Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ২০ মে ২০১৯, ০৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৪ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

পুষ্টির ভান্ডার পেয়ারা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম | আপডেট : ১২:১২ এএম, ২৭ জানুয়ারি, ২০১৯

আমাদের দেশীয় নানা ফলের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে পেয়ারা। পেয়ারা খাননি বা খান না এমন মানুষ কেউ আছেন কিনা সন্দেহ। তাই পেয়ারার চাহিদা ব্যাপক। বাজারে নানা জাতের পেয়ারা মেলে। হালকা সবুজ রঙের হালকা মিষ্টি সুস্বাদু পেয়ারা কচকচ করে চিবিয়ে খেতে খুবই ভালো লাগে।
আগে বাড়ি বা বাগানে অন্যান্য ফলের সাথে দু’একটি করে পেয়ারা গাছ লাগানো হত। এভাবে দেশে যে উৎপন্ন পেয়ারা দিয়েই সাধারণ চাহিদা মিটত। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে পেয়ারার চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে পেয়ারার চাষ শুরু হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে, বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলের কয়েকটি এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে পেয়ারার চাষ করা হয়।
দেশের বাজারের চাহিদা মিটিয়ে এখন তা বিদেশেও রফতানি হয়ে থাকে। পেয়ারা এখন আর স্বল্প মূল্যের ফল নয়, এটি একটি মূল্যবান অর্থকরী ফল হয়ে উঠেছে। পেয়ারাকে বলা হয় পুষ্টির ভান্ডার। এটি স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী একটি ফল। এর যে কত গুণ তা বলে শেষ করা যাবে না। হজমের উন্নতি, ওজন হ্রাস, সুস্থ ত্বক, হার্ট ভালো রাখা ইত্যাদির পাশাপাশি বহু উপকারে লাগে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশেষ করে ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা ভীষণ উপকারী ফল।
পেয়ারা কত উপকারী ফল তা নিচের বিবরণ থেকে জানা যায়। ১. ভিটামিন সি : পেয়ারায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। এটি দেহের কোষগুলোকে ক্যান্সারের ঝুঁকি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।
২. ডায়াবেটিকের ঝুঁকি হতে রক্ষা করে : পেয়ারায় রয়েছে ফাইবারের বিপুল প্রাচুর্য। এ ফাইবার ব্লাড সুগার কমাতে সাহায্য করে এবং শরীরের ডাইজেস্টিভ সিস্টেমকেও ভালো রাখে। পেয়ারা শরীরের অতিরিক্ত সুগার শুষে নিতে পারে। এ ফলটি টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সক্ষম।
৩. চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে : ভিটামিন এ দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি করতে চমৎকার কাজ করে। পেয়ারা রেটিনল সমৃদ্ধ ফল। যারা গাজর খেতে অপছন্দ করেন তারা দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি করতে পেয়ারা খেতে পারেন।
৪. রক্তচাপ কমায় : পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। এটি শরীরের অতিরিক্ত রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে ও রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখে।
৫. থাইরয়েড কার্যকর রাখে : থাইরয়েড গ্রন্থির কার্যকারিতা বজায় রাখতে পেয়ারা খুব ভাল উপাদান। এতে ট্রেস উপাদান তামা থাকে। এটি থাইরয়েড গ্রন্থির স্বাস্থ্য সমস্যা দূর করে।
৬. ম্যাঙ্গানিজের প্রাচুর্য : পেয়ারা আমরা আমাদের খাদ্য থেকে গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি শোষণ করে শরীরের সকল খাবারের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে। এটি ম্যাঙ্গানিজ সমৃদ্ধ ।
৭. রক্ত পরিষ্কার করে : পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি রয়েছে। এর ফলে রক্ত পরিষ্কার হয় ও ত্বক অনেক বেশি উজ্জ্বল হয়। এছাড়াও লাইকোপিনের সাহায্যে গালে গোলাপী আভা ফুটে ওঠে।
৮. পাকস্থলির স্বাস্থ্য ভালো রাখে : যে কোন ব্যকটেরিয়া সংক্রমণ বা পেটের গোলযোগে সবচেয়ে কার্যকরী হল পেয়ারা। এই ফলটিতে অ্যাস্ট্রিজেন্ট ও অ্যান্টি-মাইক্রোবাল উপাদান থাকে ফলে এটি পাকস্থলির স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে।
৯. ওজন কমায় : যাদের ওজন অতিরিক্ত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে তারা পেয়ারা খেতে পারেন। পেয়ারা খেলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন খুব সহজেই কমানো যেতে পারে।
১০. ক্যান্সার প্রতিরোধী : ক্যান্সার প্রতিরোধেও পেয়ারা কাজ করে। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, লাইকোপিন, ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে পারে। নির্দিষ্ট করে বললে, প্রোস্টেট ক্যান্সার আর স্তন ক্যান্সারের জন্য পেয়ারা উপকারী। সূত্র : এনডিটিভি ও স্টাইল কেয়ার।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পেয়ারা

১৭ আগস্ট, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন