Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯, ০৮ চৈত্র ১৪২৫, ১৪ রজব ১৪৪০ হিজরী।

মেসি সান্নিধ্যই কাল হলো মুর্তজার!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসের কথা। হঠাৎ করেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয় একটি শিশুর ছবি। যার পরনে ছিল আর্জেন্টিনার নীল-সাদা জার্সির আদলে প্লাস্টিকের ব্যাগ দিয়ে তৈরি জামা। আর সেই জামার পিছনে লেখা লিওনেল মেসির নাম ও তার জার্সি নম্বর। সে ছবি দেখে বিস্মিত হয়ে যান স্বয়ং মেসিও।

পরে ফুটবল ক্লাব বার্সেলোনা তাকে কাতারে নিয়ে যায়। দেখা হয় তার স্বপ্নের নায়কের সঙ্গে। ছবি তোলেন এমনকি মেসির সাক্ষর করা দুটি জার্সিও মিলে। তখন থেকেই আলোচিত আফগানিস্তানের সাত বছরের শিশু মুর্তজা আহমেদি। অথচ সেই ঘটনাই আজ তার জীবন দুঃসহ করে তুলেছে। মাঝে মাঝেই ভাবেন এমন কিছু যদি না ঘটতো!

নিষ্পাপ শিশুটি এখন তালেবানদের টার্গেট। গজনি প্রদেশের জাঘোরিতে রীতিমতো উম্মাদের মতো খোঁজা হচ্ছে তাকে। আর তাও করা হচ্ছে তুচ্ছ কারণেই। তাদের ধারণা মুর্তজাকে অনেক টাকা দিয়েছেন মেসি। এখন সে টাকা তাদের চাই। এছাড়াও কাতারে দেখা করতে যাওয়াও পছন্দ হয়নি তালেবানদের।

মার্কিন সংবাদসংস্থা সিএনএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মুর্তজার মা শফিকা বলেন, ‘যখন থেকে আমার ছেলে বিখ্যাত হয়েছে তখন থেকেই আমাদের পরিবারে নানা সমস্যা লেগে আছে। শুধু তালেবানরা নয় আরও কিছু গোত্র আছে যাদের ধারণা মেসি তাকে অনেক টাকা দিয়েছে। আমরা তার স্কুল যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি। আমরা সবসময় হুমকির মধ্যে আছি।’

এ কারণে মুর্তজার বাবা পরিবারকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার চিন্তা করেন। এবং পার্শ্ববর্তী শহর বাম্যানে স্থানান্তরিত হন। কিন্তু এরপর থেকে তিনিও ফিরতে পারছেন না বাড়িতে। শিশু মুর্তজা কাঁদো কাঁদো কণ্ঠে বলেছেন, ‘আমি যখন ফিরে আসি ওইবার শেষবার আমি আমার বাবাকে দেখেছি। এরপর সে চলে যায়। আমি তাকে আর দেখেনি। আমি তাকে অনেক মিস করি। যখন সে মাকে কল করে আমি কথা বলি।’
এছাড়াও কান্না জর্জরিত কণ্ঠে আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতির কিছু বর্ণনাও দেন মুর্তজা, ‘তালেবানরা আমার আত্মীয়-স্বজনদের হত্যা করেছে। তারা গাড়ি থামিয়ে যাত্রী হত্যা করে এবং ঘরে খোঁজ করেও মানুষ হত্যা করে। আমাদের এখানে ফুটবল খেলা নিষিদ্ধ করেছে তালেবানরা। এমনকি ঘর থেকেও বের হতে পারি না। মেশিন গান, রকেট, বোমার শব্দ শুনে অভ্যস্ত। মানুষের চিৎকারও শুনি।’
বাম্যান থেকে পড়ে মুর্তজা ও তার মা রাজধানী কাবুলে চলে যান। এবং সেখানে বিভিন্ন স্থানে উদ্বাস্তু হয়ে বিভিন্ন স্থানে লুকিয়ে বেড়াচ্ছেন। তবে মুর্তজার মার ভয় কাটছে না। টাকার জন্য তার ছেলেকে অপহরণ করা হতে পারে বলে ধারণা করছেন তিনি। দুঃখ নিয়েই তাই বললেন, ‘এটাই ভালো হতো যদি সে না আলোচিত হতো।’



 

Show all comments
  • Athar Ali Sarkar ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৩৪ এএম says : 1
    ভুয়া সংবাদ
    Total Reply(0) Reply
  • Chandan Ghosh ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৩৮ এএম says : 1
    জীবনে যদি কিছু পাওয়ার থাকে তাহলে কেউ তা থেকে বাদ দিতে পারেনা।
    Total Reply(0) Reply
  • مصطفي رضا ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৩৮ এএম says : 1
    তালেবানরা হলো হার না মানা জাতি, বৃটিশ, রুশ আমেরিকাকে হারিয়ে তারা আবার নিজেদেরকে বীরের পরিচয় দিয়েছ।এসব আতেল নিউজ দিয়ে কোন লাভ নাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Arif Ullah ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৩৯ এএম says : 1
    তালেবানরা কেমন এটা তুমি ইনকিলাব আমাদের শিখিয়ো না কেমন??? ইন্টারন্যাশনাল মিডিয়া তে আমারা ভালোই চোখ রাখি, আজকে আমেরিকা হেরে গেছে বলে জলতেছে? সাগলে কি বললো এগুলা নিউজ এ
    Total Reply(0) Reply
  • Touhidul Islam ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪০ এএম says : 1
    বেচারা আমেরিকান, যুদ্ধে না পাইরা এখন পাবলিক সেন্টিমেন্ট জোগাড়ে লাগছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Kazi Parvez ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪০ এএম says : 0
    এটা আমেরিকান দের কুট চাল। তালেবানদের টার্গেট-মার্গেট এগুলো ফাউ কথা
    Total Reply(0) Reply
  • Md Sirazul Islam ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪০ এএম says : 0
    ওরে মালালার মত খেলাতে নোবেল দিয়ে আরেকটা কৌশল আটছে পশ্চিমা বিশ্ব আর ও এখন হতে পারে তাদের তুরূপের তাস।
    Total Reply(0) Reply
  • Fina Burgre ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪১ এএম says : 0
    আমেরিকার কুট কৌশল
    Total Reply(0) Reply
  • Somit Sam ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪১ এএম says : 0
    Purono News ata ar koto din sunbo
    Total Reply(0) Reply
  • Ahmed Hrid ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪১ এএম says : 0
    ওরে বাংলাদেশে নিয়ে আসো
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১:৪২ এএম says : 0
    হুবহু ডেইলি স্টারের কপি। তাও আবার অনেক দেরিতে...
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মেসি

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
৩১ জানুয়ারি, ২০১৯
৩১ জানুয়ারি, ২০১৯
২৯ জানুয়ারি, ২০১৯
২৯ জানুয়ারি, ২০১৯
২৮ জানুয়ারি, ২০১৯
২২ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন