Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

গাবতলী বাস টার্মিনালকে আন্তর্জাতিক মানের করার প্রতিশ্রুতি আতিকুলের

ডিএনসিসি উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুর রহিমের ইশতেহার ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম | আপডেট : ১:৩৫ এএম, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

গাবতলী বাস টার্মিনাল স¤প্রসারণসহ একে মাস্টারপ্ল্যানের আয়োতায় এনে একটি আন্তর্জাতিক মানের বাস স্ট্যান্ডে রূপান্তরিত করা হবে বলেন জানিয়েছেন ঢাকা উওর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) উপ- নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। পাশাপাশি মিরপুরের বিভিন্ন কমিউনিটি সেন্টার সংস্কার ও নির্মাণসহ আধুনিক পাঠাগার স্থাপন করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এদিকে গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে ডিএনসিসি উপ-নির্বাচনের একমাত্র স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রহিম তার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। ইশতেহারে তিনি বলেন, আমি যেহেতু সাবেক মেয়র আনিসুল হকের টেবিল ঘড়ি মার্কা নিয়েই জনতার কাছে এসেছি, তাই আমি তার অসমাপ্ত কাজ সফলতার সঙ্গে বাস্তবায়ন করার প্রতিশ্রæতি দিচ্ছি।
গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুর মাজার রোড সিদ্ধার্থ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে এক নির্বাচনী মতবিনিময় সভায় আতিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের সমস্যা অনেক, ফুটপাত দখল, যানজট, পানিবদ্ধতাসহ বহুকিছু। কিন্তু আমরা কেউ থেমে থাকব না, একটি একটি করে সমস্যার সমাধান হচ্ছে, বাকি সব সমস্যা আমরা সবাই মিলে সমাধান করবো, ইনশাআল্লাহ।
ঘরে বসেই সবাই যেন সিটি কর্পোরেশনের সব ধরণে সেবা পেতে পারে তা নিশ্চিত করা হবে বলে জানিয়ে মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেন, নগরীর যে কোন সমসা সমাধানের জন্য নগর এ্যাপ আসছে, যার মাধ্যমে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নগরীর যে কোন সমস্যা সমাধান করা হবে।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, উওর সিটি কর্পোরেশন ওয়ার্ড কাউন্সিল কাজী টিপু সোলতান, মোহাম্মদ আবু তাহের, দেওয়ান আব্দুল মান্নান, ইকবাল হোসেন তিতু, সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর রাজিয়া সুলতানা ইতিসহ ঢাকা মহানগর আওয়ামিলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ও বিশিষ্ট শিল্পপতি ও ব্যাবসায়ীবৃন্দ।
এদিকে গতকাল শুক্রবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএনসিসি’র মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রহিম ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। ইশতেহারে তিনি ১০টি বিষয় তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আমার এলাকায় কোনো বস্তি উচ্ছেদ হবে না। আমি বস্তির স্থানেই বস্তিবাসীদের জন্য পরিকল্পিতভাবে স্থায়ী বহুতল ভবন নির্মাণ করব। ভাষাণটেক পূর্নবাসন প্রকল্পটি তারই দৃষ্টান্ত। আমি ইতোমধ্যে যা করে দেখিয়েছি।
সমাজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করার জন্য আমাদের পারিবারিক যে সমস্যাগুলো সাধারণত হয়ে থাকে, কিংবা আইনি যে ঝামেলার কারণে মানুষের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়, বিরোধ সৃষ্টি হওয়ার আগেই তা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করে দেয়ার উদ্যোগ নেব। কোটা আন্দোলন, ভোটাধিকার আন্দোলন, নিরাপদ খাদ্য আন্দোলন ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের মতো সব আন্দোলনে আমার সমর্থন ছিল ও থাকবে, বলে জানান মোহাম্মদ আব্দুর রহিম।
এ ছাড়া সমাজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, মাদক ও সামাজিক অবক্ষয়, সন্ত্রাস ও নানাবিধ অসমাজিক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা, স্কুলে ভর্তি বাণিজ্য, শিক্ষা বাণিজ্য বন্ধ করা, বিনামূল্যে ওষধ বিতরণ, কর্মসংস্থান তৈরি করা, ন্যায্য মূল্যে খাদ্য বিতরণ প্রকল্প চালু করা ও সবার মানবাধিকার রক্ষায় সোচ্চার থাকার প্রতিশ্রুতি দেন এই মেয়র প্রার্থী।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ডিএনসিসি


আরও
আরও পড়ুন