Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫, ১৭ রজব ১৪৪০ হিজরী।

বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে ৪ দিন ব্যাপী বিশ্ব উরশ শরিফের আনুষ্ঠানিক সূচনা হচ্ছে শুক্রবার বাদ জুমা

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৪:০৭ পিএম

ফরিদপুরের বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে ৪ দিন ব্যাপী বিশ্ব উরশ শরিফের আনুষ্ঠানিক সূচনা হচ্ছে আগামীকাল বাদ জুমা। শুক্রবার বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে বিশাল জুমার জামাতের পরে ফাতেহা শরিফ পাঠন্তে পীর ছাহেব হজরত মাওলানা শাহ সুফি সৈয়দ খাজাবাবা ফরিদপুরী (কুঃছেঃআঃ) ছাহেবের রওজা শরিফ জিয়ারতের মাধ্যমে উরশ শরিফের কার্যক্রম শুরু হবে। এ উরশ শরিফে যোগদানের লক্ষে ইতোমধ্যে দেশÑবিদেশ থেকে কয়েক লাখ জাকেরান ও আশেকান বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে সমবেত হয়েছেন। আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত সারা দেশ থেকে এ দরবার শরিফ মুখি জনশ্রোত অব্যাহত থাকবে। 

এ উরশ শরিফে অংশগ্রহনকারীদের জন্য দু বেলা খানা সহ অজু-গোসল ও নামাজের ব্যাবস্থাও নিশ্চিত করা হয়েছে। উরশ শরিফ উপলক্ষে শেষ রাতে রহমতের সময় থেকে পবিত্র কোরআন তোলাওয়াত, মিলাদ ও দোয়া মোনাজাত ছাড়াও জিকির এবং দেশ বরেন্য ওলামায়ে কেরামগন মহান আল্লাহ রাব্বুল আল আমীন ও নবী (সাঃ)এর নির্দেশিত পথে চলার লক্ষে ওয়াজ করবেন। ওয়াক্তিয়া নামাজ শেষে নফল নামাজ এবং ফাতেহা শরিফ ও খতম শরিফ ছাড়াও এশা বাদ দরুদ শরিফও পাঠ করা হবে। এ চার দিনের উরশ শরিফে শরিয়ত, তরিকত, হকিকত ও মারেফতের তালিমও প্রদান করা হবে।
বিশ্ব জাকের মঞ্জিল ও সন্নিহিত প্রায় ২৫বর্গ কিলোমিটার এলাকা যুড়ে উরশ শরিফের সব কার্যক্রম ইতোমধ্যে স¤পন্ন হয়েছে। বরিশালÑফরিদপুর ও বরিশালÑখুলনা মহা সড়ক থেকে বিশ্ব জাকের মঞ্জিলমুখি ৩টি সড়কে যান চলাচলে বিশেষ নিরাপত্তা ও শৃংখলা নিশ্চিত করছে দরবার শরিফের সেচ্ছাবেক বাহিনী ছাড়াও ফরিদপুর জেলা পুলিশ।
আগামী মঙ্গলবার বাদ ফজর ফাতেহা শরিফ এবং খতম শরিফ আদায় সহ পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং মিলাদ শেষে পুনরায় ফাতেহা শরিফ পাঠন্তে পীর ছাহেবের রওজা শরিফ জিয়ারত ও আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে এবারের উরশ শরিফে কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটবে।
আপন পীর সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরের হজরত খাজা ইউনুস আলী এনায়েতপুরী(কুঃছেঃআঃ) ছাহেবের নির্দেশে প্রায় ৭৫ বছর আগে শাহ সুফি খাজাবাবা ফরিদপুরী (কু:ছে:আ:)ছাহেব ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার আটরশী গ্রামে ইসলাম প্রচারে নিয়োজিত হন। সেদিন মাত্র ৬ টাকায় খেজুরের খোলের বেড়া ও ছনের ছাউনি দেয়া ঘর কিনে তিনি আটরশীতে ‘জাকের ক্যাম্প’ প্রতিষ্ঠা করে ইসলাম প্রচার শুরু করেছিলেন। তিনি যখন আটরশীতে আসেন তখন সেখানের মুসলমানরা ইসলামের বিধি বিধান সম্পর্কে তেমন আগ্রহী বা সচেতন ছিলেন না। তারা ঈদ ও কোরবানীর দিন লাঙ্গল-জোয়াল নিয়ে জমিতে হাল চাষ করতে যেত। অথচ পুজা পার্বনে নতুন জামা কাপড় পরে প্রতিমা দর্শনে বের হত।
সে অবস্থাতেই পীর ছাহেব জাকের ক্যাম্প থেকে ইসলামের দাওয়াত দিতে শুরু করেন। তার প্রতিষ্ঠিত জাকের ক্যাম্প ক্রমে জাকের মঞ্জিল থেকে বিশ্ব জাকের মঞ্জিলের রূপ নিয়ে সারা বিশ্বে ইসলামের দাওয়াত পৌছে দিয়েছে। যা আজো ইসলাম প্রচারে এক অনন্য প্লাটফরম হিসেব পরিচিত।
দীর্ঘ ৫৫বছর বিশ্ব জাকের মঞ্জিল থেকে ইসলামের দাওয়াত দিয়ে পীর ছাহেব শাহ সুফী খাজাবাবা ফরিদপুরী (কুঃছেঃ আঃ) ছাহেব ২০০১-এর ১মে ওফাত লাভ করেন। তারই নির্দেশ অনুযায়ী প্রতিবারের মত এবারো বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে মহা পবিত্র বিশ্ব উরশ শরিফ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন