Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ২২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

কেরানীগঞ্জে ছয়তলার ছাদ থেকে ফেলে কিশোরকে হত্যার অভিযোগ

কেরানীগঞ্জ(ঢাকা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ৫:৫৭ পিএম

ঢাকার কেরানীগঞ্জে ছয়তলার ছাদ থেকে ফেলে দিয়ে এক কিশোরকে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত কিশোরের নাম মোঃ জিসান আহমেদ(১৪)। তার বাবার নাম মোঃ কালাম হোসেন। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়নের কবুতর পাড়া গ্রামে। আজ বৃহস্পতিবার(২১ফেব্রুয়ারী) সকালে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করেছে।

নিহতের খালু মোঃ বাবুল হোসেন জানান, জিসান কে তার দুই বন্ধু বুধবার(২০ফেব্রƒয়ারী) রাত ১০টার সময় ডেকে নিয়ে যায়। পরে রাত ১১টার সময় রশিদ বেপারী ও হাজী জুলহাস শেখের ৬তলা দুইটি বাড়ির মাঝখানের একটি চেপাগলির ভিতর থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় জিসান আহমেদকে উদ্ধার করা হয়। তাকে প্রথমে মিটফোর্ড হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তাররা ভর্তি না নিয়ে তাকে ফেরত দেয়। পরে জিসানকে বাসায় নিয়ে আসাহলে তার অবস্থা আরো আশংকাজনক হয়ে পড়লে রাত ১টার সময় আবার তাকে মিটফোর্ড হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়। ধারনা করা হচ্ছে রশিদ বেপারী ও হাজী জুলহাস শেখের এই দুই বাড়ির যেকোন একটি বাড়ির ছাদ থেকেই জিসানকে তার বন্ধুরা ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দিয়েছে। তাকে যে বন্ধুরা ডেকে নিয়ে গেছে তাদের সাথে পুর্বে জিসানের কয়েকবার ঝগড়া হয়েছে।

দক্ষিন কেরানীড়ঞ্জ থানার এসআই ওবায়দুর রহমান জানান, খবর পেয়ে সকালে নিহতের বাড়ি থেকে জিসানের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসাপাতারের মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে কেরানীগঞ্জ সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রামানন্দ সরকার, দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ শাহ জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নিহত জিসান আহমেদ কালিগঞ্জ এলাকায় একটি গার্মেন্টেসের দোকানে কাজ করতো। তাদের গ্রামের বাড়ি জামালপুর জেলার সরিষা বাড়ি থানা এলাকায়। তারা কবুতর পাড়া এলাকায় জলিল মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতো। এব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরর প্রস্তুতি চলছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হত্যার অভিযোগ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ