Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬, ২২ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

পাত্তাই পেলো না জুভেন্টাস-রোমা

স্পের্টস ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:১০ এএম

ইতালিয়ান ফুটবলের দুই পরাশক্তি দলের এমন করুণ দশা সত্যিই অবাক করার মত। আটলান্টার কাছে ৩-০ গোলে পরাজিত হয়ে কোপা ইতালিয়ার কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে টানা চারবারের চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাস। অন্যদিকে ফিওরেন্তিনার কাছে ৭-১ গোলে বিধস্ত হয়ে শেষ আট থেকে বিদায় নিয়েছে আরেক জায়ান্ট রোমা।

এবারের মৌসুমে জুভেন্টাস টানা পঞ্চম লিগ ও কাপ ডাবল শিরোপা জয়ের মিশনে মাঠে নেমেছিল। কিন্তু টিমোথি কাশ্চাগনের ৩৭ মিনিটের গোলে এগিয়ে যাওয়া ও ডুভান জাপাটার পরপর দুই গোলে জুভেন্টাস দাঁড়াতেই পারেনি। সেমিফাইনালে আটলান্টার প্রতিপক্ষ ফিওরেন্তিনা।
এবারের মৌসুমে ইতালিয়ান সুপার কাপ জয়ের মাধ্যমে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর জুভেন্টাস মৌসুমের প্রথম শিরোপা ঘরে তুলেছে। সিরি-আ লিগে এখনো অপরাজিত। বড় কোন অঘটন না ঘটলে টানা অষ্টম শিরোপা উঠতে যাচ্ছে তাদের হাতেই। এরপরও ঘরোয়া প্রতিযোগিতায় মৌসুমের প্রথম পরাজয়ে অনেকটাই মুষড়ে পড়েছে তুরিনের জায়ান্টরা। লিগে সর্বশেষ ম্যাচে ল্যাজিওর বিপক্ষে পিছিয়ে থেকেও শেষ সময়েল নাটকীয়তায় কোন রকমে জয় পায় মাসিমিলিয়ানো আলেগ্রির শিষ্যরা।

ম্যাচ শেষে আলেগ্রি বলেছেন, সবসময়ই শীর্ষে থাকা সম্ভব নয়। এখন আমাদের সিরি-আ লিগে পারমার বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচটি নিয়ে চিন্তা করতে হবে। ভবিষ্যতের কথা বলতে পারিনা। রোমে প্রথমার্ধটা ভয়াবহ কেটেছে। কিন্তু আমরা লড়াই করে ফিরে এসেছি। কিন্তু আজকের ম্যাচে পুরোটাই ভুল ছিল। প্রতিটি ম্যাচ জয়ের চিন্তা করাটা অমূলক। তারপরেও বিদায়টা মেনে নেয়া যায়না, আমরা সত্যিকার অর্থেই এই শিরোপাটা চেয়েছিলাম।’
দিনের শুরুতে টুসানি ফেডেরিকো চিয়েসার হ্যাটট্রিকে রোমাকে বড় পরাজয়ের লজ্জা দেয় ফিওরেন্তিনা। প্রথমার্ধে দুই গোল করার পর দ্বিতীয়ার্ধে এক গোল করে চিয়েসা হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন। গিওভান্নি সিমিয়োনে শেষ ১০ মিনিটে করেন দুই গোল। রোমার বিপক্ষে বাকি দুটি গোল করেছেন কলম্বিয়ান লুইস মুরিয়েল ও মার্কো বেনাসি। সিরি-আ লিগে তিন গোলে পিছিয়ে থেকেও শেষ ম্যাচে আটলান্টার সাথে ৩-৩ গোলে ড্র করে হতাশ করেছিল রোমা। ম্যাচ শেষে রোমা কোচ ইউসেবিও ডি ফ্রান্সেসকো বলেন, ‘আমি সত্যিই হতাশ। কিন্তু আমি দায়িত্ব ছাড়ছি না। এখানে কোন ব্যাখ্যা দেবার কিছু নেই। কি হয়েছে সেটা বলারও কিছু নেই। তবে পুরো বিষয়টা বেশ লজ্জার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন