Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯, ১২ চৈত্র ১৪২৫, ১৮ রজব ১৪৪০ হিজরী।

জামায়াতের সঙ্গে বিএনপিরও ক্ষমা চাওয়া উচিত: তথ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ২:৫১ পিএম

জামায়াত দলগতভাবে ক্ষমা চাইলেও মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা, গণহত্যার দায় মুক্তি পেতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।তিনি বলেন, ‘জামায়াতকে নিয়ে একসঙ্গে নির্বাচন করা ও সরকার গঠন করার জন্য বিএনপিও একই অপরাধে অপরাধী।জামায়াতের সঙ্গে বিএনপিরও ক্ষমা চাওয়া উচিত।’
বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দুপু‌রে জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে ‘গণতন্ত্রের অভিযাত্রায় শেখ হাসিনা’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন,‘গত কয়েকদিন ধরে দেখতে পাচ্ছি, জামায়াতের ভেতর থেকে দাবি উঠে এসেছে ক্ষমা চাওয়ার। তাদের কয়েকজন নেতা ঘোষণা দিয়েছে পদত্যাগও করেছেন।আমি মনে করি, এই পদত্যাগের ঘোষণা বা তাদের মধ্য থেকে ক্ষমা চাওয়ার যে কথাবার্তা বলা হচ্ছে, এগুলো দেশি-বিদেশি চাপমুক্ত হওয়ার একটি কৌশল।’

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, তাতে সারাবিশ্ব বাংলাদেশের প্রশংসায় পঞ্চমুখ বলে মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী।তিনি বলেন, ‘আজ শেখ হাসিনার কারণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীও বলতে বাধ্য হন, বাংলাদেশে সমস্ত সূচকে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে গেছে।অথচ একটি পক্ষদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।তারা বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা রুখে দিতে চায়, তারা নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরেই গণতন্ত্র মুক্তি পেয়েছে।তার হাত ধরেই দেশের মানুষ ভোটের অধিকার ফিরে পেয়েছে।তার হাত ধরেই চিন্তা মুক্তি পেয়েছে। তার হাত ধরেই বাংলাদেশের অগ্রগতি। শেখ হাসিনা শুধু অসাম্প্রদায়িকতার প্রতীক নন, মানবতারও প্রতীক।’ তিনি ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছেন বলেও তথ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আখতারুজ্জামান,ঢাকা দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সহ-সভাপতি দিলীপ কুমার রায়, প্রচারসম্পাদক আখতার হোসেন, বইটির লেখক সুজন হালদারসহ অনেকেই।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১১:২৭ পিএম says : 0
    তথ্যমন্ত্রী ডঃ হাছান মাহমুদ এখানে বিএনপিকে নিয়ে যুক্তি সম্পন্ন কথা বলেছেন তাই ওনার সাথে সাথে আমিও মনেকরি বিএনপি উচিৎ দেশবাসীর কাছে ক্ষামা চাওয়া। স্বাধীনতারে পরপরই জামাতের রাজনীতি বাতীল করা হয়েছিল স্বাধীনতার বিপক্ষে কাজ করার জন্যে। শুধু তাই নয় জামাত মুক্তিবাহীনির সাথে মোকাবেলা করানোর জন্যে রাজাকার, আলবদরের জন্ম দিয়েছিল। আমারা যেমন ছাত্র লীগ থেকে মুক্তিযুদ্ধে গিয়ে মুক্তিবাহিনী হয়েছিলাম তেমনি জামাতের ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা রাজকার বা আলবদর হিসাবে সামরিক প্রশিক্ষন নিয়ে আমাদের বিপক্ষে যুদ্ধ করেছিল। আমাদের সাথে যুদ্ধ হয়েছে প্রকৃত পক্ষে এই রাজকারদের সাথে এবং এরাই আমাদেরকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। এরাই আমাদের ঘর বাড়ী পাকিসেনাদেরকে দেখিয়ে দিয়ে আমাদের মা বোনদের ওদের হাতে তুলে দিয়েছিল এবং ঘরবাড়ি পুরিয়ে দিয়েছিল। সেজন্যেই জামাতকে বাংলাদেশে নিষিধ্য করা হয়েছিল ’৭২ সালে। আর সেই জামতকে রাজনীতি করার সুযোগ দেয় জিয়া মিয়া বিএনপির বাবা ও পরে জামাতকে ক্ষমতায় নেয় খালেদা বিবি বিএনপির মাতা। কাজেই জামাত ক্ষমা চাচ্ছে সেজন্যেই বিএনপিকেও ক্ষমা চাওয়া উচিৎ। আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সবাইকে আমাদের ভুল কৃতকর্মের জন্যে ক্ষামা চাইবার মনোবৃত্তি দান করুন। আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Mofazzal Hossain ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৩:৫০ পিএম says : 1
    Your have steel the vote of mass people, but have not make any apologies, BNP are victimized to safe democracy. BNP should make apology because they are in right track.Bah! Bah! Bah! You are obviously right. Because "Might is right".
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তথ্যমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ