Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯, ০২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৩ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

বাংলা ভাষা প্রচলন আইন বাস্তবায়ন করতে হবে

নাজমুল হক | প্রকাশের সময় : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

আমাদের সংবিধানের তৃতীয় অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রভাষা বাংলা’। সংবিধানের এই বিধান যথাযথভাবে কার্যকর করতে ১৯৮৭ সালের ৮ মার্চ ‘বাংলা ভাষা প্রচলন আইন’ কার্যকর করা হয়। এই আইনের ৩(১) ধারায় বলা হয়েছে, “এ আইন প্রবর্তনের পর বাংলাদেশের সর্বত্র তথা সরকারি অফিস-আদালত, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান কর্তৃক বিদেশীদের সাথে যোগাযোগ ব্যতীত অন্যান্য সকল ক্ষেত্রে নথি ও চিঠিপত্র, আইন আদালতের সোয়াল-জওয়াব এবং অন্যান্য আইনানুগত কার্যাবলী অবশ্যই বাংলায় লিখিতে হবে।” ধারায় আরো বলা হয়েছে, “উল্লেখিত কোন কর্মস্থলে যদি কোন ব্যক্তি বাংলা ভাষা ব্যতীত অন্য কোন ভাষায় আবেদন বা আপীল করেন, তাহলে তা বেআইনী ও অকার্যকর বলে গণ্য হবে।” তবে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের রুল এবং দেওয়ানি ও ফৌজদারি কার্যবিধি এ ক্ষেত্রে অন্তরায় সৃষ্টি করেছে। হাইকোর্ট বিভাগের রুলের চতুর্থ অধ্যায়ের ১ নং বিধিতে বলা হয়েছে, হাইকোর্টে দাখিলকৃত দরখাস্তগুলোর ভাষা হবে ইংরেজি। তবে পঞ্চম অধ্যায়ের ৬৯ নং বিধিতে বলা হয়েছে, হাইকোর্ট কর্তৃক প্রদত্ত আদেশ এবং ডিক্রি আদালতের ভাষায় প্রস্তুত করতে হবে। একইভাবে দেওয়ানি কার্যবিধির ১৩৭ ধারায় আদালতের ভাষা নির্ধারণ করতে গিয়ে ১৩৭(৩) অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘কোন আদালতের সাক্ষ্য লিপিবদ্ধ করা ব্যতীত অন্য কিছু লিখিতভাবে সম্পাদন করার জন্য অত্র কোর্ট আদেশ যা অনুমোদন করে তা ইংরেজিতে লেখা যাবে।’ ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৬৬(১) ধারায় বলা হয়েছে, ‘যে কোন ফৌজদারি আদালতের বিচারিক রায় আদালতের ভাষায় অথবা অন্য কোন ভাষায়- যা আসামী অথবা তার আইনজীবী বুঝতে সক্ষম সে ভাষায় ঘোষণা অথবা উক্ত রায়ের বিষয়বস্তু লিপিবদ্ধ করতে হবে।’ তাহলে বাংলা ভাষায় রায় প্রদান করতে, ডিক্রি বা আদেশ প্রদান করতে বাধা কোথায়? বাধা আসতে পারে অনেক আইন, আইনের ব্যাখ্যা, দৃষ্টান্ত ইংরেজিতে। সেক্ষেত্রে রায় দেওয়ার সময় ইংরেজির ধারাগুলো বাংলায় অনুবাদ করলেই তো হয়।
আদালতের ভাষা হিসেবে বাংলা ভাষা শতভাগ চালু না হওয়ায় রাষ্ট্রের নাগরিকরা সাংবিধানিকভাবে পাওয়া মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। স্বাধীন দেশের একজন নাগরিক হয়েও বিচারপ্রার্থী হয়ে আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকে অসহায়ের মতো। যে ভাষায় তার আইনজীবী বিচারকের সাথে কথা বলেন তিনি তা বুঝতে অক্ষম। বিচারক যে ভাষায় রায় দিচ্ছেন তাও বুঝতে তিনি অক্ষম।
এখনো দেশে সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু হয়নি। শিক্ষার ক্ষেত্রে, গবেষণা, বিলবোর্ড, সাইনবোর্ড ইত্যাদিসহ সরকারের বিভিন্ন অফিসে চিঠি আদান-প্রদান করা হয় ইংরেজি ভাষায়। আর বাংলা ভাষা প্রয়োগ ও সর্বস্তরে ব্যবহারের জন্য যারা বিভিন্ন সময় আদেশ দিয়েছিলেন তারাই অনেকক্ষেত্রে সেটি মানেন না। অর্থাৎ খোদ উচ্চ আদালতে পূর্ণাঙ্গভাবে বাংলা চালু হয়নি এখনও। তবে এ ক্ষেত্রে ব্যক্তিক্রমী দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন সাবেক প্রধান বিচারপতি ও বর্তমান আইন কমিশনের চেয়ারম্যান এ বি এম খায়রুল হক। তিনি বহুল আলোচিত সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর রায় বাংলা ভাষায় লিখে উচ্চ আদালতে বাংলা ভাষার প্রচলনের ক্ষেত্রে দৃঢ় ভূমিকা পালন করে গেছেন। অন্যরা কেনো পারছেন না?
সব ক্ষেত্রে বাংলা ভাষা প্রচলন ও বাংলা ভাষার দূষণ রোধে উচ্চ আদালতের নির্দেশ থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। ফলে দিন দিন বাংলা ভাষার প্রচলন সংকুচিত হয়ে আসছে ও দূষণের মাত্রা বাড়ছে। ২০১২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি ও ২০১৪ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি সর্বস্তরে বাংলা ভাষার প্রচলন বিষয়ে এবং বেতার ও টেলিভিশনে বাংলা ভাষার বিকৃত উচ্চারণ ও দূষণ রোধে উচ্চ আদালতের রুলসহ নির্দেশনা রয়েছে। বেতার ও টেলিভিশনে বিকৃত উচ্চারণ, ভাষা ব্যঙ্গ ও দূষণ করে অনুষ্ঠান প্রচার না করার নির্দেশ দেওয়া হয় এবং একটি রুল জারি করা হয়। কিন্তু রুলের নিষ্পত্তি হয়নি আজও।
দেশের সাধারণ মানুষ বাংলা ভাষাতেই কথা ও কাজ চালিয়ে থাকে। শিক্ষার মাধ্যম হিসেবেও বাংলা সুপ্রতিষ্ঠিত। কিন্তু দাফতরিক যোগাযোগ এবং বেসরকারি কিছু প্রতিষ্ঠানের লৈখিক তৎপরতায় ইংরেজি চলছে। এর একটি বড় কারণ ঔপনিবেশিক আমলের মানসিকতা। চিন, ফ্রান্স, রাশিয়া, জার্মানির মতো প্রভাবশালী রাষ্ট্র ও বুলগেরিয়া, তুরস্কের মতো কম প্রভাবশালী রাষ্ট্র প্রয়োজন ছাড়া ইংরেজি ব্যবহার করে না। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য হবে না কেন? বাংলা ভাষার নান্দনিক আবেগী শব্দ, গৌরব, বিজ্ঞানসম্মত রচনা শৈলী এবং বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত ইতিহাসও এ ক্ষেত্রে ইতিবাচক। আমরা ইংরেজি ভাষা শিক্ষা ও চর্চার বিরোধী নই। আমাদের উন্নতি করতে হলে ইংরেজি ভাষা চর্চা ও উন্নতভাবে শিখতে হবে। কিন্তু দেশের অভ্যন্তরে অফিসের ভাষা, ইংরেজি ব্যতীত শিক্ষার ভাষা, সাইন বোর্ড, বিল বোর্ডের ভাষা, পত্র যোগাযোগ, গণমাধ্যমের ভাষা অবশ্যই বাংলা হতে হবে।
বাঙালির হাজার বছরের সংস্কৃতির সাথে মিশে আছে বাংলা। বাংলা ও বাঙালি অবিচ্ছেদ্য। মাতৃভাষা মানুষের কাছে সবচেয়ে মধুর। মাইকেল মধুসূদন দত্ত প্রবাস জীবন ছেড়ে বাংলার টানে ফিরে আসেন। ইংরেজির বদলে বাংলায় সাহিত্য রচনা করেন। আমাদের দেশের ৬৮ ভাগ মানুষ শিক্ষিত। যদিও তাদের ইংরেজি জ্ঞানের গভীরতার কথা আমার অজানা নেই। দেশের আদালতে বর্তমানে মানুষের আনাগোনা বেশি। তারা বিভিন্নভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে শুধুমাত্র ভাষার কারণে। অন্যদিকে পথে-প্রান্তরে ইংরেজিতে কি লেখা আছে তাও তারা জানতে পারছে না। এমতাবস্থায় বাংলা ভাষা প্রচলন আইন অনুসারে সব ক্ষেত্রে অবিলম্বে বাংলা ভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।
লেখক: প্রাক্তন সভাপতি, ল স্টুডেন্টস ফোরাম, সাতক্ষীরা



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন