Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫ ফাল্গুন ১৪২৫, ১১ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

ওল্ড ট্রাফোর্ডে সুলশারের রেকর্ড

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের প্রথম কোচ হিসেবে প্রিমিয়ার লিগে শুরুর ছয় ম্যাচেই জয় পেয়েছেন ওলে গানার সুলশার। সব মিলে ওল্ড ট্রাফোর্ডের আপৎকালীন হিসেবে দায়ীত্ব পালন করতে এসে টানা সাত খেলে সবকটিতেই জিতলেন নরওয়ের এই কোচ।
তবে এর চেয়েও হয়ত ৪৫ বছর বয়সী খুশি হয়েছেন পরশু প্রিমিয়ার লিগ রাতের শেষ ম্যাচে চেলসিকে আর্সেনাল ২-০ গোলে হারিয়ে দেওয়ায়। পয়েন্ট তালিকার চারে থাকা চেলসির সঙ্গে সুলশারের ম্যান ইউ’র ব্যবধান এখন মাত্র তিন পয়েন্টের। রেড ডেভিলরা তালিকার ছয়ে থাকলেও আর্সেনাল এগিয়ে গোল ব্যবধানে। হোসে মরিনহোর সময় যে শীর্ষ চারে প্রবেশ মনে হচ্ছিল দূরের কোন কল্পনা, মাত্র ছয় ম্যাচের ব্যবধানে সেটাই মনে হচ্ছে সময়ের ব্যাপার মাত্র।
ঘরের মাঠে এদিন ব্রাইটন অ্যান্ড হোব অ্যালবিওনের বিপক্ষে ম্যান ইউ’র ২-১ গোলের জয়ে প্রথমার্ধে গোল দুটি করেন পল পগবা ও মার্কাস রাশফোর্ড। পগবা গোল করেন পেনাল্টি থেকে। আর রাশফোর্ডের চোখ জুড়ানো গোলটি ছিল একক প্রচেষ্টায় করা। দ্বিতীয়র্ধে একটি গোল শোধ দেয় সফরকারীরা।
আনফিল্ডে ২-০ গোলের জয়ে আর্সেনালও দুটি গোলই করে প্রথমার্ধে। প্রথমটি করেন আলেক্সান্ডার লাকাজেত্তি, অন্যটি অধিনায়ক লরেন্ত কসিয়েনলির। শুরু থেকেই সংগ্রাম করতে থাকা চেলসি ৮২ মিনিট পর্যন্ত গোলে কোন শটই নিতে পারেনি। মার্কো অ্যালোনসোর একমাত্র হেডটি পোস্টে বাধা পায়। দলের সবচেয়ে বড় তারকা এডেন হ্যাজার্ড ছিলেন বিবর্ণ। এ নিয়ে টানা ছয় ম্যাচ বেলজিয়ান ফরোয়ার্ডের নামের পাশে কোন গোল নেই। দারুণভাবে মৌসুম শুরু করা চেলসিও হঠাৎ করেই যেন খেই হারিয়ে ফেলেছে।
সময়টা ভালো যাচ্ছিল না আর্সেনালেরও। টানা ২২ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর শেষ আট ম্যাচের চারটিতেই হার। মাউরিসিও সারির ব্লুদের বিপক্ষে এই জয় হয়ত উনাই এমিরিকে এবার বাড়তি প্রেরণা যোগাবে।
তবে শীর্ষ দলগুলোর মধ্যে এদিন সবচেয়ে উপভোগ্য ম্যাচ উপহার দেয় লিভারপুল। ঘরের মাঠে ক্রিস্টাল প্যালেসের বিপক্ষে সাত গোলের রোমাঞ্চকর ম্যাচটি অল রেডরা জিতে নেয় ৪-৩ ব্যবধানে। ক্লাপের দলের হয়ে জোড়া গোল করেন মোহাম্মদ সালাহ, একটি করে করেন রবার্তো ফিরমিনো ও সাদিও মানে। নির্ধারিত সময়ের এক মিনিট আগে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন মিলনার। প্রথমার্ধে এগিয়ে ছিল ক্রিস্টাল প্যালেস। দ্বিতীয়ার্ধে নেমেই দলকে সমতায় ফেরান সালাহ। এরপর ফিরমিনোর গোলে এগিয়ে যাওয়া। সফরকারীরা আবার সমতা ফেরালে এবার দলকে এগিয়ে নেন সলাহ। যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে গোল করে ব্যবধান ৪-২ করে দেন মানে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে আরো একটি গোল শোধ দিতে সক্ষম হলেও হার এড়াতে পারেনি ক্রিস্টাল।
এই জয়ে শিরোপা দৌড়ে ৭ পয়েন্টে এগিয়ে যায় লিভারপুল। গত রাতে অবশ্য তলানির দল হাডার্সফিল্ডকে হারিয়ে ব্যবধান কমানোর সুযোগ ছিল চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটির সামনে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ