Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৪ ফাল্গুন ১৪২৫, ১০ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

প্রবাসী স্ত্রীর টাকায় তৃতীয় বিয়ে

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে: | প্রকাশের সময় : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:২৩ এএম

সাভারের সীমান্তবর্তী কুল্লা ইউনিয়নের হিরানদী কুল্লা এলাকার মফিজুল ইসলাম খান বাদল প্রবাসী স্ত্রীর টাকা হাতিয়ে নিয়ে আরো দুটি বিয়ে করেছেন। এ ঘটনায় প্রথম স্ত্রী দুবাই প্রবাসী শিল্পী আক্তার ঢাকার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। প্রবাসী শিল্পী আক্তার অভিযোগ করে বলেন, ১৯৯৮ সালে পারিবারিকভাবে মফিজুল ইসলাম খান বাদলের সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের দুই বছর পর তিনি গার্মেন্টসে চাকুরী নিয়ে দুবাই চলে যান। সেখান থেকে নিয়মিত তিনি স্বামীকে টাকা পাঠাতে থাকেন। এমনকি তার স্বামী বাদলকেও তিনি ৭ লাখ টাকা খরচ করে বিদেশে নিয়ে যান। কয়েক মাস থেকে বাদল দেশে চলে আসে।
এরই মধ্যে বাদল স্ত্রীকে না জানিয়ে আরেকটি বিয়ে করে। দ্বিতীয় বিয়ের খবর শুনে শিল্পী দেশে এসে টাকা-পয়সা দিয়ে দ্বিতীয় স্ত্রীকে তাড়িয়ে দেন।
পরে গোপনে আরেকটি বিয়ে করে বাদল। তৃতীয় বিয়ের পর বাদল প্রথম স্ত্রী শিল্পীকে তালাকনামা পাঠিয়ে দেয়।
শিল্পী বলেন, আমার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। আমি বিদেশ থেকে যা রোজগার করেছি সবই স্বামীর নামে পাঠিয়েছি। সেই টাকা দিয়ে সে তার বাড়িতে ঘর করেছে, জায়গা কিনেছে। আবার গোপনে বিয়ে করে আমাকে ডিভোর্সের কাগজ পাঠিয়েছে। আমি এর বিচার দাবি করি -বলেন তিনি।
তবে এ ঘটনা নিয়ে এলাকায় একাধিকবার শালিস বৈঠক হলেও কোন সুরাহা না হওয়ায় শিল্পী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। তবে মফিজুল ইসলাম খান বাদল বলেন, আমার স্ত্রী বিদেশ থাকে। তাকে বিদেশে যেতে মানা করা হলেও তিনি শুনেনি। তাই আমি আরেকটা বিয়ে করেছি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ