Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৯ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

প্রশ্ন : মহিলাদের কণ্ঠের পর্দার হুকুম কি? মহিলা শিল্পীদের কিরাত, তেলাওয়াত, ইসলামী সংগীতের অডিও পাওয়া যায়, মহিলাদের ওয়াজও পাওয়া যায়, ওয়াজ করা শরয়ী দৃষ্টিতে বৈধ কিনা জানতে চাই। যদি অবৈধ হয় তাহলে এগুলো শ্রবণকারী ইমামের পিছনে ইকতেদা করা যাবে কিনা?

মু. আক্তার
ইমেইল থেকে

প্রকাশের সময় : ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:২৭ এএম

উত্তর : মহিলাদের কণ্ঠেরও পর্দা আছে। বিশেষ প্রয়োজনে পর পুরুষের সাথে কথা বলার পদ্ধতি এ কারণেই আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে শিক্ষা দিয়েছেন। যেখানে বলা হয়েছে, প্রয়োজনে যদি কথা বল, তাহলে আকর্ষণহীন ভাষায় কাটাকাটা কথা বলবে। নরম ও ললিত ভাষায় কথা বলো না। এতে যেসব পুরুষের মনে রোগ আছে (পরনারীর প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ার মত ব্যক্তিদের রোগী বলা হয়েছে) তারা অকারণেই ফেতনায় পতিত হতে পারে। যার দায় আকর্ষণকারীনী নারীকেও নিতে হবে। সুতরাং নারীর কণ্ঠও একরকম পর্দার আওতায় চলে এসেছে। নারীরা নারী মহলে আলোচনা বা ওয়াজ করতে পারে। কিন্তু পুরুষ মহলে পর্দার আড়াল থেকেও তারা কেরাত, হামদ-না’ত বা ওয়াজ নিঃশর্তভাবে করতে পারে না। অল্প বয়সী বালিকারা যারা এখনও প্রকৃতই শিশু রয়েছে, তারা এসব পরিবেশন করতে পারে। যাদের ওপর এখনও পর্দা ফরজ হয় নি। নারীদের কেরাত, না’ত বা ওয়াজের রেকর্ড পরিচ্ছন্ন অন্তরের বয়সী ব্যক্তিত্ববান ও দায়িত্বশীল পুরুষের জন্যও ফেতনা থেকে মুক্ত নয়। সাধারণভাবে তরুণ, যুবকসহ সব পুরুষের জন্য কীভাবে নিরাপদ হতে পারে। এর মধ্য থেকে দিলের খাহেশাত পূরণের নিয়ত না থাকলেও অনিচ্ছাকৃত ভালো লাগাটুকু যে একসময় গুনাহের পর্যায়ে চলে যাবে না, তার নিশ্চয়তা কি? সুতরাং এটি নাজায়েজ বিষয়ের মতোই এড়িয়ে চলতে হবে। ইমাম সাহেবও এর বাইরে নন। তবে, এজন্য যেমন কোনো মুসল্লির নামাজ অশুদ্ধ হবে না, ইমাম সাহেবেরও ইমামতি অশুদ্ধ হবে না। গুনাহকে গুনাহ ভেবে করলে তা ছাড়ার বা তওবা করার সুযোগ থাকে। আর গুনাহকে গুনাহ মনে না করলে ঈমানের মধ্যেও ঘাটতি দেখা দেয়। মাসআলা সবার জন্যই, তবে অধিক সতর্কতা অবলম্বনকারী অধিক নিরাপদ।

সূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতাওয়া বিশ্বকোষ।
উত্তর দিয়েছেন : আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভী

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
inqilabqna@gmail.com



 

Show all comments
  • mizanur rahman ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৩:০০ এএম says : 1
    Assala mualaikum Dear Brothers I live in NEW YORK. USA .Where i live there is a MASJID i go every day and some times i lead salat accept JUMA because there are no regular Imam .Who ever go to regular Salat i am one who can recite holy Quran properly so people let me allow to lead Salat but i am very uncomfortable to do this because i have house loan from bank which has interest applied.As per i know interest is haram but i have done it because no other option. Some brothers suggest me to go to Sharia housing loan . My Question is if i keep leading salat is going be sin/invalid /unaccepted to Allah those salat? ?Who ever after me
    Total Reply(0) Reply
  • Safiullah ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১১:৩৫ এএম says : 1
    Ma-Sha-Allah
    Total Reply(0) Reply
  • শফিকুল ইসলাম ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪৮ এএম says : 0
    প্রশ্ন) নাজার নামাজের সময় ইমাম এর দাড়ানোর উপর কেন্দ্র করে আমাদের গ্রামে বিবাধ সৃষ্টি হয়েছে। এখন সুন্নাত পদ্ধতি জানতে চাই?
    Total Reply(0) Reply
  • শফিকুল ইসলাম ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৫৪ এএম says : 0
    প্রশ্ন) নাজার নামাজের সময় ইমাম এর দাড়ানোর উপর কেন্দ্র করে আমাদের গ্রামে বিবাধ সৃষ্টি হয়েছে। এখন সুন্নাত পদ্ধতি জানতে চাই?
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রশ্ন :


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ