Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ০৯ চৈত্র ১৪২৫, ১৫ রজব ১৪৪০ হিজরী।

নগরে রস উৎসব

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

মাঘের কুয়াশামাখা সকালে আনুষঙ্গ খেজুরের রস, সঙ্গে খৈ, মুড়ি আর পিঠা। গ্রাম বাংলার শীত যেন কংক্রিটের রাজধানীতে কাটিয়ে গেল একটি সকাল। এমন অনুভূতিতে সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘রঙ্গে ভরা বঙ্গে’র আয়োজনে গতকাল শুক্রবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার বকুলতলায় অষ্টমবারের মত বসেছিল রস উৎসব।
উৎসবের উদ্বোধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, এ ধরনের উৎসবের মধ্যে দিয়ে আমাদের হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যর পুনরুজ্জীবন করা জরুরি। জাতিসত্তার অগ্রযাত্রায় সভ্যতার বিকাশ কীভাবে হল, এসব উৎসবের মধ্য দিয়ে সে কথা উঠে আসে। তিনি বলেন, একটি জাতি যখন উৎস সন্ধানে শেকড়ে যায়, তখনই বোঝা যায়, সে জাতি কতটা সমৃদ্ধ।
চারুকলার বকুলতলায় রস উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় সকাল সাড়ে ৮টায়। খেজুরের রস, খেজুরের গুড় আর খৈ-মুড়িতে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়। টাঙ্গাইলের অর্জুনার খোকামÐলের নাচারির দল পরিবেশন করে মনসামঙ্গলের বেহুলার ভাসানের অংশটুকু।
চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন বলেন, রসিক, রসালু, রসপ্রিয়- বহু শব্দ জড়িয়ে আছে বাঙালির নামের সঙ্গে। রসের সঙ্গে যেন এক গভীর সম্পর্ক আমাদের। রস নিয়েই আমাদের যত চর্চা। রস উৎসবে এসে বহুদিন পর খেজুরের টাটকা রসে গলা ভেজানোর সুযোগ হয়েছে অনেকের। আর বাবা-মায়ের সঙ্গে আসা অনেক শিশুর জন্য এই রসের আস্বাদন ছিল একেবারেই নতুন অভিজ্ঞতা।
ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভের চারুকলার অধ্যাপক আলাউদ্দিন আলী বলেন, দেশের নানা প্রান্তে পাঁচ হাজারের বেশি মেলা হয় প্রতিবছর। বট-পাকুরের নিচে খোলা প্রান্তরে এসব মেলার আয়োজন হয়। এসব মেলায় সমবেত হয় ধনী-গরীব, হিন্দু-মুসলমান, ছোট-বড় সবাই। মানুষে মানুষে স¤প্রীতি আর সখ্যতা বাড়াতে মেলার বিকল্প নেই।
রঙ্গে ভরা বঙ্গ’র পরিচালক ইমরান উজ জামান বলেন, শহুরে বিবর্তনে আমরা আমাদের সংস্কৃতি, কালচার, লোকাচার ও জীবনবোধের অনেক অনুষঙ্গই হারিয়ে ফেলতে বসেছি। বাংলার চিরায়ত লোকাচার ও জীবনবোধ বাঁচিয়ে রাখতে আমাদের এই প্রয়াস। এবারের রস উৎসবে সভাপতিত্ব করেন রঙ্গে ভরা বঙ্গর সভাপতি অধ্যাপক হায়াৎ মামুদ।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উৎসব

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
৩০ জানুয়ারি, ২০১৯
২৮ জানুয়ারি, ২০১৯
২৮ জানুয়ারি, ২০১৯
২৫ জানুয়ারি, ২০১৯
২১ জানুয়ারি, ২০১৯
১৬ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন