Inqilab Logo

রোববার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৯ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

চামড়া শিল্পনগরির সমস্যা দ্রুত সমাধানের আশ্বাস

রপ্তানি পণ্য বহুমুখীকরণে গুরুত্বারোপ সালমান এফ রহমানের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

ট্যানারি উদ্যোক্তাদের ব্যবসার স্বার্থে সাভার চামড়া শিল্পনগরির সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে দ্রুত এর সমাধান করা হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার। ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করবে, সরকার ব্যবসায়ীদের সহায়তা দেবে। তিনি চলতি বছর জুনের মধ্যে চুক্তি অনুযায়ী চামড়া শিল্পনগরির বাকি কাজ সমাপ্ত করতে প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর শিল্পবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ অর্জনে রপ্তানি পণ্য বহুমুখীকরণের উদ্যোগ জোরদার করতে হবে।
গতকাল সাভারে অবস্থিত ঢাকা চামড়া শিল্পনগরি প্রকল্প সরেজমিনে পরিদর্শন শেষে প্রকল্প সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সাথে আয়োজিত পর্যালোচনা সভায় তাঁরা এ কথা বলেন। শিল্পনগরির কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি, শিল্প মন্ত্রণালয়ের রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব বেগম পরাগ, চামড়া শিল্প উদ্যোক্তা মনজুরে এলাহী, মহিলা শিল্প উদ্যোক্তা নিহাত কবিরসহ বিসিক ও চামড়া শিল্প সংশ্লিষ্ট সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় চামড়া শিল্পনগরির উন্নয়ন কাজের বর্তমান অবস্থা বিস্তারিত মূল্যায়ন করা হয়। এ সময় পরিবেশ ও কমপ্লায়েন্স ইস্যুতে আন্তর্র্জাতিকমানের সাথে শিল্পনগরির মান ও সক্ষমতা নিয়ে আলোচনা করা হয়। সভায় জানানো হয়, পরিবেশ অধিদপ্তর ও চামড়া শিল্পের আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী এ প্রকল্পের ডকুমেন্টস্ তৈরি করা হয়েছে। এতে কেন্দ্রিয় বর্জ্য শোধনাগার (সিইটিপি) নির্মাণের ফলে আন্তর্জাতিকমানের বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এরপরও পরিবর্তীত প্রেক্ষাপটে বিশ্বমানের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য উৎপাদনের লক্ষ্যে একটি আন্তর্জাতিক নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে চামড়া শিল্পনগরির সার্বিক মান ও অবস্থা মূল্যায়রের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।
সভায় প্রধানমন্ত্রীর শিল্পবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ অর্জনে রপ্তানি পণ্য বহুমুখীকরণের উদ্যোগ জোরদার করতে হবে। একক পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের ধারাবাহিকতা রক্ষা করা কঠিন। রপ্তানি সম্ভাবনা বিবেচনায় তিনি চামড়া শিল্পখাতকে দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ খাত হিসেবে উল্লেখ করেন এবং এ খাতের গুণগত মানোন্নয়ন ও রপ্তানি পণ্য বহুমুখীকরণের উদ্যোগ বাস্তবায়নের তাগিদ দেন। আন্তর্জাতিক নিরীক্ষা সম্পন্ন করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়া হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের জন্য পারস্পরিক দোষারোপের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। সরকারের ইশতেহারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে উন্নয়নের লক্ষ্য ঠিক করে দিয়েছেন। কোনো ধরণের কালক্ষেপণ না করে এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। চামড়া শিল্পনগরির অবশিষ্ট কাজ দ্রুত সমাপ্ত করতে শিল্প মন্ত্রণালয় দ্রুত ব্যবস্থা নেবে বলে তিনি অংশীজনদের আশ্বস্ত করেন।
এর আগে শিল্পমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর শিল্পবিষয়ক উপদেষ্টা এবং শিল্প প্রতিমন্ত্রী চামড়া শিল্পনগরিতে স্থাপিত কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার পরিদর্শন করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চামড়া শিল্প


আরও
আরও পড়ুন