Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬, ২২ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

বিরলে এক সপ্তাহ পর লাশ উত্তোলন

বিরল (দিনাজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

দিনাজপুরের বিরলে গর্ভবতী গৃহবধূ খাদিজা হত্যা মামলার সূত্র ধরে দাফনের এক সপ্তাহ পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে তাঁর পিতার নিকট লাশ হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার হাটপাড়া গ্রামের শুকুদ্দিনের কন্যা খাদিজা খাতুন (২২)-এর সাথে ২ বছর পূর্বে দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলার পাঁচশালা গ্রামের ওসমান গণির পুত্র আব্দুর রহিম (২৮)-এর সাথে বিয়ে হয়। গর্ভবতী খাদিজাকে ১৫ জানুয়ারি সকালে পাশবর্তী বোচাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত্যু ঘোষণা করেন। খাদিজার পিত্রালয়ের লোকজন লাশ দাফনে বাঁধা দিলেও কন্যার শশুর বাড়ির লোকজন জোরপূর্বক ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে খাদিজার লাশ দাফন করে।
এ অভিযোগে খাদিজার পিতা শুকুদ্দিন বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধিত-২০০৩) এর ১১/(ক)/৩০ তদসহ দঃবিঃ ২০১,৩৪২,৩৮৬ ধারা মতে শহরগ্রাম ইউপির ৬নং ওয়ার্ড সদস্য ও শংকরপুর দাখিল মাদরাসার বিএসসি শিক্ষক মোশারফ হোসেনসহ ৮জন নামীয় ও ৯/১০ জন অজ্ঞাত ব্যক্তির নামে এজাহার দায়ের করে।

১৭ জানুয়ারি বিকালে এজাহার নামীয় আসামী ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেনকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করলে বিজ্ঞ বিচারক তাঁর জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বিরল থানার ওসি (তদন্ত) সুজয় কুমার রায় জানান, ময়না তদন্তের জন্য আদালতের আদেশ পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ বি এম রওশন কবীরের উপস্থিতিতে গতকাল মঙ্গলবার সকালে লাশ কবর হতে উত্তোলন করা হয়। ময়না তদন্ত শেষে লাশ তাঁর পিতা শুকুদ্দিনের নিকট হস্তান্তর করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: লাশ

২৪ জুন, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন