Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

এবার র‌্যাগিংয়ের অভিযোগে ইবির ৫ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

ইবি প্রতিনিধি | প্রকাশের সময় : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৬:৪৬ পিএম

গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরে এবার র‌্যাগিংয়ের অভিযোগে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বুধবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এক জরুরী সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়। এছাড়া ঘটনাটি তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।
জানা যায়, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সমাজকর্ম বিভাগের ৫ জন শিক্ষার্থী বিভাগের ক্লাসরুমে ঘন্টাব্যাপি কয়েকজন নবাগত শিক্ষার্থীকে র‌্যাগ দেয়। পরে র‌্যাগিংয়ের স্বীকার ৩ শিক্ষার্থী বিভাগীয় সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ জানায়। উক্ত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিভাগীয় একাডেমিক কমিটির সুপারিশ মোতাবেক ওই ৫ শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা হল সমাজকর্ম বিভাগের ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান, সুমাইয়া খাতুন, মেহেদী হাসান রোমান, আহমেদ জুবাইয়ের সিদ্দিকী ও মুহিদ হাসান। ঘটনা তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. রাশিদ আসকারী সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নাসিম বানুকে আহব্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মন ও বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সদস্য এবং ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রফেসর ড. মো: মাহবুবর রহমান।
এবিষয়ে তদন্ত কমিটির সদস্য এবং বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. মো: মাহবুবর রহমান বলেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে সম্পূর্নভাবে র‌্যাগিং মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। সেখানে যারা এ ধরনের কর্মকান্ডের সাথে নতুন করে জড়িত হচ্ছে তাদেরকে দমন করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের যে দায়িত্ব দিয়েছে সেটা আমরা যথাযথ ভাবে পালন করবো।
এ বিষয়ে বিভাগীয় সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. শাহিনুর রহমান বলেন, তিন জন শিক্ষার্থী র‌্যাগিংয়ের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করলে বিভাগীয় একাডেমিক কমিটি প্রশাসনের কাছে তাদের বহিষ্কারের সুপারিশ করে। তারই প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদের বহিষ্কার করে।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. রাশিদ আসকারী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে নিরাপদে রাখার মিশন নিয়ে আমরা মাঠে নেমেছি। প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিদের কাছে সকল শিক্ষার্থী সমান। দুর্বল ভেবে কোন শিক্ষার্থীর উপর কেউ অমানবিক আচারন করবে সেটা কখনো ক্ষমার যোগ্য নয়। যে বা যারা এ ধরণের কাজ করবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর থেকে কঠোরতর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে এবং ভবিষতেও গ্রহন করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: র‌্যাগিংয়ের অভিযোগ
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ