Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

ফোরজি ও কল সেটআপে ব্যর্থ তিন অপারেটর

কলড্রপে শীর্ষে গ্রামীণফোন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ফোরজি সেবায় মানসম্মত যে গতিসীমা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে তিন অপারেটর (গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংক)। কোন অপারেটরেই গতিসীমা নেই বেঞ্চমার্কের ধারের কাছে। কল সেটআপেও ব্যর্থতার বৃত্তে তিনটি অপারেটর (গ্রামীণফোন, বাংলালিংক ও টেলিটক)। আর কলড্রপে বেঞ্চমার্কে নেই গ্রামীণফোন। এক্ষেত্রে শীর্ষ স্থান দখল করেছে বেসরকারি এই অপারেটরটি। গতকাল (সোমবার) টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (বিটিআরসি) প্রকাশিত মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর ‘কোয়ালিটি অব সার্ভিস (কিউওএস) ড্রাইভ টেস্টের’ প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা যায়।
গত বছরের ৬ নভেম্বর থেকে ৮ ডিসেম্বর রাজধানীর চারপাশে এক হাজার ৩৫০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তিন হাজার ৩০০ সেম্পলের ওপর এই পরীক্ষা চালায় বিটিআরসি। কল সেটআপ সাক্সেস রেট, কল ড্রপ, মিন অপিনিয় স্কোর (এমওএস), কল সেটআপ টাইম, থ্রিজিতে ডাটা স্পিড, ফোরজিতে ডাটা স্পিড এসব ক্যাটাগরিতে ড্রাইভ টেস্ট চালায় কমিশন।
পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায়, কল সেটআপে তিন অপারেটরই নির্ধারিত মানের মধ্যেই রয়েছে। কলড্রপে সর্বোচ্চ হার ২ শতাংশ বলা হয়েছে কিন্তু পরীক্ষায় অন্য তিন অপারেটর উত্তীর্ণ হলেও গ্রামীণফোন ব্যর্থ হয়েছে। কলড্রপের দিক দিয়ে শীর্ষ স্থান পেয়েছে এই অপারেটর। গ্রামীণফোনের কলড্রপের হার ৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ। অন্যদিকে রবির ১ দশমিক ৩৫, বাংলালিংকের ০ দশমিক ৫৮ এবং টেলিটকের ১ দশমিক ৫৮ শতাংশ এই কলড্রপ। এমওএসে নির্ধারিত মান ৩ দশমিক ৫ শতাংশ, এক্ষেত্রে রবি ছাড়া অন্য তিন অপারেটরের মান বজায় রয়েছে। যেকোন কল করার ক্ষেত্রে ৭ সেকেন্ডের মধ্যে সেই কল সংশ্লিষ্ট নম্বরে পৌঁছে যাওয়ার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায় একমাত্র রবি ছাড়া বাকি তিন অপারেটরই বেশি সময় নিচ্ছে। রবি যেখানে ৬ দশমিক ১৫ সেকেন্ড সময় নিচ্ছে কল সেটআপে। সেখানে গ্রামীণফোন নিচ্ছে ১০ দশমিক ১৪ শতাংশ, বাংলালিংক ৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ, টেলিটক ৭ দশমিক ১১ শতাংশ। থ্রিজি ইন্টারনেটে গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংক বেঞ্চমার্ক স্পিড দিতে পারলেও ব্যর্থ হয়েছে রাষ্ট্রায়াত্ত¡ মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক। আর এই পরীক্ষায় টেলিটকের ফোরজি পরীক্ষা না হলেও অন্য তিন অপারেটরই ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। কোয়ালিটি অব সার্ভিসের বেঞ্চমার্ক অনুযায়ি, থ্রিজিতে ডাউনলোডের সর্বনিম্ন গতি ২ মেগাবাইট প্রতি সেকেন্ড (এমবিপিএস) আর ফোরজিতে ডাউনলোডের সর্বনিম্ন গতি হওয়ার কথা ৭ মেগাবাইট প্রতি সেকেন্ডে (এমবিপিএস)। থ্রিজিতে টেলিটক ছাড়া অন্য তিন অপারেটরের গতি ৩ এমবিপিএসের ওপরে হলেও টেলিটকের গতি ১ দশমিক ৬৩ এমবিপিএস। অন্যদিকে ফোরজিতে কোন অপারেটরই নির্ধারিত এই মান পূরণ করতে পারেনি। পরীক্ষার ফলাফল অনুয়ায়ি গ্রামীণফোনের ডাউনলোড স্পিড ৫ দশমিক ৮৮ এমবিপিএস, রবির ৫ দশমিক ৯১ এমবিপিএস ও বাংলালিংকের ৫ দশমিক ১৮ এমবিপিএস। তবে ফোরজিতে আপলোড গতি জিপির ২ দশমিক ৫৫, রবির ২ দশমিক ৫০ এবং বাংলালিংকের ২ দশমিক ৩৩ এমবিপিএস। যা বেঞ্চমার্ক অনুয়ায়ী ঠিক আছে। বেঞ্চমার্কে এটি ১ এমবিপিএস হতে হবে।
কলড্রপের ক্ষেত্রে বিটিআরসির নির্দেশনা অনুযায়ী, প্রতিদিন একজন গ্রাহকের একটির বেশি কলড্রপের প্রতিটিতে এক মিনিট করে করে টকটাইম ফেরত দিতে হবে। কিউওএস নীতিমালা অনুযায়ী অপারেটরগুলোর বিভিন্ন সেবার মান মূল্যায়ন করে র‌্যাঙ্কিং করার কথা। র‌্যাঙ্কিংয়ের জন্য এই ড্রাইভ টেস্ট অন্যতম। নীতিমালায় অপারেটরগুলোর সেবার মানের ক্ষেত্রে বেঞ্চমার্কও ঠিক করে দেয়া হয়েছে। সে অনুয়ায়ী ড্রাইভ টেস্টের ফলাফল তুলনা করা হয়। ঘোষিত মানদন্ড অনুসারে সেবা দেওয়া না হলে সংশ্লিষ্ট অপারেটরকে জরিমানা করতে পারবে বিটিআরসি।
বিটিআরসির পক্ষ থেকে বলা হয়, কমিশন মোবাইল ফোনের সেবার মানের বিষয়ে তাঁর প্রতিশ্রুত কার্যাবলী চালিয়ে যাচ্ছে। কোয়ালিটি অব সার্ভিস রেগুলেশন অনুযায়ী ইতোমধ্যে সেবা প্রদানের জন্য অপারেটর সমূহকে বিভিন্ন নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। সেবার মানের বিষয়ে কমিশনের নির্দেশনা অমান্য করার কোনও সুযোগ নেই। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট জরিমানা ও শাস্তির বিধানকে উপেক্ষা করা যায়না।#



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গ্রামীণফোন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ