Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

মোদীর কাছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সহায়তা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রোহিঙ্গাদের দ্রæত মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনে ভারত সরকারের সহায়তা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। গতকাল নয়া দিল্লিতে মোদীর সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই সাক্ষাৎ হয় বলে বাংলাদেশ হাই কমিশন জানিয়েছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর প্রথম বিদেশ সফরে বুধবার রাতে নয়া দিল্লি পৌঁছান মোমেন। তিন দিনের সফরের প্রথম দিনেই ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন তিনি। শুক্রবার দুই দেশের যৌথ পরামর্শক কমিশনের সভায় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে মোমেনের। ওই বৈঠকের পর দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা নিয়ে বেশ কয়েকটি সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে।
হাই কমিশন জানিয়েছে, নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাতে রোহিঙ্গাদের জন্য মানবিক ত্রাণ সহায়তা পাঠানোয় ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। রোহিঙ্গারা যাতে দ্রæত সময়ে তাদের স্বভূমিতে ফিরে যেতে পারে সেজন্য ভারত সরকারের সহায়তা চান তিনি। মোদী এ বিষয়ে বাংলাদেশকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন বলে হাই কমিশনের বিবৃতিতে বলা হয়েছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে নরেন্দ্র মোদি বলেন, বিগত কয়েক বছর থেকে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হওয়ার ড. মোমেনকে অভিনন্দন জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং প্রথম বিদেশ সফরের জন্য ভারতকে বেছে নেয়ার প্রশংসা করেন।
মোদি বলেন, গত কয়েক বছরে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আরও ঊর্ধ্বগামী হয়েছে। শেখ হাসিনার ‘দূরদৃষ্টিসম্পন্ন’ নেতৃত্বে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অংশীদারিত্ব আরও জোরদার হবে। এছাড়া ভারতের প্রতিবেশী, আঞ্চলিক উন্নয়ন, নিরাপত্তা ও সহযোগিতার জন্য ঘনিষ্ঠ অংশীদার বাংলাদেশের সঙ্গে সংযুক্ত হওয়ার অগ্রাধিকারকে পুনর্ব্যক্ত করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। এতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ ও ভারতের অংশীদারিত্ব বাড়ছে বলে উল্লেখ করেছেন মোদী। বাংলাদেশের সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে ভারতের প্রতিশ্রæতি পুনর্ব্যক্ত করেছেন তিনি। বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্ককে প্রতিবেশী দেশগুলোর জন্য একটি ‘মডেল’ হিসেবে দেখেন নরেন্দ্র মোদী। ‘বন্ধুত্বের’ এই সম্পর্ককে বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা দরকার বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
নরেন্দ্র মোদীকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা বার্তা পৌঁছে দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এছাড়া ৩০ ডিসেম্বরের ভোটের পর প্রথম বিদেশি নেতা হিসেবে অভিনন্দন জানানোয় মোদীর প্রতি শেখ হাসিনার প্রশংসা বাণীও পৌঁছে দেন তিনি।
সফরে ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনোমোহন সিং এবং রাজ্যসভায় বিরোধী দলের উপপ্রধান আনন্দ শর্মার সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। মনোমোহনকে শেখ হাসিনা শুভেচ্ছা বার্তা পৌঁছে দেন মোমেন। মনমোহনও টানা তৃতীয় দফায় প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ সফরে আশা করা হচ্ছে, বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এবং ভারতের সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই), রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) এবং ভারতের প্রসার ভারতী এবং দুই দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর মধ্যে আরও একটি এমওইউ সই হতে পারে। এছাড়া তিস্তার পানি বণ্টনসহ দুই দেশের অমীমাংসিত বিভিন্ন বিষয়ের সুরাহা হতে পারে। সফর শেষে শনিবার দেশে ফিরবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন