Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯, ০৭ চৈত্র ১৪২৫, ১৩ রজব ১৪৪০ হিজরী।

সেবার মাধ্যমেই জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলা সম্ভব -স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৭:৩৫ পিএম

স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, মানবতার সেবার মাধ্যমে একটি জাতি ঐক্যবদ্ধ হয় এবং সেই জাতি এগিয়ে যায়। রক্তদান এমনই একটি মহৎ সেবা। যার মাধ্যমে স্বেচ্ছা রক্তদাতারা মানবতার সেবা করার মতো মহৎ কাজের সুযোগ পাচ্ছেন। চিকিৎসকদের কর্মস্থলে অনুপস্থিত প্রসঙ্গে বলেন, ডাক্তারদের কর্মস্থলে অনুপস্তিতি নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। যে সব ডাক্তার কর্মস্থলে উপস্থিত থাকবেনা তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শুক্রবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন আয়োজিত রক্তদাতা সম্মাননা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, মানুষের সেবাই আল্লাহর প্রতি শ্রেষ্ঠ ইবাদত। চিকিৎসক, ইঞ্জিনিয়ার, রাজনীতিবিদরা যার যার অবস্থান থেকে সেবা করে যাচ্ছেন। কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন স্বেচ্ছা রক্তদান কর্মসূচির মাধ্যমে দেশের রক্তের চাহিদা মেটাতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এমন সেবার মাধ্যমেই দেশ ও জাতির ঐক্য গড়ে তোলা সম্ভব।

সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের অগ্নিকা-ের ঘটনা উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ডাক্তার, নার্স ও সর্বস্তরের মানুষ ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে এসেছিল বলেই এতো বড় দুর্ঘটনায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

বর্তমান সময়ের মানসিক অস্থিরতার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, কোয়ান্টাম মেথড মেডিটেশন কোর্স মানসিক চাপ নিরাময়েও ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে। এর ফলে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে ১০, ২৫ ও ৫০ বার স্বেচ্ছায় রক্তদান করেছেন এমন ৩০০ জন রক্তদাতাকে সনদপত্র, আইডি কার্ড, সম্মাননা ক্রেস্ট ও মেডেল প্রদান করা হয়। এর মধ্যে স্বেচ্ছা রক্তদাতা ফাতেমা তুজ জোহরা এবং নিয়মিত রক্তগ্রহীতা থ্যালাসেমিয়া রোগী সানজিদা খাতুন মুন্নি তাদের অনুভূতি বর্ণনা করেন। স্বাগত বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের হেমাটোলজি বিভাগের প্রফেসর ডা. এবিএম ইউনুস জানান, বাংলাদেশে প্রতি বছর ৮ লাখ ব্যাগ রক্তের প্রয়োজন। ১৮ কোটি জনসংখ্যার দেশে যদি ৪ লাখ নিয়মিত রক্তদাতা থাকেন এবং তারা বছরে ২ বার রক্তদান করেন তবে সহজেই ৮ লাখ ব্যাগ রক্ত সংগ্রহ করা সম্ভব। বর্তমানে স্বেচ্ছায় রক্তদানের পরিমাণ মাত্র ৩০-৩৫ শতাংশ। দানকৃত রক্তের ৫৫-৬০ শতাংশ রক্তই আসে রোগীর আত্মীয়-পরিজনদের কাছ থেকে আর বাকিটা আসে পেশাদার রক্ত বিক্রেতাদের কাছ থেকে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি কোয়ান্টাম স্বেচ্ছা রক্তদান কার্যক্রমের প্রধান সমন্বয়ক মাদাম নাহার আল বোখারী রক্তদাতা ও অতিথিদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, রক্তদানের মতো এমন একটি মহৎ কাজের যথাযথ পুরস্কার মানুষের পক্ষে দেয়া সম্ভব নয়, আল্লাহই এর উপযুক্ত পুরস্কার দিতে পারেন।

উল্লেখ্য, দেশে রক্ত ঘাটতির বিপুল চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে গত এক যুগ ধরে এ পর্যন্ত ১০ লাখ ৫৯ হাজার ৩ ইউনিট রক্ত ও রক্ত উপাদান সরবরাহ করে মানুষের জীবন বাঁচাতে ভূমিকা রেখেছে কোয়ান্টাম। রক্তদান স্বাস্থ্যের জন্যে অত্যন্ত উপকারী। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, নিয়মিত স্বেচ্ছা রক্তদাতারা দূরারোগ্য রোগ-ব্যাধি থেকে মুক্ত থাকেন। তাদের হৃদরোগ ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও অনেক কম।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন