Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৭ মার্চ ২০১৯, ১৩ চৈত্র ১৪২৫, ১৯ রজব ১৪৪০ হিজরী।

ওয়াইপিজিদের মানবিজ থেকে বের করার ব্যাপারে ঐকমত্য

মুরসির বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানকারীদের সঙ্গে আজ পর্যন্ত কথা বলিনি : এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

বিশ্বের যেকোনো জায়গায় সামরিক অভ্যুত্থান হোক না কেন, তার বিরোধিতা করে যাবে তুরস্ক। দেশটির প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েপ এরদোগান শুক্রবার এ কথা বলেছেন। এ সময় মিসরে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রথম প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানকারীদের সঙ্গে আজ পর্যন্ত কোনো কথা বলেননি বলেও জানান তিনি। তুরস্কের পশ্চিমাঞ্চলীয় ইরজুরুম প্রদেশে ক্ষমতাসীন জাস্টিস ও ডেভলপমেন্ট পার্টির (একে) মেয়রপ্রার্থীরে জন্য প্রচার অভিযানে তিনি এসব কথা বলেন। এরদোগান বলেন, আমরা কখনোই অভ্যুত্থানের ষড়যন্ত্রকারীদের পক্ষ নেব না। এমন কোনো ইচ্ছাই আমাদের নেই। বিশ্বের যেকোনো দেশে এমনটা ঘটনা ঘটুক না কেন, আমরা তার বিরোধিতা করব। আনাদোলু জানায়, প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, মুরসির বিরুদ্ধে যারা অভ্যুত্থান করেছেন, আমরা তাদের বিরোধিতা করেছি। সেদিন থেকে অভ্যুত্থানের ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গে আমি কোনো কথা বলেনি। ভেনিজুয়েলায় অভ্যুত্থান ষড়যন্ত্র চলছে বলেও উল্লেখ করেন এরদোগান। তিনি বলেন, যদি আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী হই, তবে আমাদের ব্যালট বাক্সে সম্মান দেখাতে হবে। বৃহস্পতিবার ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন তুরস্কের এই ইসলামপন্থী প্রেসিডেন্ট। টিআরটির খবরে বলা হয়, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যিপ এরদোগান বলেছেন, পিকেকের মদদপুষ্ট ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের মানবিজ থেকে বের করার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া একমত হয়েছেন। এ দুই দেশ মানবিজের বিদ্রোহী ওয়াইপিজিদের সংখ্যা ও তাদের তালিকাও প্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট। মস্কোতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠকের পর মস্কো থেকে ফেরার পথে বিমানে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এরদোগান এ মন্তব্য করেন। এরদোগান বলেন, আমাদের হিসেব মতে এখন মানবিজে এক হাজারের বেশি ওয়াইপিজি বিদ্রোহী রয়েছে।বিদ্রোহীরা তা অস্বীকার করলেও আমাদের কাছে তাদের নামসহ তালিকা রয়েছে। কুর্দিদের বহিরাগত দাবি করেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, মানবিজের ৮৫ থেকে ৯০ ভাগ অধিবাসী আরব সুন্নি। এতেই বোঝা যায় এ শহরের আসল মালিকানা কাদের। যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া এই বিদ্রোহীদের মানবিজ থেকে বের করার ঘোষণা দিয়েছে। তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, আমাদের আন্তরিক দাবি হল, বিদ্রোহীদের দখল থেকে শহরগুলো তাড়াতাড়ি মুক্ত করে তাদের ফুরাত নদীর পূর্বপ্রান্তে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সিরিয়ায় বিদ্রোহীদের বিষয়েই তুরস্ক কাজ করছে দাবি করে এরদোগান বলেন, সিরিয়ায় শুধু বিদ্রোহীদের নিয়েই আমরা কথা বলি। ইদলিব, মানবিজ ও ফুরাত নদীর পূর্বপ্রান্তে আমরা নিরাপদ অঞ্চল গড়ে তুলতে বদ্ধপরিকর। পিওয়াইডি ও এর সশস্ত্র সংগঠন ওয়াইপিজির ব্যাপারে আমাদের অবস্থান অত্যন্ত স্পষ্ট। আমরা সিরিয়ান কুর্দিদের জন্য নিরাপদ অঞ্চল গড়ে তোলার বিষয়টি বেশী গুরুত্ব দিচ্ছি। কারণ নিরপরাধ কুর্দিদের আমরা বিদ্রোহীদের সঙ্গে একপাল্লায় মাপতে চাই না। প্রসঙ্গত,সিরিয়াভিত্তিক কুর্দি গোষ্ঠী পিওয়াইডি ও এর সশস্ত্র সংগঠন ওয়াইপিজিকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে দেখে তুরস্ক। সংগঠন দুটিকে নিষিদ্ধ ঘোষিত দল পিকেকের শাখা মনে করে তারা। তুরস্কের বিরুদ্ধে গত কয়েক দশক ধরে যুদ্ধ অব্যাহত রেখেছে পিকেকে। তুরস্ক ও রাশিয়ার সম্পর্কের ব্যাপক উন্নতি হয়েছে জানিয়ে এরদোগান বলেন, তুর্কি পর্যটকরা বিনা ভিসায় রাশিয়া ভ্রমণের বিষয়টি শেষ পর্যায়ে আছে। এখন শুধু তা রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের স্বাক্ষরের অপেক্ষায় রয়েছে। আনাদোলু, টিআরটি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এরদোগান


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ