Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

মহাপরিচালক না থাকায় চাকরি প্রার্থীদের আন্দোলন স্থগিত

স্বাস্থ্য অধিদফতরে অবস্থান কর্মসূচি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ জানুয়ারি, ২০১৯, ৭:৪১ পিএম

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক উপস্থিত না থাকায় অধিদফতরের সামনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করেছে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর নিয়োগ প্রত্যাশীরা। ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী সোমবার সকাল ১০ টা থেকে মহাখালীর স্বাস্থ্য অধিদফতরের নতুন ভবনের সামনে অবস্থান শুরু করে শাতাধিক নিয়োগপ্রত্যাশী।

এ সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়োগ বাস্তবায়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ কাউসার জানান, অধিদফতরের মহাপরিচালক প্রফেসর ডা. আবুল কালাম আজাদ অসুস্থ্য। আন্দোলনরতদের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) এর সঙ্গে দেখা করলে তিনি আশ্বস্ত করেছেন যে, মহাপরিচালক সুস্থ্য হয়ে ফিরে এলে তার মৌখিক অনুমতি নিয়ে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন করা হবে। অন্যদিকে অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন মহাপরিচালক আসার পর এ নিয়োগ বাস্তবায়ন না হলে আমাদের যৌক্তিক আন্দোলনে তারাও আমাদের পক্ষে অবস্থান নেবেন। তাই সামগ্রিক বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আমরা আজকের মতো লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করছি।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ২২ নভেম্বর বিভিন্ন গণমাধ্যমে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে ১১টি জেলায় তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর প্রায় ৯১টি শূন্য পদের বিপরীতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির পরিপ্রেক্ষিতে অসংখ্য আবেদনপত্র জমা পড়ে। ২০১৩ সালের ২৬ এপ্রিল ৯টি জেলায় লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

একই বছরের ২৫ জুন অধিদফতরের ওয়েবসাইটে লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হয় এবং ২০১৩ সালের ১৯-২০ আগস্ট লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু এ সময় লিখিত পরীক্ষায় স্বজনপ্রীতির অভিযোগে একটি রিট পিটিশন দায়ের করা হলে আদালত শুনানি শেষে কিছু অবজারভেশন দিয়ে মামলা খারিজ করে দেয়।

এরপর স্বাস্থ্য অধিদফতর নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করে পুনঃনিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের পক্ষ থেকে তিনটি রিট মামলা দায়ের করা হয়। যার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত পুনঃনিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাতিল করে এবং মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে নিয়মানুসারে নিয়োগ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেয়। কিন্তু এরপরেও অধিদফতর নিয়োগ সম্পন্ন করায় গড়িমসি করলে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ায়।

এরপর ২০১৫ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর নিয়োগ সম্পন্ন করতে আদালত বরাবর ৪৫ দিন সময় প্রার্থনা করে। আইনগত এই জটিলতা আপিল বিভাগ এবং রিভিউসহ ৩ বছর অতিবাহিত হয়। এরপর ২০১৮ সালের ২১ মে স্বাস্থ্য অধিদফতর দ্রুত নিয়োগ সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেয়। কিন্তু তারপর ৮ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও অধিদফতরের পক্ষ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্বাস্থ্য অধিদফতর


আরও
আরও পড়ুন