Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ০৬ ভাদ্র ১৪২৬, ১৯ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

কঠোর নিরাপত্তা বলয়ে একুশে ফেব্রুয়ারি

নিরাপত্তা ও ট্রাফিক সমন্বয় সভায় ডিএমপি কমিশনার

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কঠোর নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। কোন আশঙ্কা না থাকলেও সব ধরণের সম্ভাবনা মাথায় রেখে নিরাপত্তা গ্রহন করা হয়েছে। গতকাল নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত ডিএমপি কর্তৃক এক সমন্বয় সভায় তিনি এ কথা বলেন। ডিএমপি কমিশনারের সভাপতিত্বে সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, ডিএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, সিটি কর্পোরেশন, ফায়ার সার্ভিস, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণসহ আশপাশের এলাকা জুড়ে পর্যাপ্ত সংখ্যক অফিসার ও ফোর্সের সমন্বয়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজানো হয়েছে। প্রতিটি প্রবেশ গেটে পর্যাপ্ত সংখ্যক আর্চওয়ে স্থাপন করা হবে। দর্শনার্থীদের হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তল্লাশী ও হ্যান্ড ব্যাগ চেকিং করা হবে। মহিলাদের তল্লাশীর ক্ষেত্রে প্রতিটি গেটে পর্যাপ্ত সংখ্যক নারী পুলিশ থাকবে।
কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও এর আশপাশ এলাকায় পর্যাপ্ত সংখ্যক সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে। থাকবে পুলিশ কন্ট্রোল রুম। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশের এলাকা বোম্ব ডিসপোজাল টিম এবং ডগ স্কোয়াড দ্বারা সুইপিং করা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ বিশেষ নজরদারির আওতায় আনতে থাকছে ওয়াচ টাওয়ার।
তিনি আরো বলেন, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পৃথক পৃথক প্রবেশ ও বর্হিগমন গেটের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। হকারমুক্ত থাকবে। বিদেশি রাষ্ট্রদূত, কূটনৈতিক ও নাগরিকদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তা গ্রহণ করা হয়েছে। থাকবে ফায়ার সার্ভিসের ফায়ার টেন্ডার-এ্যাম্বুলেন্স ও লাইটিং ইউনিট। মিডিয়া কর্ণার থাকবে। ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় আইডি কার্ড ব্যতিত প্রবেশ নিষিদ্ধ।
কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসহ সমগ্র এলাকায় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ থাকবে। ১০টি ভ্রাম্যমান টয়লেট ও মহিলাদের জন্য অতিরিক্ত ২টি ভ্রাম্যমান টয়লেট স্থাপন করা হবে। ১০টি স্থানে বিশুদ্ধ খাবারের পানির ব্যবস্থা থাকবে। প্রস্তুত থাকবে মেডিকেল টিম। ২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়ের ভেতরে সকল ধরুুণের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।
২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারে যাওয়ার পথনির্দেশনা
কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও আজিমপুর কবরস্থানে যাতায়াতের পথনির্দেশনা ঠিক করে দিয়েছে একুশে উদ্যাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২০ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টা থেকে এই রুট ম্যাপ কার্যকর হবে। জনসাধারণ পুরনো হাই কোর্টের সামনের রাস্তা দিয়ে দোয়েল চত্বর ক্রসিং, বাংলা একাডেমি, টিএসসি মোড়, উপাচার্য ভবনের পাশ দিয়ে নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ি মোড়, নিউমার্কেট-ক্রসিং পার হয়ে আজিমপুর কবরস্থানের উত্তর দিকের গেইট দিয়ে কবরস্থানে প্রবেশ করবেন।
শহীদদের কবর জিয়ারতের পর আজিমপুর কবরস্থানের মূল গেইট (দক্ষিণ দিকের) দিয়ে বের হয়ে আজিমপুর সড়ক হয়ে পলাশী মোড় ও ফুলার রোড মোড় হয়ে অর্থাৎ সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনে দিয়ে শহীদ মিনারে যাবেন। কবরস্থানে না গিয়ে বিকল্প পথে যারা শহীদ মিনারে যেতে চান তারা উপাচার্য ভবন পার হয়ে নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ি মোড় থেকে বাম দিকের রাস্তা দিয়ে (জহুরুল হক হলের পশ্চিমের রাস্তা) সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনের রাস্তা হয়ে শহীদ মিনারে যেতে পারবেন।
নিউমার্কেট ক্রসিং থেকে হোম ইকোনমিক্স ও ইডেন কলেজের সামনের রাস্তা দিয়েও আজিমপুর (বেবী আইসক্রিম) মোড়, পলাশী মোড় হয়ে সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনের রাস্তা হয়ে শহীদ মিনারে যাওয়া যাবে। চাঁনখারপুল এলাকা থেকে বকশি বাজার মোড় হয়ে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ পাশের রাস্তা দিয়েও পলাশী মোড় হয়ে সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনের রাস্তা দিয়ে শহীদ মিনারে যাওয়া যাবে।
যেসব রাস্তা বন্ধ থাকবে
টিএসসি মোড় থেকে জগন্নাথ হলের পূর্ব পাশের রাস্তা অর্থাৎ শিব বাড়ির পশ্চিম পাশ দিয়ে শহীদ মিনারে ও মেডিকেল কলেজে যাওয়ার রাস্তা সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। উপাচার্য ভবন গেট থেকে ফুলার রোড হয়ে ফুলার রোড মোড় পর্যন্ত রাস্তা এবং চাঁনখারপুল থেকে কার্জন হল পর্যন্ত রাস্তা জনসাধারণের যাতায়াতের জন্য বন্ধ থাকবে। শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের পর সেখান থেকে বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠের সামনের রাস্তা দিয়ে দোয়েল চত্বর ও পেছনের রাস্তা দিয়ে চাঁনখারপুল হয়ে যাওয়া যাবে, শহীদ মিনারের দিকে আসা যাবে না।
#



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ