Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

আপোষ প্রস্তাব দিয়ে উভয় সঙ্কটে ট্রাম্প

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯, ৮:৫৩ পিএম

প্রায় এক মাস প্রশাসনিক অচলাবস্থা কাটাতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের প্রস্তাব বিরোধী ডেমোক্রেটরা প্রত্যাখ্যান করেছে। আপোষ প্রস্তাব দেয়ায় সমর্থকরাও প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করছে। ফলে উভয় সঙ্কটে পড়েছেন ট্রাম্প। কোণঠাসা হয়ে তিনি বিরোধী নেতাকে হুমকি দিচ্ছেন।

মার্কিন প্রশাসনের একটা অংশ প্রায় এক মাস ধরে অচল হয়ে রয়েছে। বেশ কিছু ক্ষেত্রে কর্মরত প্রায় ৮ লক্ষ সরকারি কর্মী বেতন পাচ্ছেন না। সরকারের এই ‘শাটডাউন’ বা অচলাবস্থার অবসান ঘটাতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিরোধী ডেমোক্রেটিক দলের উদ্দেশ্যে এক প্রস্তাব রেখেছিলেন। মেক্সিকো সীমান্তে বিশাল প্রাচীর তৈরির প্রশ্নে কোনো আপোশ করতে প্রস্তুত না হলেও ট্রাম্প অভিবাসনের বিষয়ে কিছুটা সুর নরম করেছেন। তরুণ অবৈধ অভিবাসীদের কল্যাণে ‘ড্রিমার্স’ কর্মসূচির মেয়াদ তিনি ৩ বছর বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। তাছাড়া অভিবাসনের ক্ষেত্রে তিনি নতুন এক শ্রেণি সৃষ্টি করতে চান। তার আওতায় সশস্ত্র সংগ্রাম, প্রাকৃতিক বিপর্যয় বা অন্য কোনো সংকট কবলিত দেশের মানুষের জন্য সাময়িক আশ্রয় দেওয়া যেতে পারে।

এমন আপোশের প্রস্তাব দিয়ে উভয় সংকটে পড়েছেন ট্রাম্প। ডেমোক্রেটরা অবিলম্বে সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছেন। কোনো অবস্থায় তারা প্রাচীর তৈরির জন্য ৫৭০ কোটি ডলার মঞ্জুর করতে প্রস্তুত নয়। তার বদলে সামগ্রিকভাবে সীমান্তে নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা করে অনুপ্রবেশ রুখতে এক সার্বিক সমাধানসূত্রের পথে যেতে চায় বিরোধীরা। তার আওতায় সীমান্তে কিছু অংশে বেড়া দেওয়া যেতে পারে। ডেমোক্রেটদের দাবি, রাজনৈতিক মঞ্চের এই সংঘাতের মধ্যে প্রশাসনকে অচল করে ও সরকারি কর্মীদের বেতন আটকে রাখা চলবে না। সরকারি কাজকর্ম শুরু হলে প্রেসিডেন্টের প্রস্তাবকে ভিত্তি করে আলোচনা শুরু করা যেতে পারে।

অন্যদিকে ট্রাম্পের সমর্থকরাও প্রেসিডেন্টের এমন প্রস্তাবে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করছে। অভিবাসনের প্রশ্নে তারা কোনোরকম নরম অবস্থান মেনে নিতে প্রস্তুত নয়। কট্টর দক্ষিণপন্থি বলে পরিচিত সংবাদ মাধ্যমেও তাই প্রেসিডেন্টের আপোশ প্রস্তাবের বিরুদ্ধে কড়া ভাষায় সমালোচনা শোনা যাচ্ছে।

এই অবস্থায় কোণঠাসা ট্রাম্প তাদের আশ্বস্ত করতে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করছেন। একের পর এক টুইট বার্তায় তিনি অভিবাসনের প্রশ্নে কড়া মন্তব্য করছেন। একটি বার্তায় তিনি লেখেন, তিনি কোনোমতেই বেআইনি অভিবাসীদের জন্য সাধারণ ক্ষমার প্রস্তাব দিচ্ছেন না। প্রস্তাবের মধ্যে শুধু ড্রিমার্স বা ডিএসিএ কর্মসূচির মেয়াদ ৩ বছর বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে। ট্রাম্প আরো আশ্বাস দিয়েছেন যে, অভিবাসন বা অন্য কোনো প্রশ্নে বিরোধীদের সঙ্গে রফা হলে তবেই টোপ হিসেবে ক্ষমার কথা ভাবা হবে। সেইসঙ্গে প্রায় ১ কোটি ১০ লক্ষ বেআইনি অভিবাসীদের বিতাড়িত করতে পদক্ষেপ নেয়ার ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বিরোধী নেতা ন্যান্সি পেলোসিকে সতর্ক করে দিয়েছেন।

এই অবস্থায় অচলাবস্থা কাটার কোনো দ্রæত সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। প্রেসিডেন্টকে উপেক্ষা করে সংসদের উদ্যোগে প্রশাসনকে সচল করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিরোধী ডেমোক্রেটরা। হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভে সেই প্রস্তাব অনুমোদন করানো সম্ভব হলেও সিনেটে রিপাবলিকানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় সেই পদক্ষেপ থমকে যেতে পারে। তবে কিছু রিপাবলিকান সদস্য তাতে সমর্থন দিলে বিরোধীদের নৈতিক জয় হতে পারে। সূত্র: এএফপি।



 

Show all comments
  • Abul Khair ২১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১০:০৭ পিএম says : 0
    To stop the corruption in the office administration Should follow the MoPA"s order that maximum 3 years a Govt.staff can work in the same station.He/She may be a very skill/unskill that should not consider. Next staff will come & he/She will run the works.If every where it follow then atleast 50% corruption can be checked.Rest part can be eliminate by other ways.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ট্রাম্প


আরও
আরও পড়ুন