Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

সফল নির্বাচনের সংসদ

অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে সকলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছে। গণতান্ত্রিক ধারায় সমালোচনা সব সময় গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি এইটুকু আশ্বাস দিতে পারি যে, এই সমালোচনার ক্ষেত্রে আমাদের বিরোধী দলে যারা আছেন, তারা যথাযথভাবে করতে পারবেন। এখানে আমরা কোনো বাঁধা সৃষ্টি করবো না। কোনদিন বাঁধা আমরা দেইনি, দেবো না। এবিষয়ে স্পিকারকে সহযোগিতার প্রস্তুতি দেন তিনি।
গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদ ভবনে একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে পুনর্নির্বাচিত স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে স্বাগত ও শুভেচ্ছা জানিয়ে এবং পরে সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে আনীত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এসময় অধিবেশনে সভাপতিার আসনে ছিলেন টানা তৃতীয়বার নির্বাচিত স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে অনেক ঘাত-প্রতিঘাত অনেক চড়াই-উৎড়াই পার হয়ে আমরা একটা গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে সক্ষম হয়েছি। কারণ এবারের নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ, মা- বোনেরা, প্রথম যারা ভোটার তাঁরা, তরুণ ভোটাররা সকলে স্বত:স্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেছে। একটি সফল নির্বাচনের মধ্য দিয়ে এই সংসদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমি বাংলাদেশের জনগণকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই এবং কৃতজ্ঞতা জানাই। তিনি বলেন, সংসদ নেতা হিসেবে আমার দায়িত্ব সংসদের সকল সদস্যের অধিকার যেমন দেখা এবং সেই সঙ্গে আপনি স্পিকার হিসেবে সকল সদস্য যাতে সমানভাবে সুযোগ পায়, এখানে সরকারি দল, বিরোধী দল সকলেই যেন পায় অবশ্যই আপনি সেটা দেখবেন। এ ব্যাপারে আমরা আপনাকে সব রকমের সহযোগিতা করবো।
সংসদ নেতা বলেন, গণতন্ত্রই একটি দেশকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় আর তা আজ বাংলাদেশের ক্ষেত্রে প্রমাণিত সত্য। আজ আমরা আর্থ-সামাজিকভাবে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যেয়ে আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছি। এই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে বাংলাদেশের জনগণকে একটি ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠা করে আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যে স্বপ্ন, যে স্বপ্ন নিয়ে তিনি এ দেশকে স্বাধীন করেছিলেন, সেই ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা আমরা ইনশাল্লাহ গড়ে তুলবো। সেটাই আমাদের লক্ষ্য।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণ যেহেতু ভোট দিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচিত করে এবং আমরা যারা প্রতিনিধিরা বসেছি সকলেই কিন্তু আমরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে এসেছি। জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে এখানে আমরা আমাদের স্ব স্ব দায়িত্ব পালন করবো। তিনি আরো বলেন, আমাদের সব সময় মনে রাখতে হবে আমাদের ভোটাররা, যারা নির্বাচিত করে এখানে পাঠিয়েছে তাদের সার্বিক উন্নয়ন, তাদের স্বার্থ সংরক্ষণ এবং দেশে দেশে যেন একটা শান্তিপূর্ণ অবস্থা বিরাজ করে। বাংলাদেশ জঙ্গীমুক্ত, মাদকমুক্ত, দুর্নীতিমুক্ত ও একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ যেন গড়ে ওঠে এবং দেশের মানুষের জীবনে যেন শান্তি-নিরাপত্তা নিশ্চিত হয় সেটাই আমাদের সব সময় লক্ষ্য রাখতে হবে।
সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেন, অতীতে একটা চমৎকার পরিবেশে সংসদ পরিচালিত হয়েছিল বলেই আমরা মানুষের আস্থা-বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছিলাম। আবার আমরা যেহেতু সংসদে নির্বাচিত হয়ে এসেছি অবশ্যই জনগণের আশা-আকাঙ্খা পূরণ করে বাংলাদেশকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যাব। এটাই আমাদের লক্ষ্য। আর এ ব্যাপারে আমার দৃঢ় বিশ্বাস আছে। তিনি আরো বলেন, এই সংসদে বাংলাদেশের জনগণ আমাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে। আজকে সেই সংসদ আপনাকে স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত করেছে এবং ডেপুটি স্পিকার হিসেবে আমাদের ফজলে রাবক্ষী সাহেবকে নির্বাচিত করেছে। আমি আপনাকে এবং ডেপুটি স্পিকারকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।
এই আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধী দলের উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের স্পিকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, দেশবাসী প্রত্যাশা করে সংসদ কার্যকর হবে। বিরোধী দলের আমাদের আসন সংখ্যা কম। তবে এটা সংসদকে কার্যকর করতে কোন বাধা হবে বলে মনে করি না। এজন্য আপনার সহযোগিতা প্রয়োজন। তিনি বলেন, জনগণের পক্ষ থেকে যেসব কথা আমরা সংসদে বলতে চাই তা বলতে দিতে হবে। এতে জনগণ সংসদের দিকে আগ্রহী হবে ও সংসদ কার্যকর হবে। বিরোধী দলের যৌক্তিক কথা যদি গ্রহণ করা হয় তাহলে সংসদ প্রানবন্ত ও কার্যকর হবে।
সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ স্পিকারকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, আপনি তিনবার স্পিকার হয়েছেন। দক্ষতার সঙ্গে দেশে-বিদেশে স্পিকার হিসেবে আমাদের সুনাম কুড়িয়েছেন। আপনি বাংলাদেশের সকল মানুষের কাছে জনপ্রিয় ও গ্রহণযোগ্য। অতীতে যেভাবে দক্ষতা ও সুনামের সঙ্গে সংসদ পরিচালনা করেছেন, আগামীতেও করবেন বলে প্রতাশা করি।
স্পিকারকে শুভেচ্ছা জানিয়ে রাশেদ খান মেনন বলেন, সংসদে আসার প্রথম দিন হিসেবে আমরা আনন্দিত আবার কিছুটা বিব্রতও। প্রতিনিয়ত আমাদের শুনতে হচ্ছে এই সংসদে আপনাদের ভূমিকা কি হবে। আগে বলেছি সরকারের সব ধরনের উন্নয়নমূলক কাজের প্রশংসা করবো আর জনহিতবিরোধী কাজের বিরোধীতা করবো। আর দূর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার যে অঙ্গীকার করেছে তা পালন করতে গিয়ে আমরা যদি কোন বক্তব্য দিতে চাই স্পিকার হিসেবে আপনি সে সুযোগ দেবেন বলে আশাকরি।
জাসদের হাসানুল হক ইনু স্পিকারকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা রাজনৈতিক শান্তি আনতে সক্ষম হয়েছি।
শোক প্রস্তাবের ওপর অলোচনায় শেখ হাসিনা শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবেগজড়িত কন্ঠে বলেন, সৈয়দ আশরাফকে নিজের ভাইয়ের মতোই দেখতাম। সৈয়দ আশরাফ অত্যন্ত সৎ ও মেধাবী রাজনৈতিক নেতা ছিলেন। সে আমার পরিবারের সদস্যেদের মতো ছিল, আমাকে বড় বোনের মতো শ্রদ্ধা করতো। প্রতিটি ক্ষেত্রে সে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছে। রাজনৈতিক জ্ঞান, প্রজ্ঞা ও অসাধারণ মেধাসম্পন্ন নেতা ছিল সৈয়দ আশরাফ। তিনি বলেন, ওয়ান ইলেভেনের সময় আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে বলিষ্ট ভ‚মিকা রেখেছিল সৈয়দ আশরাফ। আজ আমরা যে গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছি সেক্ষেত্রে সৈয়দ আশরাফেরও বলিষ্ঠ ভ‚মিকা ছিল। অসম্ভব সোজা সরল ছিল সে। ভাইদের হারিয়ে যে ক’জনকে ভাইয়ের মতো পেয়েছিলাম, সৈয়দ আশরাফ তাঁদের একজন। তার বাবা দেশের অস্থায়ী প্রেসিডিন্ট ছিলেন, সৈয়দ আশরাফও দীর্ঘদিন মন্ত্রী ছিলেন। কিন্তু সবসময় অসম্ভব সৎ জীবন-যাপন করেছে। ওর টাকা নেই, পয়সা নেই। কষ্ট করে চলতে হতো। তাঁর চিকিৎসার জন্য যা যা করার আমি তা করেছি। তাঁর মতো একজন প্রজ্ঞাবান ও জ্ঞানী রাজনীতিককের চলে যাওয়ার ক্ষতি কোনদিন পূরণ হবার নয়। তাঁর মৃত্যৃ দল হিসেবে আওয়ামী লীগের এবং দেশের জন্য সৈয়দ আশরাফের চলে যাওয়া অপুরণীয় ক্ষতি হলো।
ময়মনসিংহবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, সৈয়দ আশরাফের সততা ও নিষ্ঠার কারণে অসুস্থ্যতা সত্তে¡ও তাঁকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করেছে ময়মনসিংহবাসী। তাঁর বোন ডা. লিপিকে উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন দিয়েছি। আমরা আশা করি, সৈয়দ আশরাফের স্মৃতি ধরে রাখতে ডা. লিপিকে ভোট দিয়ে ময়মনসিংহবাসী নির্বাচিত করবেন।
শোক প্রস্তাবের ওপর আরো আলোচনা করেন আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মোহাম্মদ নাসিম, কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক এবং সাবেক বিরোধী দলের নেতা জাতীয় পার্টির বেগম রওশন এরশাদ।
উল্লেখ্য, সৈয়দ আশরাফ ছাড়াও যাদের নামে শোক প্রস্তাব নেওয়া হয় তারা হলেন- সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটি সদস্য তরিকুল ইসলাম, সাবেক ড. ফজলে রাব্বী চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য খন্দকার আবদুল বাতেন, নুরুল আলম চৌধুরী, মাওলানা নুরুল ইসলাম, আশরাফুন নেছা মোশাররফ ও বোরহান উদ্দিন খান, কিংবদন্তি চলচ্চিত্র নির্মাতা, গীতিকার ও চিত্রনাট্যকার, অভিনয়শিল্পী এবং লেখক আমজাদ হোসেন, বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী, সুরকার ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, উপমহাদেশের প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা মৃণাল সেন, নারী মুক্তিযোদ্ধা বীরপ্রতীক তারামন বিবি, জাতীয় প্রতীকের নকশাকার মোহাম্মদ ইদ্রিস, প্রখ্যাত সাংবাদিক শাহরিয়ার শহীদ, ভাষাসৈনিক সৈয়দ আব্দুল হান্নান, একাত্তরের বীরযোদ্ধা ভারতীয় সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার কুলদীপ সিং চাঁদপুরী, চলচ্চিত্র নির্মাতা সাইদুল আনাম টুটুল এবং প্রখ্যাত চিত্রগ্রাহক আলোকচিত্রী আনোয়ার হোসেন ও সাবেক স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর স্ত্রী মেহজাবিন চৌধুরী। উলে­খিত ব্যক্তিদের জীবনবৃত্তান্ত সম্বলিত শোক প্রস্তাব সংসদে উত্থাপন ও সংসদ সদস্যদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।



 

Show all comments
  • Nilima Nila ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৪ এএম says : 0
    কত বড় নির্লজ্জ বেহায়া হলে রাতের আঁধারে জনগণের ভোট ডাকাতিকে বিজয় বলতে পারে?
    Total Reply(0) Reply
  • Md Miskat Molla ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৫ এএম says : 0
    চুরি করে সফল । হা হা হা হা...
    Total Reply(0) Reply
  • MD Sujan ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৬ এএম says : 0
    নাউজুবিল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Md Azad ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৪ এএম says : 0
    সফলের সংজ্ঞা কি পরিবর্তন হয়ে গেল নাকি
    Total Reply(0) Reply
  • Zillul Haq ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৬ এএম says : 0
    Somman takleito somman jeto ase ki r jabeiba ki
    Total Reply(0) Reply
  • সপ্ন বিলাসী মন ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৭ এএম says : 0
    ভুয়া ভোটের এমপি,মন্ত্রী,সংসদ
    Total Reply(0) Reply
  • Rayyan Blue ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৮ এএম says : 0
    আস্তাগফিরুল্লাহ। নাউযুবিল্লাহে মিন যালেক। আইয়ামে জাহেলিয়াতের যুগে চুরি ডাকাতি করে জনসম্মুখে কবিতা আবৃত্তির মতো করে চুরি ডাকাতির বিবরণ বলে আনন্দ উল্লাস করতো।
    Total Reply(0) Reply
  • Sohel Ahmed ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৮ এএম says : 0
    নাউজুবিল্লাহ আল্লাহতায়ালা আপনাদেরকে হেদায়েত দান করুন
    Total Reply(0) Reply
  • Nur Hossain ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৯ এএম says : 0
    ভোট চোরের সংসদ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mahbubur Rahman ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫০ এএম says : 0
    সফল বিজয় না রাজনৈতিক ,,,,,, তা সময়ই বলে দেবে।
    Total Reply(0) Reply
  • সোহেল রানা ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫০ এএম says : 0
    "সফল নির্বাচনের মাধ্যমে এ সংসদ প্রতিষ্ঠিত" এটা কেন বলা লাগ??? সফল নির্বাচন ছাড়া সংসদ হয় নাকি???
    Total Reply(0) Reply
  • Mir Md Mofazzal Hossain ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫০ এএম says : 0
    গণতান্ত্রিক দেশ নির্মাণের প্রধান শক্তি হোক এ সংসদ, উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা বিনির্মাণের প্রধান বাধা হাতিয়ার হোক এ সংসদ।
    Total Reply(0) Reply
  • Rakib Al-Hasan ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫০ এএম says : 0
    বাংলাদেশের গণতন্ত্রের সংজ্ঞা থেকে 'ভোটাধিকার' শব্দটা বাদ দিয়ে নতুন করে সংজ্ঞায়িত করা উচিত।
    Total Reply(0) Reply
  • mohammad rahman ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫১ এএম says : 0
    " সফল নির্বাচন " কথাটি উললেখ করার কোন দরকার ছিল ? ইলেকশনের মাধ্যমে সংসদ প্রতিষঠিত বলাটাই কি যথেষট ছিল না ?
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫১ এএম says : 0
    ৩০ তারিখের ভোট দেখে সারাদেশের ভোটাররা অনুভুতি শুন্য হয়ে পড়েছে না হয় এই কথা শুনে আপনার সাংসদরাই হাসির বন্যায় ভাসাত!
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫১ এএম says : 0
    This priminister is for AL priminister not for bangladesh.
    Total Reply(0) Reply
  • Enamul ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫২ এএম says : 2
    শেখ হাসিনার হাত ধরে এগিয়ে যাও বাংলাদেশ। জাতি আজ মহা শান্তিতে আছে শেখ হাসিনার নেত্রীত্বে। উন্নতি শান্তিতে বাংলাদেশ বিশ্বে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্হাপন করবে আগামীতে যাহা সারা দুনিয়া দেখবে সত্যকারের গনতন্ত্র বাংলাদেশ আর হিংসার সাগরে ভাসতে ভাসতে তলিয়ে যাবে রাতের প্রলাপ করতে করতে ষরযন্ত্রের গনতন্ত্র কামিরা
    Total Reply(0) Reply
  • আন্দালিব ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫২ এএম says : 2
    শেখ হাসিনার সফলতা মানেই বাংলাদেশের সফলতা--এক উজ্জল আলোকিত সফল বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। আর বিএনপি জামাতি অপশক্তি মানেই নিকষ কালো অন্ধকার যুগ।
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫২ এএম says : 0
    You have to play the same old record for unlimited period to establish the abnormal landslide victory of awami league was normal.
    Total Reply(0) Reply
  • 000 ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫৩ এএম says : 0
    আমার দূর্ভাগ্য, আমার দেশের প্রধানমন্ত্রী জাতিকে হতাশ করেছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Shazzadul Islam Sahil ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৫৩ এএম says : 2
    দেশবিরোধী সকল অপশক্তিকে পদদলিত করে মুক্তিযুদ্ধ তথা স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তির এই সফল জয় অব্যাহত থাকুক, দেশ অগ্রগতিতে এগিয়ে যাক! জয় বাংলা..
    Total Reply(0) Reply
  • Shamim Ahmed Sunny ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৭ এএম says : 0
    একদম সত‌্য,, ম‌্যাডাম জন্মগত ভাবেই সত‌্য বাদি,,,, শুধু,,,,,,,,,,,,,,,,,, থাক পাবলিকের সমনে বলা যাবে না
    Total Reply(0) Reply
  • Khan Salauddin ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৭ এএম says : 0
    নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছেঃ ইসি প্রবাসীদেত বিয়ে করবেন নাঃ ওসি বেকারদের বিয়ে করবেন নাঃ ডিসি দশ টাকায় চা, সিঙারা, ছমুচা, চপ পাওয়া যায়ঃ ভিসি
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১:২১ এএম says : 0
    আল্লাহ তা'আলার গজব পড়িবে এই মিত্যাবাদী ও মিত্যাবাদী সজ্ঞিদের উপরে। জাতি ওদেরকে প্রাণভরে ঘৃণা করিবে এবং এই জাতির কলংক অতি সত্বর ধংস হইবে। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১:২৫ এএম says : 0
    তুমাকে দেখিলে ঘিন ঘিন করে, কারণ তুমি যে মহা মিত্যাবাদী। তুমি জাতীয় বেঈমান, তুমি মহা ঘৃণার, তুমি মহা ঘৃণিত । তুমি মিত্যাবাদী। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply
  • রুবেল ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১:০৮ পিএম says : 0
    হু ভোট ডাকাতি আর লুটপাটেইর সফলতা হইছে ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯, ১১:৪৯ পিএম says : 0
    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখানে যেভাবে কথা বলেছেন তিনি যদি সেভাবে চলেন এবং দেশ পরিচালনা করেন তাহলে প্রকৃতই বাংলাদেশ সোনার বাংলায় রূপায়িত হবে এটাই সত্য। প্রধানমন্ত্রী এখানে প্রয়াত নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সম্পর্কে যেভাবে কথা বলেছেন তারপর এর প্রতিদান দেয়ার ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর হাতে থাকার পরও তিনি সেটা করেন নি এখানেই আমি মর্মাহত হয়েছি। একজনের শুনাম করলাম কিন্তু বাস্তবে তাঁকে কোন প্রতিদান যেটা করলে তার আত্মার শান্তি হবে সেটা না করাটা কিন্তু আল্লাহ্‌ শুনবেন না। আমি আমার আগের লিখায় বলে আসছিলাম মানুষ পৃথিবী ছেড়ে চলে যায় কিন্তু রেখে যায় তার রক্ত এবং সেটাকে আল্লাহ্‌ স্বয়ং মেনে নেন কিন্তু আমাদের নেত্রী হাসিনা সেটাকে পাশকাটিয়ে গেছেন এখানেই ওনার ভুল হয়েছে। আমি কিছুটা ইসলাম আবার কিছুটা খৃষ্টান এটা হয় না। আমার এই কথা গুলো লিখার কারন আমি নেত্রী হাসিনাকে তার ভাল কাজগুলোর প্রচুর শুনাম এমনকি তাঁকে বিভিন্ন ভাবে অন্য মন্তব্যকারীরা যখন টুষ্টিং এর মাধ্যমে কুবকাত করতে চায় তখন আমি একই কায়দায় নেত্রীর পক্ষে ওদেরকে খন্ডন করে থাকি। কাজেই আমি যদি দেখতে পাই নেত্রী সামান্য হলেও একটু ভুল করেছেন তখন আমাকে অবশ্যই বলতে হবে এটাই ইসলাম। যেহেতু আমি সবসময় এই পত্রিকায় নেত্রীর কথা লিখে থাকি সেহেতু এই পত্রিকায়ই আমাকে লিখতে হবে। এটা ছাপানোর দায় দায়িত্ব নিবেন পত্রিকার সম্পাদক। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রধানমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন