Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬, ২১ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

বোদায় আওয়ামী ও বিএনপি সমর্থক স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার

পঞ্চগড় জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৫:০৫ পিএম

পঞ্চগড়ের বোদায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি সমর্থক স্বতন্ত্র প্রার্থীরা তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যার করে নিয়েছেন। সোমবার বিকেলে তারা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে প্রত্যাহারের আবেদন করেন। তবে আরেক প্রার্থী সায়েদ জাহাঙ্গির হাসান সবুজ বাতিল হওয়া মনোনয়ন ফিরে পেতে নির্বাচন কমিশনে আপিল শেষে হাইকোর্টে রিট করতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তার রিট আবেদন আদালতে খারিজ হলে এখানে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে পারেন।
জেলা রিটার্নিং অফিস সূত্রে জানা গেছে, বোদা উপজেলায় ৫ জন চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এরের মধ্যে চার চেয়াম্যান প্রার্থী আওয়মীলীগ এবং একজন বিএনপি সমর্থক। যাচাই বাছাই শেষে ২ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করে ৩ জনকে বৈধ চেয়ারম্যান প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। সোমবার বিকেল স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আজাহার আলী ও বিএনপি সমর্থক জাকির হোসেন তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে এই উপজেলায় আওয়ামী লীগের দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে চলেছেন। তবে অপর আওয়ামী সমর্থক স্বতন্ত্র মনোনয়ন ফিরে পেতে তৎপর বলে জানা গেছে।
আওয়ামী সমর্থক স্বতন্ত্র প্রার্থী সায়েদ জাহাঙ্গীর হাসান সবুজ বলেন, আমি দীর্ঘদিন ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পাল করছি। উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আমার প্রার্থীতা বাতিল করা হয়। এ নিয়ে আপিল করেছিলাম। সেটা খারিজ করা হয়। মঙ্গলবার হাইকোর্টে রিট করবো। প্রার্থীতা ফিরে পেলে অবশ্যই নির্বাচন করবো এবং নির্বাচিত হবো।
রিটানিং অফিসার ও পঞ্চগড় জেলা নির্বাচন অফিসার মো. আশ্রাফুল আলম বলেন, বোদা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর মধ্যে দুইজন প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন। তবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করার আগে কিছু আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে। আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে।
আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী ফারুক আলম টবি বলেন, দুই জনের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। বাকি দুই প্রার্থী তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এখন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আমি একাই রয়েছি। প্রার্থীতা ফিরে পাওয়া নিয়ে সায়েদ জাহাঙ্গীর হাসান সবুজ বিষয়টি আইনের ব্যাপার। এছাড়া তিনিও আমার দলীয় সমর্থক। পরবর্তিতে তিনি কি সিদ্ধান্ত নিবেন এটা একান্তই তার বিষয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উপজেলা পরিষদ নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন