Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

ইরানের ওপর নজরদারির জন্য ইরাকে মার্কিন সেনা চান ট্রাম্প

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১০:০৭ এএম

ইরানের ওপর ভালোভাবে নজরদারিরর জন্য ইরাকে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রবিবার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সিবিএস নিউজ’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেন তিনি।


ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের চমৎকার সামরিক ঘাঁটি রয়েছে। এ ঘাঁটির পেছনে আমাদের প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হয়েছে। এটি রেখে দেওয়া যেতে পারে। কেননা আমি ইরানের ওপর নজর রাখতে চাই। দেশটি আসলেই একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে সিরিয়া থেকে ফিরিয়ে নেওয়া কিছু সেনাকেও ইরাকের ঘাঁটিতে পাঠানো হবে। বাকিদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়া হবে।

সাক্ষাৎকারে মধ্যপ্রাচ্যে সহিংসতায় উসকানি দেওয়ার জন্য ইরানকে দায়ী করেন ট্রাম্প। দেশটিকে ‘দুনিয়ার এক নম্বর সন্ত্রাসী রাষ্ট্র’ হিসেবেও আখ্যায়িত করেন তিনি।

সাক্ষাৎকারে ভেনেজুয়েলা ইস্যুতেও কথা বলেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ভেনেজুয়েলায় সামরিক হস্তক্ষেপের বিষয়টি তার বিবেচনায় রয়েছে। দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর বৈঠকে বসার আহ্বানও তিনি প্রত্যাখ্যান করেছেন।

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়া। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, সংকট উত্তরণে সহযোগিতা দেওয়া যেতে পারে। কিন্তু আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দেশটিতে কোনও হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়।

ট্রাম্পের বক্তব্য প্রচারিত হওয়ার পর রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ মন্তব্য করেছেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের লক্ষ্য হওয়া উচিত ভেনেজুয়েলাকে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিকভাবে মুক্ত করার ব্যবস্থা করা; সেখানে হস্তক্ষেপ করা নয়।’ এদিকে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন, ‘যারা গুইদোকে সমর্থন করছেন, তারা ভেনেজুয়েলার ক্ষতি বাড়িয়ে তুলছেন।’ সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর, আল জাজিরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ট্রাম্প


আরও
আরও পড়ুন