Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

আশুলিয়ায় পৃথক ঘটনায় দুই শ্রমিক খুন

স্টাফ রিপোর্টার, সাভার থেকে : | প্রকাশের সময় : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:৪৩ এএম

ঢাকার সাভারের আশুলিয়ায় পৃথক ঘটনায় ছিনতাইকারীদের গুলিতে তৈরি পোশাক কারখানার এক শ্রমিক ও ধর্ষনের পর এক নারীকে হত্যা করেছে দুবৃত্তরা। গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহতের ঘটনায় কাউকে আটক করতে না পারলেও অপর নারী হত্যার ঘটনায় একজনকে আটক করেছে পুলিশ।
শুক্রবার দিবাগত গভীর রাত আড়াইটায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রাসেল খানকে (২৭) সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
নিহত রাসেল খান আশুলিয়ার জামগড় এলাকার এনভয় গ্রুপের পোশাক কারখানায় জুরিয়র অপারেটর পদে কর্মরত ছিল এবং জামগড়া দেলোয়ার হোসেনের বাড়ির দ্বিতীয় তলার একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে বসবাস করতো। রাসেল মাদারীপুর জেলার শিবচর থানার কুতুবপুর গ্রামের ফজলু খানের ছেলে।
এনাম মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. অশোক কুমার জানান, গভীর রাতে ৮/১০ জন লোক রাসেল নামে এক ব্যক্তিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করেন। মৃত অবস্থায় পাওয়া ঐ ব্যক্তির শরীরে চারটি গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ছিল।
নিহত রাসেলের বাবা ফজলু খান জানান, রাত ১টার দিকে কে বা কারা তার মুঠোফোনে তার ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানায়। এরপর হাসপাতাল কতৃপক্ষ তার ছেলের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে।
আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ জানান, গত দুই দিন পূর্বে নিহত রাসেলের এক বন্ধুর মুঠোফোন ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে।
রাসেল সেই মুঠোফোন উদ্ধারের জন্য শুক্রবার গভীর রাতে তার সঙ্গীয় পাঁচ বন্ধুকে নিয়ে শিমুলতলার জমিদার বাড়ী সংলগ্ন সড়কে ছিনতাইকারীদের প্রতিহত করতে উৎ পেতে থাকে।
এসময় ধাওয়া দিলে ছিনতাইকারীরা গুলি চালায়। এতে রাসেলের সঙ্গীয়রা পালিয়ে গেলেও রাসেল গুলিবিদ্ধ হয়। পরে স্থানীয়রা তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করেন। এঘটনায় নিহতের সঙ্গীয় পাঁচ বন্ধুকে জিজ্ঞাসবাদের জন্য থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
অপরদিকে গতকাল শনিবার সকালে আশুলিয়া কাঠগড়া মন্ডলপাড়া এলাকার বাঁশঝাড় থেকে রাজিয়া খাতুন (২৬) নামে এক লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আশুলিয়ার কাঠগড়া এলাকার আব্দুর রশিদ মিয়ার বাড়ির একটি কক্ষ নিয়ে ভাড়া নিয়ে বসবাস করতো। সে বগুড়া জেলার ধুনট থানার ছালাপাড়া গ্রামের মৃত আহম্মদ আলীর মেয়ে। রাজিয়া আগে পোশাক কারখানায় কাজ করলেও বর্তমানে বেকার ছিল।
রাজিয়া খাতুন হত্যার বিষয়ে আশুলিয়া থানার এসআই মিরাজ হোসেন জানান, প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে, ধর্ষনের পর ওই রাজিয়াকে হত্যা করা হয়েছে। এঘটনায় নিহতের স্বজন জিয়াউর রহমান নামে এক জনকে আটক করা হয়েছে।
এদিকে পৃথক দুটি হত্যাকান্ডের ঘটনায় আশুলিয়া থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রিজাউল হক।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ