Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

ঢাকা উত্তর সিটি ও সৈয়দ আশরাফের আসনে ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোট

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপ-নির্বাচন এবং দুই সিটির সম্প্রসারিত অংশের কাউন্সিলর নির্বাচন হবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি। একই দিনে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে সাধারণ নির্বাচনের জন্য ভোটের তারিখ রেখে তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। গতকাল মঙ্গলবার কমিশন সভা শেষে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এ দুই নির্বাচনের বিস্তারিত সময়সূচি সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন।
আনিসুল হকের মৃত্যুতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পূদ শূন্য হয়েছিল ২০১৭ সালের নভেম্বরে। ওই পদে উপ নির্বাচনের পাশাপাশি ঢাকার দুই সিটি নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করার জন্য গতবছর তফসিলও ঘোষণা করেছিল ইসি। কিন্তু আদালতের স্থগিতাদেশের কারণে সেই ভোট এতদিন আটকে ছিল। সম্প্রতি আদালতের স্থগিতাদেশ উঠে গেলে ঢাকা সিটির এ নির্বাচনের পথ তৈরি হয়।
অন্যদিকে কিশোরগঞ্জ-১ সংসদীয় আসনে ৩০ ডিসেম্বরের ভোটে নির্বাচিত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শপথ নেওয়ার আগেই মারা গেলে এ আসনেও নতুন করে ভোট করার প্রয়োজন হয়ে পড়ে।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে উপ নির্বাচন এবং উত্তর ও দক্ষিণের ৩৬টি ওয়ার্ডে সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করতে আগ্রহীরা ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। যাচাই-বাছাই হবে ২ ফেব্রুয়ারি, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। সব প্রক্রিয়া শেষে ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোট হবে নির্বচনী এলাকায়।
তফসিল অনুযায়ী, কিশোরগঞ্জ-১ সংসদীয় আসনের নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহীরা ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন। যাচাই-বাছাই হবে ৩ ফেব্রুয়ারি, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। সব প্রক্রিয়া শেষে ২৮ ফেব্রুয়ারি ভোট হবে নির্বচনী এলাকায়।
আনিসুল হকের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং দুই সিটিতে নতুন যুক্ত হওয়া ১৮টি করে ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর নির্বাচনের জন্য ২০১৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন রেখে তফসিল দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন।
ওই তফসিলের বৈধতা চ্যালঞ্জ করে রিট আবেদন হলে হাইকোর্ট ভোট স্থগিত করে রুল দিয়েছিল। পরে আপিল বিভাগেও সেই স্থগিতাদেশ বহাল থাকে। ফলে ভোট আটকে যায়। এর মধ্যে গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনও হয়ে যায়। রিটকারীরা এখন আর মামলা চালাতে আগ্রহী না হওয়ায় গত ১৬ জানুয়ারি ঢাকার সিটি ভোটের বাধা কাটে। ইসি সচিব বলেন, স্থগিতাদেশের আগে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন তাদেরও নতুন করে মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে।
আগে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন, তাদের জামানাতের টাকা ফেরত দেওয়া হবে; এবার নতুন তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। এ জন্য নির্ধারিত সময়ে আগ্রহীদের মনোনয়নপত্র জমা দিতে হবে। তবে সে সময় যাদেরকে এ নির্বাচনের জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, তারাই বহাল থাকবেন।
ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৫৪ ওয়ার্ডে ভোটার ২৯ লাখ ৪৮ হাজার ৫১০ জন। ১৩৪৯ কেন্দ্রের ৭ হাজার ৫১৬ ভোটকক্ষে তারা মেয়র পদের উপ নির্বাচনের ভোট দেবেন। উত্তরের নতুন ১৮ ওয়ার্ডে ভোটার আছেন ৫ লাখ ৭১ হাজার ৬৮৪ জন। মেয়র পদের সঙ্গে তারা নতুন কাউন্সিলর নির্বাচনেও ভোট দেবেন। উত্তরে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন ইসির যুগ্মসচিব (চলতি দায়িত্ব) আবুল কাসেম, তার সঙ্গে থাকবেন ১২ জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ১৮ ওয়ার্ডে ভোটার আছেন ৪ লাখ ৭৭ হাজার ৫১০ জন। নতুন কাউন্সিলর নির্বাচনে ভোট দেবেন তারা। দক্ষিণে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্বে পালন করবেন ঢাকার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা রকিবউদ্দিন মন্ডল। তার সঙ্গে থাকবেন ছয়জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের একটি করে ভোট কেন্দ্রে ইসির নিজস্ব উদ্যোগে তৈরি ইভিএমে ভোট করার পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া কয়েকটি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা বসিয়ে ভোট পর্যবেক্ষণ করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ