আল্লাহ্র রহমতে এই দিকে বড় বড় কথা বলেন না কিন্তু ইসলামের জন্যে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন আল্লাহ্ যেভাবে চাচ্ছে সেইভাবেই নেত্রী হাসিনা এগিয়ে যাচ্ছেন ইসলামকে তিনি ক্রমান্বয়ে প্রতিষ্ঠা করছেন এটা আমি উপলব্ধি করেছি তাই আমি ওনাকে আমার সর্বস্ব দিয়ে সহযোগিতা করে আসছি আমার লিখনি ও প্রবাসে ওনার সম্মান রক্ষার মাধ্যমে। আল্লাহ্ আমাকে যতটুকু ক্ষমতা দিয়েছেন আমি সবটাই ওনার পেছেনে দিয়ে গেছি আল্লাহ্ সবই জানেন। আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • M N Ahmed ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯, ১০:৩২ পিএম says : 1
    The truth is that peoples of Bangladesh could not vote on December 30, 2018. Their votes were stolen. Then, dear PM, which votes you are talking about? The votes those were stolen on the night of 29th December? Shame....
    Total Reply(0) Reply
  • jahid ১৯ জানুয়ারি, ২০১৯, ৯:০৫ পিএম says : 1
    আমারা তো ভোট দিতেই পারি নাই ! তাহলে আমাদের কি হবে ? জাতির কাছে আমার এই প্রশ্ন ????????????????
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিজয় সমাবেশ

১৯ জানুয়ারি, ২০১৯
১৮ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ