Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ০৩ ভাদ্র ১৪২৬, ১৬ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

আফগানিস্তানে তালিবান হামলায়

১২৬ সেনা সদস্য নিহত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:২৩ এএম

আফগানিস্তানের মাইদান ওয়ার্দাক প্রদেশের একটি মিলিটারি কম্পাউন্ডে তালিবান বিদ্রোহীদের হামলায় দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর শতাধিক সদস্য নিহত হয়েছেন। গতকাল সোমবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সিনিয়র কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে রয়টার্স।
এই কর্মকর্তা বলেন, এ পর্যন্ত ১২৬ জন নিহত হয়েছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওই সিনিয়র অফিসার বলেন, ‘সেনা প্রশিক্ষণ সেন্টারের ভেতর হামলায় ১২৬ জন নিহত হয়েছে বলে আমরা খবর পেয়েছি।’
এক প্রাদেশিক কর্মকর্তাও নিহতের সংখ্যা শতাধিক বলে জানিয়েছেন।
যদিও সরকারের পক্ষ থেকে প্রথমে এ হামলায় ১২ জন নিহত হওয়ার কথা জানানো হয়েছিল, তখন সরকারি কর্মকর্তারা বলেছিলেন, তালিবানরা একটি গাড়ি বোমা বিস্ফোরণ ঘটানোর পর দুই বন্দুকধারী ঘাঁটিতে প্রবেশ করে হামলা চালায়। হামলায় ২৮ নিরাপত্তা কর্মকর্তা আহত হওয়ার কথাও তারা জানিয়েছিলেন।
বার্তা সংস্থা রয়টার্সের পক্ষ থেকে শতাধিক নিহত হওয়ার খবরের সত্যতা যাচাই করতে সরকারের এক মুখপাত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি এ বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান। দেশটির বিদ্রোহী জঙ্গিগোষ্ঠী তালিবান হামলার দায় স্বীকার করেছে। তালেবান মুখপাত্র জাবউল্লাহ মুজাহিদ হামলার দায় স্বীকার করে টুইটারে এক পোস্টে লিখেছেন, বিস্ফোরকবোঝাই যানের মাধ্যমে সামরিক ওই ঘাঁটিতে হামলা চালানো হয় এবং ধ্বংসাবশেষের নিচে বহু মানুষ চাপা পড়েছেন।
ঘটনার পর আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি এই হামলাকে ভয়াবহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড হিসেবে মন্তব্য করেছেন এবং নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।
সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আফগানিস্তান থেকে ধীরে ধীরে সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। ওই ঘোষণার পর দেশটিতে বিক্ষিপ্তভাবে হামলার ঘটনা ঘটলেও গতকালের ঘটনাটি সবচেয়ে ভয়াবহ বলে ধারণা করা হচ্ছে। সূত্র : রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান


আরও
আরও পড়ুন