Inqilab Logo

শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

দুর্নীতি দেশের উন্নয়নকে ব্যাহত করেছে

সেমিনারে আইনমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০২ এএম

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, এদেশে আর দুর্নীতি হতে দেয়া যায় না। কারণ দুর্নীতি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ও চেতনাকে আঘাত করেছে। দুর্নীতি দেশের উন্নয়নকে ব্যহত করেছে। দুর্নীতি সামাজিক অবক্ষয় ও সামাজিক বৈষম্য সৃষ্টি করেছে। দুর্নীতির কারণে অনেক পেশা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে সে পেশার আদর্শ ও নৈতিকতা। তাই যে কোন মূল্যে আমাদের দুর্নীতি দমন করতে হবে। গতকাল ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম আয়োজিত দুর্নীতি রিরোধী অভিযান ও নেতৃত্বের সাফল্য শীর্ষক এক সেমিনার প্রধান অতিথির বক্তবে এসব কথা বলেন তিনি।
আইনমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে মূলত ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে বঙ্গবন্ধুসহ তাঁর পরিবারকে নৃশংসভাবে হত্যার পর থেকে দুর্নীতির ডালপালা মেলতে শুরু করে। এরপর প্রায় দুই দশকে দুর্নীতি সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করে। দেশে দুর্নীতের মাত্রা চরম আকার ধারণ করে। বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশ দুর্নীতিগ্রস্থ দেশ হিসেবে পরিচিত হয়। ২০০৯ সালে শেখ হাসিনা সরকারের দায়িত্ব পেলে তিনি এই দুর্নাম ঘোচানোর জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেন। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে আমাদের সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। এজন্য সর্বক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে কারণ সবকিছু ডিজিটাল হলে দুর্নীতি এমনিতেই কমতে থাকবে। তাই সরকারি- বেসরকারি অফিসগুলো যাতে তাদের সবকিছু ডিজিটাইজড করে সে ব্যাপারে সরকারের পাশাপাশি দুর্নীতি দমন কমিশনেরও দৃষ্টি দেয়া উচিত। মন্ত্রী আরো বলেন, দুর্নীতি দমনে তথ্য প্রদানে সরকারি তথ্য ভান্ডার গড়ে তোলা যেতে পারে। সেই সঙ্গে ছবিযুক্ত জাতীয় পরিচয়পত্র, ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও স্বাক্ষর যুক্ত ডাটাবেস এর ব্যবহার বাড়াতে হবে। দুর্নীতিবাজদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। শুধু দুর্নীতিবাজদের শাস্তি দিয়ে সম্ভব নয়, এ জন্য প্রয়োজন গণসচেতনতা, দেশপ্রেম এবং তারুণ্যের অঙ্গীকার। প্রতিজ্ঞা করতে হবে আমি দুর্নীতি করবো না, অন্যকে দুর্নীতি করতে দিবো না। বিভিন্ন কারণে বাংলাদেশে দুর্নীতি দমন একটি চ্যালেঞ্জিং ইস্যু। এটি একমাত্র প্রধানমন্ত্রী নেতৃত্বেই দমন করা সম্ভব। তিনি বিশ্বব্যাংককে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মাসেতু নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যেও বাংলাদেশকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিচিত করে তুলেছেন।
ফোরামের আহবায়ক প্রফেসর ড. মীজানুর রহমান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড, বিশ্বজিৎ ঘোষ, মেজর জেনারেল (অব.) এ কে মোহাম্মদ আলী শিকদার, সাবেক সচিব মো. নাসির উদ্দিন, কলামিস্ট ড. মিল্টন বিশ্বাস সুভাষ সিংহ রায় প্রমুখ।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৭:০১ এএম says : 0
    আইন মন্ত্রীর প্রতি একজন মুক্তিযোদ্ধার প্রশ্ন আপনি যে কথা এখানে বলেছেন ‘এদেশে আর দুর্নীতি হতে দেয়া যায় না। কারন দুর্নীতি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ও চেতনাকে আঘাত করছে।‘ এটা কি আপনি সত্যই মনে করেন নাকি এটা আপনার রাজনৈতিক বক্তব্য??? আমি বিভিন্ন জনের কাছ থেকে শুনে থাকি যে, আপনার নিজস্ব দপ্তর মানে আপানার ব্যাক্তিগত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা বিভিন্ন আদলতে আপনার কথা বলে বিভিন্ন ভাবে আদলতকে ব্যাবহার করে থাকে, পত্রিকাতেও এসব কথা আসে, এটা কি সত্য?? আমি আবশ্য ২/১টা মামলার অদ্ভুত রায় দেখে আশ্চার্য হয়েছি এবং তখনই এসব নিন্দুকদের কথা বিশ্বাস করতে ইচ্ছা হচ্ছে। তাই আমি আজ এই সুদুর কানাডা থেকে ইনকিলাব পত্রিকায় মন্তব্য লিখে আপানাকে এই বিষয়টা জানালাম। এখন এটা দেখার এবং ব্যাবস্থা নেয়া আপনার বিষয়। প্রয়োজন হলে আমি আপনাকে ঐ মামলার রায় যানাকি অবাস্তব একটা রায় সেটা দেখাতে পারবো ইনশ’আল্লাহ। তবে আপনি যদি সঠিক থাকেন তাহলেই আমার পক্ষে বিষয়টা প্রমাণ করা সম্ভব নয়ত আবার আপনাদের পুলিশ আমার পেছনে দাবার দিয়ে আমাকে বাংলাদেশেই যেতে দিবে না এটাও সত্য কারন আমি আপনাদের পুলিশ রাজাদের ভাল ভাবে চিনতে পেরেছি আমার সাথে তাদের বিভিন্ন আচরণে। আমি যেহেতু বিদেশী নাগরিক এবং ’৭১ সালের একজন সাহসী সৈনিক ছিলাম সেজন্যেই আমি আপনার পুলিশের বিপক্ষে এখনও দাড়িয়ে আছি অন্য কেহ হলে এতদিনে পুলিশ পগারপার করে দিত, এটাই মহা সত্য বাংলাদেশে। আমি আশা করবো আপনি বড় বড় কথা বলার আগে আপনার ব্যাক্তিগত দপ্তরের লোকজনদের দুর্নীতি বন্ধ করেন তারপর মাঠে নামেন নয়ত আপনার মুখ থেকে বের হওয়া এসব কথা নেত্রী হাসিনাকে বিপদে ফেলবে এটাই সত্য। আল্লাহ্ আমাকে সহ সবাইকে সত্য কথা বলার সাহস দিন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আইনমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ