Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে হবে

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক

স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, বীরপ্রতীক, এমপি বলেছেন, স্বাধীনতার চেতনায় দেশকে এগিয়ে নিতে হবে, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে হবে নতুন প্রজন্মকে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ একদিনে আসেনি। মুক্তিযুদ্ধ বাঙালি জাতির বহু ত্যাগ ও সংগ্রামের ফসল । ৫২ ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ৭১ পর্যন্ত সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে ১৯৭১ সালের অগ্নিঝরা মার্চের এদিনে শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ।’
গতকাল রোববার সকালে রাজধানীর সিদ্বেশ্বরী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। নতুন প্রজন্মের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, ‘নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে হবে। যারা বাংলাদেশ জন্মের সঠিক ইতিহাস জানে না, তারা কখনও সফল মানুষ হতে পারবে না। দেশপ্রেমের অভাবে দেশে জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস সৃষ্টি হয়। মন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পেয়েছে। আজ দেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর জায়গা পেয়েছে। দেশের মানুষ মুক্তভাবে বেঁচে কথা বলার অধিকার পেয়েছে। আর এই বিষয়গুলো আমাদের নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে। তাহলে আমাদের এই সোনার বাংলাদেশ আরও এগিয়ে যাবে। কেননা তরুণ প্রজন্ম যদি ইতিহাস না জানে তাহলে আগামীতে আমাদের বাংলাদেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য কেও থাকবে না।
বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে গোলাম দস্তগীর গাজী আরও বলেন, একদিন বাংলাদেশের মানুষ না খেয়ে থাকতো। দু বেলা কিভাবে খাবে সেটা জানতেন না। কিন্তু এখন আমরা নিজেরাই স্বয়ংসম্পূর্ণ। দেশে খাদ্য মজুদ রেখে বিদেশে আমরা খাদ্য রপ্তানি করছি। আর এটা সম্ভব হয়েছে বর্তশান সরকারের দৃঢ়তার কারণে। আমরা ২০৪১ সালের আগেই বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশকে নতুনভাবে উপস্থাপন করব। তখন সারাবিশ্ব আমাদেরকে অনুসরণ করবে।
ছাত্রীদের উদ্দেশে বলেন, যারা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানে কখনো সাম্প্রদায়িক রাজনীতির সাথে জড়িত হতে পারে না । যে জাতি তার নিজস্ব ইতিহাস জানে না সে জাতি নিজের মেরুদণ্ড সোজা করে দাড়াতে পারে না।
বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ রইশুল আলম ময়নার সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য দিলারা আলম, প্রধান শিক্ষক মো.সাহাব উদ্দিন মোল্লা, সহকারি প্রধান শিক্ষক মো দেলোয়ার হোসেনসহ প্রমুখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ