Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

ঢাকাকে হারিয়ে শেষ চারে চিটাগং

সেমির টিকিট পেতে ঢাকার চাই ১৭৫

স্পোটর্স রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | প্রকাশের সময় : ৩০ জানুয়ারি, ২০১৯, ৩:৩৪ পিএম | আপডেট : ৬:২৮ পিএম, ৩০ জানুয়ারি, ২০১৯

বৃষ্টির কারণে বিপিএলের এই পর্বে আগের ম্যাচগুলোর তুলনায় গতকাল বোলাররা সুবিধা পেয়েছে বেশি। রানবন্যার চট্টগ্রামে একদিনে দেখা মিলেছে দুটি লো স্কোরিং ম্যাচের। তবে আজ মেঘ নেই, ঝলমলে রোদ্দুর খেলা করছে চট্টগ্রামের আকাশে। তবে বাতাস রয়েছে। আছে আদ্রতা। ব্যাটিং সহায়ক হবে বলেই মনে করা হচ্ছে সাগরিকার উইকেট।

বুধবার বিপিএলের প্রথম ম্যাচে সেমিফাইনাল নিশ্চিতের লড়াইয়ে চিটাগং ভাইকিংসের মুখোমুখি ঢাকা ডায়নামাইটস। বাটসম্যানদের সুবিধা নিতে টস জিতে ব্যাটিংই বেছে নিলেন স্বাগতিক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। টস জিতলে তিনিও ব্যাটিং নিতেন বলে জানালেন ঢাকা দলপতি সাকিব আল হাসান।

নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে চিটাগং তুলেছে ১৭৪ রান। ফিফটি তুলে নিয়েছেন ডেলপোর্ট, সেদিকেই এগিয়ে যাচ্ছিলেন মুশফিকুর রহিমও। তবে তাকেসহ শেষ ওভারে ডেলপোর্ট আর শানাকাকে ফিরিয়ে আসরের তৃতীয় হ্যাটট্রিক তুলে নিয়েছেন আন্দ্রে রাসেল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৬৩ রানে থামে ৯ উইকেট হারানো ডায়নামাইটস। টানা তিন ম্যাচ হারের পর ১১ রানের এই জয়ে ১১ ম্যাচ থেকে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চার নিশ্চিত হয়ে গেছে মুশফিকের দলের। এর আগে সমান ১৪ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চার নিশ্চিত করেছে রংপুর রাইডার্স ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সও। তবে ১০ খেলায় ১০ পয়েন্ট নিয়ে এখনো শঙ্কায় আছে সাকিবের ঢাকা। 

শুরুতেই আবু জায়েদ রাহীর তোপে পড়েছে ঢাকা। নিজের করা দুই ওভারে সুনিল নারাইন এবং রনি তালুকদারকে ফিরিয়েছেন এই পেসার। আরেক ওপেনার মিজানুর রহমান (১১) হয়েছেন অদ্ভুতুরে রান আউটের শিকার। নুরুল ইসলাম ফিরে গেছেন ২৩ বলে ৩৩ রানের ঝড় তুলে। সাকিবকে বাঁচাতে রান আউটের ফাঁদে পড়ে কায়রন পোলার্ড এলেন আর গেলেন।

ক্রিজে এসেই চিটাগং বোলারদের ওপর চড়াও হয়েছিলেন আন্দ্রে রাসেল। শানাকার বলে ডিপ মিড উইকেটে ডেলপোর্টের হাতে তালুবন্দী হবার আগে ক্যারিবিয়ান তারকা ২৩ বলে খেলেছেন ৩৯ রানের ঝলমলে ইনিংস। তার বিদায়ে সাকিবের সঙ্গে ভাঙে ৬৬ রানের জুটি।

এসেই দুবার জীবন পাওয়া শুভাগত হোমও ফিরে গেছেন ৫ রান করে।

একপাশ আগলে তখনও ব্যাট করে করে চলেছিলেন ঢাকা অধিনায়ক সাকিব, তবে ৫৩ রানে তাকে ফিরিয়ে চিটাগংকে ম্যাচে ফিরিয়েছেন শানাকা। তার ৪২ বলের ইনিংসটি ৬টি জারে সাজানো।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে কিছুটা সাবধানী শুরু করে চিটাগং। সময় বাড়ার সাথে সাথে হাত খুলে মারেন ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ। তার সঙ্গে ৪২ রানের উদ্বোধনী জুটিতে ভালো শুরু এনে দেন  কামেরন ডেলপোর্ট। তবে ভয়ঙ্কর এই আফগানিকে নিজের দ্বিতীয় বলেই তুলে নিয়েছেন সুনিল নারাইন। ১৫ বলে ৩টি চার ও একটি ছক্কায় ২১ রানে ধরা পড়েন উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহানের গ্লাভসে।

অপর প্রান্তে দেখে শুনে বাট করেছেন ডেলপোর্ট। সুযোগ পেলেই মেরেছেন। আর তাতে সফলও হয়েছেন। ফিফটি তুলে খেলছিলেন দারুণ। তাকে সঙ্গ দেয়া ইয়াসির আলী চৌধুরীর (২০ বলে ১৯) সঙ্গে গড়েন আরেকটি জুটি। লোকাল বয়ের বিদায়ে ভাঙে ৪৬ রানের জুটিটি। এবারও শিকারী সেই নারাইন।

৪৩ বলে পঞ্চাশ ছোঁয়ার পর রানের গতি বাড়ান ডেলপোর্ট। মুশফিকের কাছ থেকেও পেয়েছেন পূর্ণ সহযোগীতা। রুবেল হোসেনকে ছক্কা হাঁকিয়ে ডানা মেলেন চিটাগং অথিনায়ক। তৃতীয় উইকেটে তারা গড়েন ৭৯ রানের জুটি। 

এ পর্যন্ত ভালোই চলছিল সবকিছু, চিটাগাংও দেখাচ্ছিলো বড় সংগ্রহের আশা। তবে শেষ ওভারে সবকিছু ওলট পালট করে দিলেন রাসেল। পরপর দুই বলে এই দুই ব্যাটসম্যানকে ফেরানোর পর দাসুন শানাকাকে বিদায় করে হ্যাটট্রিক করেন রাসেল।

ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারের প্রথম বলে বাউন্ডারি সীমানায় ক্যাচ দিয়ে আউট হওয়ার আগে মুশফিক করেন ৪৩ রান। তার ২৪ বলের ইনিংসে ছিল চারটি চার আর দুটি ছক্কা। আন্দ্রে রাসেলের পরের বলেই বিদায় নেন ৭১ রান করা দেলপোর্ট। তার ৫৭ বলের ইনিংসে ছিল ৫টি চার আর ৪টি ছক্কার মার। তৃতীয় বলে দাসুন শানাকাকে ফিরিয়ে পূর্ণ করেন হ্যাটট্রিক।এই নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে প্রথম বোলার হিসেবে তিনটি হ্যাটট্রিকের মালিক এখন ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার।

সিকান্দার রাজা ৬ আর মোসাদ্দেক হোসেন ১ রানে অপরাজিত থাকেন। ঢাকার দলপতি সাকিব ৩ ওভারে ২০, অ্যান্ড্রু বির্চ ৪ ওভারে ৩৫, রুবেল হোসেন ৪ ওভারে ৪২ রান দিয়ে কোনো উইকেট পাননি। সুনীল নারাইন ৪ ওভারে ২০ রান দিয়ে পান দুটি উইকেট। আন্দ্রে রাসেল ৪ ওভারে ৩৮ রান দিয়ে তুলে নেন তিনটি উইকেট।

বিপিএলের এই মৌসুমে এটি তৃতীয় হ্যাটট্রিক। এর আগে মিরপুরে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে রংপুর রাইডার্সের স্পিনার আলিস আল ইসলাম এবং খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে এই সাগরিকায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের পাকিস্তানী পেসার ওয়াহাব রিয়াজ করেন হ্যাটট্রিক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

চিটাগং ভাইকিংস: ২০ ওভারে ১৭৪/৫ (শাহজাদ ২১, ডেলপোর্ট ৭১, ইয়াসির ১৯, মুশফিক ৪৩, শানাকা ০, রাজা ৬*, মোসাদ্দেক ১*; বার্চ ৪-০-৩৫-০, রাসেল ৪-০-৩৮-৩, সাকিব ৩-০-২৪-০, নারাইন ৪-০-২০-২, রুবেল ৪-০-৪০-০, মাহমুদুল ১-০-৮-০)। অসমাপ্ত

ঢাকা থেকে টানা জয়ের ধারায় থেকে চট্টগ্রামে পা রেখেছিল দল দুটি। কিন্তু ভাগ্যের ফেরে ঘরের মাঠে তিন ম্যাচ খেলে এখন পর্যন্ত একটিও জয়ের দেখা পায়নি চিটাগং, একই অবস্থায় ডায়নামাইটদেরও। টানা চার জয়ে ঢাকা পর্ব শুরু করা সাকিবের দল একটি ম্যাচ খেলেছে সাগরিকায়, রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে হেরেছে ৮ উইকেটে।

জয়ের খোঁজে থাকা দল দুটির আজকের ম্যাচে রয়েছে বেশ কিছু পরিবর্তন। ঢাকার তিনটি আর চট্টগ্রামের দুটি। তবে স্বাগতিক শিবিরের জন্য খারাপ ফবর হচ্ছে, আজও খেলতে পারছেন না ইনজুরিতে থাকা দলটির কাণ্ডারী রবার্ট ফ্রাইলিঙ্ক। 

আজ জিতলে সেমিফাইনাল অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যাবে ঢাকার। তবে হেরে গেলেও সুযোগ থাকছে সাকিবের দলটি। কিন্তু হেরে গেলে শঙ্কায় পড়ে যাবে চিটাগংয়ের শেষ চারের আশা। ১০ ম্যাচ খেলে ৬ জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে চিটাগং আছে পয়েন্ট টেবিলের তিনে। এক ম্যাচ কম খেলে ৫ জয়ে ঢাকার সংগ্রহ ১০।

একাদশ :

ঢাকা ডায়নামাইটস : সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), নুরুল হাসান সোহান, রুবেল হোসেন, শুভাগত হোম, রনি তালুকদার, মিজানুর রহমান, মাহমুদুল হোসেন, আন্দ্রে রাসেল, কায়রন পোলার্ড, সুনিল নারাইন, আন্দ্রে বির্চ।

চিটাগয় ভাইকিংস : মোহাম্মদ শাহজাদ, ক্যামেরন ডেলপোর্ট, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), সিকান্দার রাজা, মোসাদ্দেক হোসেন, নাঈম হাসান, আবু জায়েদ রাহী, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, ইয়াসির আলী চৌধুরী, দাসুন শানাকা, নাজমুল হোসেন মিলন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিপিএল টি-২০
আরও পড়ুন