Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৫ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

ভঙ্গুর পিএসজির সামনে উজ্জ্বীবিত ম্যানইউ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

প্রায় দুই মাস পর আবার মাঠে ফিরতে যাচ্ছে ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। শেষ ষোলর এই পর্বের প্রথম লেগে আজ মুখোমুখি হচ্ছে প্রিমিয়ার লিগ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান চ্যাম্পিয়ন পিএসজি। একই সময়ে দিনের অন্য ম্যাচে পর্তুগিজ ক্লাব পোর্তোকে আতিথ্য দেবে গতবারের সেমিফাইনালিস্ট রোমা।

ফুটবল প্রেমীদের ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যান ইউ-পিএসজি ম্যাচের দিকেই নজর থাকবে বেশি। এই প্রথম প্রতিযোগিতায় মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল। একদিকে নিজেরে পুরোনো ঐতিহ্যের খোঁজে ম্যান ইউ, অন্যদিকে ইউরোপিয়ান ফুটবলে অধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে অর্থের বস্তা নিয়ে মাঠে নামা পিএসজি। ঘরোয়া লিগে নেইমার-এমবাপে-কাভানিদের পিএসজি দুর্দান্ত। এক্ষেত্রে ঠিক উল্টো চিত্র ম্যান ইউতে। অবশ্য ওলে গানার সুলশারের অধীনে পুরোনো ঐতিহ্যে ফিরিয়ে আনার আভাস দিচ্ছে রেড ডেভিল খ্যাত দলটি। সুলশারের দল এখন আত্মবিশ্বাসে টাইটম্বুর। তারা কেমন আত্মবিশ্বাসী তা একটু পিছনে ফিরলেই বোঝা যায়।

দুই মাস আগেও উত্তল তরঙ্গে দিকহারা এক নৌকার মত ছিল ইউনাইটেড। হোসে মরিনহোর জায়গায় সুলশার এসে শক্ত হাতে ধরেন সেই নৌকার মাস্তুল। ইংল্যান্ডের সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী দলও যেন খুঁজে পায় পথের দিশা। সেটা কেমন তা একটি পরিসংখ্যানই যথেষ্ঠ। সাবেক ম্যান ইউ খেলোয়াড় ওল্ড ট্রাফোর্ডে কোচের ভূমিকায় এসে ১১ ম্যাচের একটিতেও এখনো হারেননি, দশ ম্যাচেই জয়। সবচেয়ে বড় কথা খেলোয়াড়দের মধ্যে, দলের মধ্যে একটা আত্মবিশ্বাসী ও চনমনে ভাব তিনি প্রবেশ করাতে পেরেছেন। দুই মাস আগেও যে বিশ্বকাপজয়ী তারকা পল পগবা দলের ছিলেন উপেক্ষিত সেই পগবাই শেষ দশ ম্যাচে করেছেন ৮ গোল। গোলে সহায়তা করেছেন ছয়বার। মার্কাস রাশফোর্ড, জেসে লিঙ্গার্ড, অ্যান্থনি মার্শিয়ালরা দেখাচ্ছে আত্মবিশ্বাসী। ঘরোয়া লিগে সুলশারের দলও উঠে এসেছে পয়েন্ট তালিকার চতুর্থ স্থানে।

এই যথন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড শিবিরের দশা তখন পিএসজি কোচ একাদশে কাকে কাকে নামাবেন তাই-ই এখনো ঠিক করতে পারেননি। একের পর এক চোটের আঘাতে কাবু পিএসজি শিবির। নেইমার নেই। আক্রমণভাগের আরেক ফলা এডিনসন কাভানিকে নিয়েও রয়েছে চরম শঙ্কা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তার না খেলার সম্ভবনাই বেশি। শেষ ম্যাচে হ্যামিস্ট্রিং চোট নিয়ে খুড়িয়ে মাঠ ছাড়েন উরুগুয়ান তারকা। আক্রমণভাগের পুরো দায়িত্ব তাই আজ পড়তে পারে কিলিয়ান এমবাপের ঘাড়ে। এজন্য তিনি সম্ভব্য পাশে পাবেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া ও জার্মান মিডফিল্ডার হুলিয়ান ড্রক্সলারকে। ওদিকে কাভানির সঙ্গে একই ম্যাচে চোট পাওয়া রাইট ব্যাক টমাস মুনিয়েরও আজ খেলতে পারবেন না। তার জায়গায় দেখা যেতে পারে পরীক্ষীত ও অভিজ্ঞ দানি আলভেজকে।

সামনে ম্যান ইউ’র কঠিন সব ম্যাচ। তবে পিএসজি ম্যাচকে একটু ভিন্নভাবে নিচ্ছেন সুলশার। হাজার হলেও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আজই কোচ হিসেবে অভিষেক হতে যাচ্ছে তার, ‘আগামী কয়েক ম্যাচে আমরা শীর্ষ দলগুলোর মুখোমুখি হতে যাচ্ছি। কিন্তু আমরা বিশেষ নজর দিচ্ছি এই ম্যাচে।’ খেলোয়াড় হিসেবে ১৯৯৫ সালে কাপ উইনার কাপে পিএসজির মুখোমুখি হওয়া সুলশার বলেন, ‘তারা আগের চেয়ে অনেক উন্নতি করেছে। তাদের দলে বিশ্বের সেরা কিছু খেলোয়াড় আছে। লিজেন্ড গোলরক্ষক বুফন, থিয়াগো সিলভা যে গত কয়েক বছর ধরে বিশ্বের সেরা সেন্টার ব্যাকের ভূমিকায়। এছাড়া নেইমার এমবাপেদের মত খেলোয়াড়দের উপস্থিতি আপনাকে বুঝিয়ে দেবে তারা কতটা পরিবর্তিত হয়েছে।’ নেইমার-কাভানি-মুনিয়েরদের অনুপস্তিতি তাদের ম্যাচকে আরো কঠিন করে তুলতে পারে বলেও মন্তব্য করেন সুলশার।
ওদিকে পিএসজি কোচ টমাস টুখেলের কণ্ঠে কেবলই হতাশার সুর, ‘জানি না এডি (কাভানি) কবে ফিরবে।’ ‘নেইমার-কাভানিদের মত তারকাদের ছাড়া এমন ম্যাচ সবসমই কঠিন।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ