Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

সশস্ত্র সঙ্ঘাতে মারা যাচ্ছে লাখ শিশু

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

সশস্ত্র সংঘাতের ফলে সারা বিশ্বে ২০১৩-১৭ সাল পর্যন্ত কমপক্ষে পাঁচ লাখ শিশু মারা গেছে বলে সেভ দ্য চিলড্রেনের এক নতুন বিশ্লেষণে বলা হয়েছে। গড়ে এ সংখ্যা দাঁড়ায় বছরে এক লাখ। ১৫ ফেব্রুয়ারি জার্মানির মিউনিখে শুরু হওয়া ‘মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্স’-এ প্রকাশিত ‘স্টপ ওয়ার অন চাইল্ড’ রিপোর্টটিতে এ পরিসংখ্যান উঠে এসেছে। যুদ্ধ ও সংঘাতের পরোক্ষ প্রভাব যেমন-ক্ষুধা, দারিদ্র্য, ক্ষতিগ্রস্ত অবকাঠামো (হাসপাতাল), স্বাস্থ্যসেবা ও সাহায্যের দুষ্প্রাপ্যতা, পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থার খারাপ অবস্থা ইত্যাদি কারণে শিশুমৃত্যু ঘটে। সেভ দ্য চিলড্রেন বলছে, সংঘাতপ্রবণ ও সংঘাতপূর্ণ এলাকায় জন্ম না নিলে বা ওই এলাকায় এ শিশুরা না থাকলে হয়তো তাদের মৃত্যু ঘটত না। রিপোর্টটি আরো জানায়, বর্তমানে পাঁচজনের মধ্যে একজন অর্থাৎ ২০ বছরের মধ্যে সর্বাধিকসংখ্যক শিশু সংঘাত প্রভাবিত এলাকায় বসবাস করে। আফগানিস্তান, ইয়েমেন, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক, কঙ্গো (ডিয়ারসি), সিরিয়া, ইরাক, মালি, নাইজেরিয়া ও সোমালিয়া ২০১৭ সালে সংঘর্ষের ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ছিল। সেভ দ্য চিলড্রেন ইন্টারন্যাশনালের সিইও হেলে থর্নিং স্মিথ বলেন, আমাদের প্রতিবেদন করতে গিয়ে দেখা যায় যে এ সময় যুদ্ধগুলো যেভাবে লড়া হয়, সেগুলো শিশুদের জন্য আরো বেশি কষ্ট সৃষ্টি করছে। শিশুদের হত্যা এবং লাঞ্ছিত হওয়ার সংখ্যাও তিন গুণ বেশি। এই একুশ শতকে এসে আমরা যুদ্ধাবস্থায় শিশু ও অসামরিক কাউকে লক্ষ্যবস্তু করা যাবে না, এ নীতি থেকে দূরে সরে যাচ্ছি। আমাদের রিপোর্টের বিশ্লেষণে স্পষ্টভাবে দেখা যায়, শিশুদের ক্ষেত্রে পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়ে পড়ছে এবং এ পৃথিবী তা হতে দিচ্ছে। প্রতিদিন সশস্ত্র দলগুলো এবং সামরিক বাহিনী আন্তর্জাতিক আইন ও চুক্তি লঙ্ঘন করছে। রিপোর্টটি আরো দেখিয়েছে, কীভাবে স্কুল সুরক্ষিত রাখা, নির্দিষ্ট কিছু অস্ত্রের বাইরে অন্য কিছু ব্যবহার না করা, শিশুদের ওপর অত্যাচারের ক্ষেত্রে জবাবদিহিতা তৈরি করা এবং যুদ্ধ অভিজ্ঞতা থেকে বেরিয়ে আসতে তাদের সাহায্য করার উদ্যোগগুলো তাদের জীবনে পার্থক্য তৈরি করতে পারে। রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন