Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার শেষ হচেছ এবারের বিশ্ব ইজতেমা

গাজীপুর | প্রকাশের সময় : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৮:৪৫ পিএম | আপডেট : ৯:০২ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

মঙ্গলববার মাওলা শাদ অনুসারিদের আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হচেছ তাবলীগ জামাতের ৫৪ তম বিশ্ব ইজতেমার আসর। এর আগে গত ১৫ ও১৬ ফ্রেবুয়ারির মাওলা যোবায়ের অনুসারিদের আখেরি মোনাজাত অনুষঠিত হয়।গতকাল সোমবার বাদ ফজর বয়ান করেন দিল্লির নিজামুদ্দিনের মাওলানা মুরছালিন। বাদ জোহর দিল্লির মাওলানা শেহজাদ, বাদ আসর মাওলানা শওকত বয়ান করেন। আর আখেরি মোনাজাতের পূর্বে হেদায়েতি বয়ান করবেন দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ শামীম।
এদিকে আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির জন্য, ইবাদত-বন্দেগি, জিকির-আসকার, মুরব্বিদের বয়ান শুনে বিশ্ব ইজতেমার চতুর্থদিন পার করলেন লাখো মুসল্লি। ইজতেমার মাওলানা সা’দ অনুসারীগনের মঙ্গলবার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ইজতেমা। আর সেই সঙ্গে সমাপ্তি ঘটবে মুসলিম বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জমায়েত ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমার।

আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে যানবাহন চলাচলে নিয়ন্ত্রণ : আখেরি মোনাজাতে শরিক হতে ইজতেমাস্থলে মুসল্লিদের আসা ও যাওয়ার জন্য যানবাহ চলাচলে বিশেষ ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সোমবার দুপুরে বিশ্ব ইজতেমা ময়দান সংলগ্ন শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার স্টেডিয়ামে স্থাপিত পুলিশ কন্ট্রোল রুমের সামনে এক বিফ্রিংয়ে গাজীপুর মেট্টোপলিটন পুলিশের কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান বলেন, ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে ইজতেমার কার্যক্রম চলছে। প্রত্যেকটি মানুষের ভেতর নিরাপত্তাবোধ জাগ্রত আছে। অত্যন্ত সুন্দরভাবে ইজতেমা উদযাপিত হচ্ছে। বৃষ্টির কারণে সরকার ইজতেমা একটি দিন পিছিয়েছেন। এতে মঙ্গলবার সকাল বেলা দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। এ মোনাজাতের জন্য নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থা আগের আখেরি মোনাজাতের মতোই নেয়া হয়েছে। অর্থাৎ সোমবার দিবাগত মধ্যরাত হতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহসড়কের জয়দেবপুর চান্দনা চৌরাস্তার ভোগড়া বাইপাস, টঙ্গী ব্রীজ, আশুলিয়া সড়কের কামারপাড়া ব্রীজ ও টঙ্গী-নরসিংদী সড়কের মীরেরবাজার এলাকায় ব্যারিকেট দিয়ে সব ধরনের যানবাহন টঙ্গীতে প্রবেশ বন্ধ রাখা হবে। ইজতেমা শেষে মুসল্লিদের যাওয়ার সময়ও একই ব্যবস্থাপনা অব্যাহত থাকবে। প্রতিটি নাগরিক আমাদের ট্রাফিক ও নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে সহযোগিতা করেবেন তিনি এ আশা প্রকাশ করেন। তিনি আরো জানান, বিশ্ব ইজতেমা এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে -সাদা পোশাকে প্রায় ১০ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ময়দান ও আশপাশ এলাকায় মোতায়েন রয়েছে।

সা’দ অনুসারীদের সংবাদ সম্মেলন : টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে মাওলানা সা’দ অনুসারি মাওলানা আশরাফ আলী জানিয়েছেন, এবারের ইজতেমা আদর্শগত ভিন্নতার কারণে ভিন্নভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারের ইজতেমা আয়োজনে স্বরাস্ট্র ও ধর্মমন্ত্রীর আন্তরিক প্রচেষ্টা ছিল।

তিনি জানান, মাওলানা সা’দ সাহেবের প্রতিনিধি হিসেবে ৩২ জনের একটি জামাত নিজামুদ্দিন দিল্লি থেকে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় এসেছেন। তাদের যিনি জিম্মাদার হয়ে এসেছেন মাওলানা শামীম সাহেব তিনিই আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন।

মাওলানা আশরাফ আলী জানান, দাওয়াতে তাবলিগের মেহনত এক সুপরিচিত মেহনত। এটি সুপরিচিত হতে দীর্ঘদিনের ত্যাগ-তিতিক্ষা, পরিশ্রম, কোরবানি রয়েছে। এর উৎস হচ্ছে দিল্লির নিজামুদ্দিন থেকে। মাওলানা ইলিয়াস (র:) থেকে এ কাজের শুরু। আজ মাওলানা সা’দ হচ্ছেন এর জিম্মাদার। প্রায় ৬০ বছর ধরে ওনাদের মাধ্যমে ইজতেমা পরিচালিত হচ্ছে।

তিনি সোমবার দুপুরে ইজতেমা ময়দানের বিদেশী নিবাসে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। উপস্থিত ছিলেন মাওলানা রেজা আরিফ, মাওলানা আব্দুল্লাহ শাকিল ও সাজিদুর রহমান।

মাওলানা আশরাফ জানান, দেশ-বিদেশের সর্বোচ্চ পর্যায়ের মুরুব্বিরা ইজতেমার দু’টি পক্ষকে একত্র করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আর যদি এটি সম্ভব না হয় তবে যার যার অবস্থান থেকে ইজতেমা করবে। এতে কোন পক্ষ যেন কোন পক্ষকে বাধা না দেন।

মাওলনা আশরাফ আলী জানান, যতক্ষণ পর্যন্ত আদর্শগত পার্থক্য থাকবে ততক্ষণ পর্যন্ত একসঙ্গে ইজতমা করার প্রশ্নই আসেনা। আদর্শ ভিন্ন রেখে এক সঙ্গে ইজতেমা করতে যাওয়া মানেই সংঘাতকে ডেকে আনা। তারা যদি ভুল বুঝতে পারে যে তাদের এ ধরণের সংঘাতে যাওয়া ক্ষতি হচ্ছে, মুসলমানের ক্ষতি হচ্ছে তাহলে আগে যেমন মাওলানা সা’দ সাহেবের নিজাম উদ্দিনের পরিচালনায় এক সঙ্গে ইজতেমা হতো এর পরেও সেভাবে হবে।

আগামি বছর ইজতেমা কখন হবে তার তারিখ নির্ধারণ করবেন ইজতেমার তাদের পক্ষের আমির মাওলানা সা’দ। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন ইজতেমার শীর্ষ মুরুব্বি মাওলনা আশরাফ আলী।

এক মুসল্লির মৃত্যু : সোমবার টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে এক মুসল্লি ইন্তেকাল করেছেন। তার নাম মোঃ ইসমাইল হোসেন (৬৮) তিনি বগুড়ার ধুপচাচিয়া এলাকার জেবু খানের ছেলে। ইজতেমার কন্ট্রোলরুম সূত্র জানায়, ইসমাইল হোসেন তার খিত্তায় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে টঙ্গী আহসান উল্লাহ মাস্টার হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। বাদ ফজর ইজতেমা মাঠে তার জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

ইজতেমায় বিদেশী মুসল্লি : ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে জর্ডান, লিবিয়া, আফ্রিকা, লেবানন, আফগানিস্তান, ফিলিস্তিন, যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, ইরাক, সৌদি আরব, ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ডসহ বিশ্বের প্রায় ৩০টি দেশ থেকে ৩৩৪জন মুসল্লি ইজতেমার এ পর্বে আসেন।

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর জানান, ইজতেমা শেষে এর মালামালগুলো পুলিশ ও প্রশাসনের হেফাজতে থাকবে। পরে দুই পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ইজতেমার মালামাল সমূহ ইজতেমা কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দেয়া হবে।

উল্লেখ্য, টঙ্গীর তুরাগ তীরে ইজতেমা ময়দানে এবছর ১৫ থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হচ্ছে তাবলিগ জামাতের ৫ দিনব্যাপি ৫৪তম বিশ্ব ইজতেমা। গত ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ইজতেমার কার্যক্রম পরিচালনা করেন মাওলানা জুবায়ের অনুসারীগণ। ১৬ ফেব্রুয়ারি জোবায়ের অনুসারীদের আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হয় তাদের পর্ব। সোমবার সা’দ অনুসারীদের ইজতেমা শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে একদিন বাড়ানো হয়। ফলে মঙ্গলবার সা’দ অনুসারীদের পরিচালনায় ইজতেমার আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টার দিকে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ৫৪ বিশ্ব ইজতেমার সকল কার্যক্রম



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ