Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৫, ১৬ রজব ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

৬ দফা দাবিতে ঢাবি ভিসি কার্যালয় ঘেরাও

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র আবাসিক হলের বাইরে একাডেমিক ভবনে স্থানান্তরসহ ছয় দফা দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি কার্যালয় ঘেরাও করে ক্যাম্পাসে ক্রিয়াশীল ছাত্র সংগঠনগুলোর দুই মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ছাত্রঐক্য। তবে ঘোষিত তফসিলের বাইরে নতুন কোন সিদ্ধান্ত নিয়ে ভাবারমত পরিস্থিতি তৈরী হয়নি বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ সামাদ। নির্বাচন ঘিরে প্যানেল ঘোষণা করেছে জাসদ ছাত্রলীগের একাংশ। অন্যদিকে টিএসসিতে সংবাদ সম্মেলন করে আত্মপ্রকাশ করে সম্ভাব্য সতন্ত্র প্রার্থীদের একটি সংগঠন। ডাকসু নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র বাইরে দেয়াসহ ৬দফা দাবিতে গতকাল সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো.আখতারুজ্জামানের কার্যালয় ঘেরাও করে বামপন্থী ছাত্র সংগঠনগুলোর দুটি জোট। এর আগে দাবি মানতে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে আলটিমেটাম দিয়েছিলো তারা । দাবি না মানায় এদিন পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিন থেকে মিছিল বের করে নেতাকর্মীরা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন প্রদক্ষিণ করে গ্রন্থাগার ও টিএসসি হয়ে ভিসি কার্যালয়ে যায়। বেলা পৌনে একটার দিকে ভিসি কার্যালয়ের বাইরে অবস্থান নিয়ে সমাবেশ করেন নেতা-কর্মীরা। প্রায় ৫০ জন নেতাকর্মী দেড়ঘন্টা অবস্থান শেষে সেখান থেকে চলে যান। সমাবেশে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সভাপতি ইকবাল কবীর বলেন, ক্ষমতাসীন ছাত্রসংগঠন বাদে বেশির ভাগ সংগঠন হলের বাইরে ভোটকেন্দ্রের বিষয়ে একমত। তাদের দখলদারি ও সন্ত্রাসের পরিস্থিতিতে হলের ভেতরে ভোটকেন্দ্র করার বাস্তব পরিস্থিতি নেই। এসময় সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ছাত্রঐক্যের সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের সভাপতি আতিফ অনীকের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাসুদ রানা প্রমুখ বক্তব্য দেন। আগামীদিনে জোটের পক্ষ থেকে প্রত্যেক হলের সামনে সমাবেশ করার কথা জানান ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী।
এদিকে ছাত্রদল ও বাম সংগঠনগুলোর দাবি দাওয়া নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি ড. মুহাম্মদ সামাদ। তিনি বলেন, আগামীকাল থেকে ডাকসু নির্বাচনের মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু হবে। আমরা আশা করি প্রত্যেকটি ছাত্র সংগঠন উৎসবমূখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র কিনবে। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তওে তিনি বলেন, হলে সহাবস্থান নেই এমন কোন তথ্য আমাদের কাছে নেই। কেউ যদি এ বিষয়ে আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয় তবে আমরা তাকে হলে উঠিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করবো। কিছু ভূল-ত্রুটি হলেও আমরা চাই দীর্ঘদিন না হওয়া ডাকসু নির্বাচন শুরু করতে। বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে যেসব দাবি জানানো হচ্ছে তা নিয়ে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেয়ার মত পরিবেশ তৈরী হয়নি। ভোটগ্রহণের সময় বাড়ানোর দাবি নিয়ে তিনি বলেন, ২টার মধ্যে যারা হলে প্রবেশ করবে তারা সবাই ভোট দিতে পারবে। আশা করি এনিয়ে কারো আপত্তি থাকার কথা নয়।
জাসদ ছাত্রলীগের একাংশের প্যানেল ঘোষণা
নির্বাচনকে সামনে রেখে ২৫জন প্রার্থী নিয়ে খসড়া প্যানেল ঘোষণা করেছে জাসদ ছাত্রলীগের। গতকাল সোমবার বেলা ১২টায় মধুর ক্যান্টিনের সামনে সংবাদ সম্মেলন করে প্যানেল ঘোষণা করেন তারা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান জাসদ ছাত্রলীগের (আম্বিয়া) কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি শাহজাহান আলী সাজু। সংগঠনটির পক্ষের প্রার্থীরা হলেন- মাহফুজুর রহমান রাহাত (ভিপি), শাহরিয়ার রহমান বিজয় (জিএস), নাঈম হাসান (এজিএস), শিরিন আক্তার (স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক), তন্ময় কুমার কুন্ড (বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক), ফজলে এলাহী জিসান (কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া বিষয়ক সম্পাদক), ইয়াসিন আরাফাত রাহী (আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক), আদনান হোসেন অনিক (সাহিত্য সম্পাদক), সাইফুল ইসলাম রোমান (সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক), মাহবুবুর রহমান হাবিব (ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক), এহসানুল হক হিমেল (ছাত্র পরিবহন সম্পাদক), আল আমিন শিকদার (সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক)। এছাড়াও সদস্য পদে রয়েছেন-সাদিকুর রহমান সাগর, মশিউর রহমান জারিফ, সংগ্রামী মোহন উচ্ছাস, আশরাফুল আলম ফাহিম, মো. নাবিদ নেওয়াজ, মাশফিক আরেফিন, রিফাত বিন মুত্তাসিম আহমেদ, তৌফিক আহমেদ, শাকিব ওয়ালিদ তৌহিদ, রাহাত আরা রুমি, মেহেদি হাসান, এস এম সামিউল বাশার সিদ্দিকী পার্থ এবং আরাফাত আহমেদ নাইম।
স্বতন্ত্র জোটের আত্মপ্রকাশ
এদিকে নির্বাচন ঘিরে সম্ভাব্য স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিয়ে নতুন একটি জোটের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। গতকাল সোমবার দুপুর ২টায় টিএসসি ক্যাফেটেরিয়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন জোটের ঘোষণা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিন প্রকৌশল ও জীবপ্রযুক্তি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী অরণি সেমন্তি খান। তিনি বলেন, ডাকসু নির্বাচনে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা ‘স্বতন্ত্র জোট’ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করছি এবং একটি পূর্ণাঙ্গ প্যানেল নিয়ে নির্বাচন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। আমরা শুনেছি, হল ও বিভাগগুলোতে নির্দলীয় সাধারণ ছাত্র বিভিন্ন পদে ডাকসু নির্বাচনে স্বতন্ত্রভাবে অংশগ্রহণের পরিকল্পনা করছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই খবর তারা গোপন রাখার চেষ্টা করছে। যৌক্তিক কারণেই তারা ভয় পাচ্ছে যে, একবার ছাত্রলীগের কানে এই খবর গেলে তাদেরকে ভয়াবহ নির্মম অত্যাচারের শিকার হতে হবে। এই প্লাটফর্মের মাধ্যমে আমরা তাদেরকে আমাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১০:০২ পিএম says : 0
    নির্বাচনে আবাসিক হলের বাহিরে একাডেমিক হলে ভোট গ্রহণের জন্যে বেশীরভাগ ছাত্র সংগঠন দাবী তুলেছে। একই দাবী প্রথমেই তুলেছিল ছাত্রলীগ ১৯৯৪ সালে এবং এই দাবীর উপর আন্দোলন করায় একপর্যায়ে ডাকসু তফসিল ঘোষনা করেও নির্বাচন করতে পারেনি। আমরা দেখে আসছি সবসময়ই সরকারি দলের প্রভাব সর্বক্ষেত্রেই দৃশ্যমান কাজেই এটা বন্ধ করতে হলে ছাত্রদেরকে সঠিক পথে আসতে হবে। আমি বলতে চাই তাদেরকে নির্বাচন করতে হবে এখন যেহেতু আদলতের নির্দেশে নির্বাচন হচ্ছে এবং পুলিশের উপরও আদলতের নির্দেশ রয়েছে কাজেই এবার ঝামেলা নাকরে ইশতেহারে ডাকসুর নির্বাচনের উপর কিছু পরিবর্তন মানে গঠনতন্ত্র পরিবর্তনের বিষয় এনে জয়ী হয়ে গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আনার ব্যবস্থা করা। সেটা নাকরে যদি সেই ১৯৯৪ সালের পদানুসরণ করা হয় তাহলে আমি নিশ্চিত নির্বাচন ভেস্তে যাবার সম্ভবনা রয়েছে। এখন অবশ্যই ছাত্র/ছাত্রীদেরকে ধর্য ধারন করে শৃঙ্খলার মাধ্যমে তাদের উদ্দেশ্য হাছিল করে নিতে হবে। একই সাথে আমি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিয়ে একটি জোটের ঘোষনা এসেছে দেখলাম, আমি এদেরকে স্বাগতম জানাই। এভাবে সাহসী যুবক/যুবতীরা এগিয়ে এলে একটা সুষ্ঠ নির্বাচনের বিষয়ে আমরা আশাবাদী। আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সবাইকে সঠিক পথ চিনে বুঝে সেই ভাবে চলার যোগ্যতা দান করুন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ঢাবি


আরও
আরও পড়ুন