Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

চৌদ্দগ্রামে ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেফতার

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৬:১৪ পিএম

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের মুন্সিরহাট ইউনিয়নের ছাতিয়ানী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ মামলার দ্বিতীয় আসামী মাসুদ পন্ডিতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিনি ছাতিয়ানী গ্রামের ছিদ্দিকুর রহমানের পন্ডিতের ছেলে। গতকাল শুক্রবার বিকেলে তথ্যটি নিশ্চিত করেছে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও থানার এসআই আরিফ হোসেন।
মামলা ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, গত ২০ জানুয়ারি ছাতিয়ানী গ্রামের দেলোয়ার হোসেন তার দুই মেয়েকে নিজের চায়ের দোকানে রেখে স্ত্রীসহ স্মার্ট কার্ড নিতে ইউনিয়ন পরিষদে যায়। তারা স্মার্ট কার্ড নিয়ে দোকানে ফিরলে দুই মেয়ে বাড়িতে চলে যায়। রাত আটটার সময় বাকি হিসেব লেখার জন্য দুই মেয়ে আবারও দোকানে আসার পথে পূর্বে থেকে ওঁৎপেতে থাকা পাশের বাড়ির এয়াছিন পন্ডিত অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী বড় মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় ছোট মেয়ে চিৎকার দিলে লোকজন এসে ধর্ষিত মেয়েকে ঘটনাস্থলে পায়নি। রক্তাক্ত অবস্থায় ধর্ষিতাকে এয়াছিন পন্ডিতের সহযোগি আলমগীর তার বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে। ঘটনাটি জেনে এয়াছিন পন্ডিতের ভাই মাসুদ পন্ডিত তার হাতে থাকা লাইট দিয়ে ধর্ষিতাকে মারধর করে। মাসুদ পন্ডিত হুমকি দেয়-বিষয়টি সমাজে কিংবা থানায় জানাজানি হলে ধর্ষিতার পরিবারের সকল হত্যা করা হবে। এ ঘটনায় ২৪ জানুয়ারি এয়াছিন পন্ডিত, মাসুদ পন্ডিত ও আলমগীরকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন ধর্ষিতা মা। দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর কঠোর নজরদারিতে রেখে গতকাল শুক্রবার দুপুরে মাসুদ পন্ডিতকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধর্ষণ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ