Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

সমঝোতা প্রস্তাব নাকচ ডেমোক্র্যাটদের

উ. কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে বলে ট্রাম্পের মন্তব্য

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলমান ‘শাটডাউন’ বা ‘অচলাবস্থা’ নিরসনে ছাড় দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন দেশটি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্প জানিয়েছেন, যদি তার পরিকল্পনা মাফিক মেক্সিকো দেয়াল তৈরির জন্য ৫.৭ বিলিয়ন ডলারের তহবিল দেওয়া হয় তবে তিনি যারা যুবক বয়সে অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্র প্রবেশ করেছিলেন তাদেরকে কাজ করার অনুমতি দেবেন। তবে ট্রাম্পের এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে ডেমোক্র্যাটরা। তারা বলেছেন, ট্রাম্পের এই প্রস্তাব অপর্যাপ্ত। তারা আগে ট্রাম্পকে অচলাবস্থা নিরসন করতে বলেন। যুক্তরাষ্ট্রে নতুন বাজেট পাস না হওয়ায় চার সপ্তাহ ধরে অচলাবস্থা চলছে। এর ফলে বেকার হয়ে পড়েছেন প্রায় ৮ লাখ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী। এই অচলাবস্থা নিরসনে শনিবার হোয়াইট হাউসে ছাড়ের এই প্রস্তাব দেন ট্রাম্প। যুবক বয়সে যারা অবৈধ বয়সে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছিল তাদেরকে ‘ড্রিমার’ বা ‘স্বপ্নচারী’ হিসেবে অভিহিত করেন ট্রাম্প। তিনি এর আগে সবসময়ই বলেছেন, অবৈধ অভিবাসীরা যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করতে পারবে না। শনিবার সেই অবস্থান থেকে সরে এসে ট্রাম্প জানান, মেক্সিকো দেয়াল তৈরির জন্য তাকে তহবিল দেওয়া হলে তিনি ড্রিমারদের কাজ করতে দিতে রাজি আছেন। ট্রাম্প জানান, তিনি একটি যুঁতসই ছাড়ের প্রস্তাব দিচ্ছেন যা দুই দলেরই গ্রহণ করা উচিত। তবে ট্রাম্পের এই প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে ডেমোক্র্যাট নেতা ও হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি জানান, গত ২৯ দিন ধরে চলা অচলাবস্থা হলো অনেকগুলো উদ্যোগের প্রত্যাখ্যান, যার কোনোটিই গ্রহণযোগ্য নয়। ট্রাম্প যে প্রস্তাব দিচ্ছেন সেটি ভালো কোনো প্রচেষ্টা নয়। অপর এক খবরে বলা হয়, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচনায় ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। দুই দেশের মধ্যে আলোচনায় পিয়ংইয়ং-এর মধ্যস্থতাকারী কিম ইয়ং চল-এর সঙ্গে বৈঠকের পর শনিবার এমন মন্তব্য করেন ট্রাম্প। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স। ট্রাম্প বলেন, কিম ইয়ং চল-এর সঙ্গে তার অভূতপূর্ব এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনায় ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে। বিবিসি’র খবরে বলা হয়েছে, ধারণা করা হচ্ছে, ট্রাম্পকে লেখা কিম জং-উনের চিঠি নিয়ে এসেছিলেন কিম ইয়ং চল। কিম ইয়ং চল-এর সঙ্গে ট্রাম্পের সাক্ষাৎ শেষে হোয়াইট হাউস থেকে ঘোষণা করা হয়, আগামী ফেব্রুয়ারির শেষদিকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। তবে কোথায় দুই নেতার মধ্যে বৈঠক হবে, আনুষ্ঠানিকভাবে তা এখনও জানানো হয়নি। সম্ভাব্য বৈঠকস্থল হিসেবে ভিয়েতনামের নাম শোনা যাচ্ছে। ২০১৮ সালের ১২ জুন সিঙ্গাপুরে প্রথমবারের মতো উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে মিলিত হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ঐতিহাসিক বৈঠক শেষে এক সমঝোতা চুক্তিতে দীর্ঘদিনের বৈরী দু’দেশ যৌথভাবে কোরিয়া উপদ্বীপকে পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত করার অঙ্গীকার করে। তবে উত্তর কোরিয়া তাদের পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের বিষয়ে কোনও সুনির্দিষ্ট রূপরেখা উল্লেখ না করায় দু’দেশের মধ্যেএখনো দর কষাকষি চলছে। এ বছরের শুরু থেকে ট্রাম্পও বেশ কয়েকবার কিমের সঙ্গে বৈঠকের ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেন। উত্তর কোরীয় নেতার সঙ্গে কয়েকটি চিঠিও আদান-প্রদান হয় তার। যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত দক্ষিণ কোরীয় দূত চো ইউন জে গত সপ্তাহে সাংবাদিকদের জানান, নববর্ষের ভাষণে কিম ‘যেকোনও সময়’ ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকের ব্যাপারে আগ্রহ দেখানোর পর দুই দেশের মধ্যে নতুন করে যোগাযোগ শুরু হয়েছে। বিবিসি, রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ