Inqilab Logo

শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, ০৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

অবৈধ মোবাইল চিহ্নিত করতে চালু হলো আইএমইআই ডাটাবেজ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে মোবাইল ফোন আমদানি বন্ধ করতে চালু হল আইএমইআই (ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি) ডাটাবেজ। মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থায় (বিটিআরসি) এর উদ্বোধন করেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমপিআইএ) উদ্যোগে এই ডাটাবেজ নির্মিত হয়েছে।
মোস্তাফা জব্বার বলেন, বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির ইতিহাসে এই মুহূর্তটা একটা মাইলফলক। আইএমইআই ডাটাবেজ তৈরির ফলে একদিকে যেমন রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে। চুরি করে হ্যান্ডসেট আমদানি করায় যে রাজস্ব ক্ষতি হত তা এখন বন্ধ করা যাবে। অন্যদিকে নকল আইএমইআই নম্বর ব্যবহার করে সংঘটিত অপরাধ, মোবাইল ফোন চুরি, অবৈধভাবে হ্যান্ডসেট আমদানি ও বিক্রি বন্ধ হবে।
দেশ যত ডিজিটাল হচ্ছে ততই ডিজিটাল অপরাধ বাড়ছে মন্তব্য করে মোস্তাফা জব্বার বলেন, নিরাপদ ডিজিটাল ডিভাইসের ব্যবহার অপরাধ চিহ্নিত করা এবং কমাতে সাহায্য করবে এই ডাটাবেজ। এই ডাটাবেজ চালু হলে দেশে অবৈধ মোবাইল ফোনের প্রবেশ কমবে। ফলে সরকারের রাজস্ব আয় বাড়বে, মোবাইল ভিত্তিক অপরাধ কমবে, মোবাইল চুরি-ছিনতাই কমবে, অবৈধভাবে বিদেশে অর্থ পাচারও কমবে। টেলিযোগাযোগ খাতের অগ্রগতির কথা তুলে ধরে তিনি জানান, দেশে এরই মধ্যে ব্যান্ডউইথের ব্যবহার ১ টেরাবাইট ছাড়িয়ে গেছে। শুধু হ্যান্ডসেট নয় অন্যান্য প্রযুক্তিপণ্য তৈরিতে বাংলাদেশের এগিয়ে যাচ্ছে। মাদারবোর্ড তৈরি করার প্রক্রিয়া শুরু করা হচ্ছে এবং এটি গর্ব করার মতো বিষয় হবে। বঙ্গবন্ধু-২ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের উদ্যোগ এবং ফাইভ জির জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ তৃতীয় সাবমেরিন কেবলে প্রবেশ করতে নতুন একটি কনসোর্টিয়ামে যোগ দেবে।
নির্বাচনের আগে অপপ্রচার রুখতে বিটিআরসির কাজের প্রশংসা করে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, এত রাতে খবর পেয়েছি সেনাবাহিনীর নামে ৭৬০টা লিংক তৈরি করা হয়েছিল, সেনাবাহিনীর নামে গুজব রটানো প্রতিরোধ করা কঠিন ছিল। বিটিআরসি চমৎকারভাবে এসব প্রতিরোধ করেছে। আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ফেইসবুকের সহায়তা ছাড়া অপপ্রচারকারীদের আইনের হাতে নিয়ে এসেছে।
বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, এনএআইডি বাজার চাহিদার সঙ্গে বাজার পর্যবেক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। ভবিষ্যতে আইএমইআই বøক করার মাধ্যমে চুরি যাওয়া হ্যান্ডসেট বন্ধ করা সম্ভব হবে।
বিটিআরসির স্পেকট্রাম বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিম পারভেজ বলেন, ৯ কোটি মানুষ ১৫ কোটি সিম ব্যবহার করে এবং আনুমানিক ১০ কোটি হ্যান্ডসেট ব্যবহার করে থাকে। এ ডেটাবেইজ চালু হওয়ায় এখন প্রকৃত সংখ্যাই বলা যাবে।
বিদেশ থেকে হ্যান্ডসেট নিয়ে এলে তা বৈধ করার প্রক্রিয়া কী হবে সাংবাদিকদের প্রশ্নে নাসিম পারভেজ বলেন, কাস্টমসকে বললে সেট নিয়ে আসলে ট্যাক্সসহ বা ট্যাক্স ছাড়া রশিদ দেবে তাতে ওইসব হ্যান্ডসেট ব্যবহার করা যাবে। যারা ইতোমধ্যে নিয়ে এসেছে, তাদের চিন্তার কোন কারণ নেই, কারণ ভবিষ্যতে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডিনটেটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর) স্থাপিত হলে তারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হয়ে যাবে।
মোবাইল ফোন ইম্পোটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমপিআইএ) সভাপতি রুহুল আলম আল মাহবুব বলেন, এখাতে এখন সৎভাবে যারা ব্যবসা করছে, তাদের জন্য ব্যবসা সহজ হবে এবং অসৎ ব্যবসায়ীরা থাকতে পারবে না।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহুরুল হকসহ বিটিআরসির কমিশনার ও মহাপরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মোবাইল ফোন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ