Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

অ্যান্টিবায়োটিক সেবনে সতর্ক হোন

ডা: মাও: লোকমান হেকিম | প্রকাশের সময় : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

বিশ্বব্যাপী অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারে শংকিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ বিষয়ে বিশ্ববাসীকে সচেতন করতে ডবিøওএইচও ২০১৮ সালের বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করে-অযথা অ্যান্টিবায়োটিক সেবন ক্ষতির কারণ, বিনা প্রেসক্রিপশনে তা কিনতে বারণ। অ্যান্টিবায়োটিক সেবনে আমাদের সবার সচেতন হতে হবে।
অ্যান্টিবায়োটিক কি? অ্যান্টিবায়োটিক কয়েক ধরনের জৈব-রাসায়নিক ঔষধ যা অণুজীবদের (বিশেষ করে ব্যাক্টেরিয়া) নাশ করে বা বৃদ্ধি রোধ করে। সাধারণত এক এক অ্যান্টিবায়োটিক এক এক ধরনের অণুজীব তৈরি করে ও অন্যান্য অণুজীবের বিরুদ্ধে কাজ করে। বিভিন্ন ব্যাক্টেরিয়া ও ছত্রাক অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি করে। ‘অ্যান্টিবায়োটিক’ সাধারণভাবে ব্যাক্টেরিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবহার হয়, ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করে না। তবে অ্যান্টিবায়োটিক হলো আরও বড় জীবাণুনাশক শ্রেণীর সদস্য, যার মধ্যে আছে নানা প্রকার অ্যান্টি-ভাইরাল (ভাইরাস-নাশক), অ্যান্টি-ফাঙ্গাল (ছত্রাক-নাশক) ইত্যাদি।
প্রকৃতিতেও বহু জীবাণুনাশক আছে যাদের অনেককেই এখনও ঔষধ হিসেবে পরীক্ষা করে দেখা হয়নি, যেমন ব্যাক্টেরিওসিন-ব্যাক্টেরিয়া দ্বারা নি:সৃত কাছাকাছি ধরনের ব্যাক্টেরিয়া-ঘাতক প্রোটিন টক্সিন (বিষ)। সাধারণভাবে অ্যান্টিবায়োটিক শব্দটি ক্ষুদ্র জৈব-রাসায়নিক পদার্থ বোঝায়, বৃহৎ প্রোটিন নয় বা অজৈব-রাসায়নিক অণু নয় (যেমন-আর্সেনিক)। আমাদের দেশে সামান্য জ্বর, কাশি, মাথাব্যথা কিংবা ডায়রিয়া। ভাবলেন চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার কী দরকার। স্থানীয় ফার্মেসীতে গেলেন। ফার্মেসিওয়ালা ডাক্তার নয়। রোগ সম্পর্কে তার জ্ঞান নেই। ওষুধ বিক্রি করতে গিয়ে নামেমাত্র ধারণা। সেই ধারণায় আপনাকে কিছু অ্যান্টিবায়োটিক দিলো। জ্বর হলে সাধারণত তিন দিন দেখতে হয়। তারপর রক্ত পরীক্ষা করানোর পর ওষুধ দিতে হয়। ভাইরাস জ্বর এমনিতেই সেরে যায়। সবসময় ওষুধ লাগে না। প্যারাসিটামল জ্বরের উত্তম ওষুধ। সাধারণ জ্বর, কাশি, সর্দি, ডায়রিয়ায় অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের কোনোই প্রয়োজন নেই। এটা চিকিৎসকদেরই কথা।
আমাদের দেশে ৯০ শতাংশ ওষুধ বিক্রি হয় চিকিসৎকের পরামর্শ ছাড়া। ফলে ওষুধের অপব্যবহার হয় বেশি। অ্যান্টিবায়োটিক খেলে কোর্স কমপ্লিট করতে হয়। না হলে ওই রোগে ওই অ্যান্টিবায়োটিক পরে কাজ করে না। ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ছত্রাক ও পরজীবীর মতো বিভিন্ন জীবাণুর ক্রমবর্ধমান প্রতিরোধী অবস্থা বা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স (এএমআর) এখন সারা বিশ্বেই উদ্বেগের বিষয়। অ্যান্টিবায়োটিক যখন তখন খাওয়া যায় না। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া তো নয়ই। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে বিধিবদ্ধ দিকনির্দেশনা নির্ধারণ করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চিকিৎসকদের যথাসম্ভব কম অ্যান্টিবায়োটিক দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছে। প্রয়োজনের তুলনায় কম, অতিরিক্ত মাত্রায়, মেয়াদোত্তীর্ণ অ্যান্টিবায়োটিক শরীরের মারাত্মক ক্ষতি করে। বছরে বিশ্বে ৭০ হাজার লোক মারা যায় রেজিস্ট্যান্স বা অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী জীবাণুর মাধ্যমে। কোর্স শেষ না করলে রোগীর দেহে জীবাণু থেকে যায়। কোনোভাবে এই জীবাণু অন্যদের দেহে প্রবশে করতে পারে। তখন ওই ব্যক্তিকে একই অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া যায় না। তাকে অন্য অ্যান্টিবায়োটিক দিতে হয়। যিনি কোর্স শেষ করলেন না, তার শরীরে ওই অ্যান্টিবায়োটিক সহসা কাজ করবে না। আগে সাতটা খেলে পড়ে কাজ হতো। এখন আরো বেশি খেতে হবে। কারণ, নির্বিচারে অ্যান্টিবায়োটিক সেবনে রেজিস্ট্যান্স বেশি হচ্ছে। কমমাত্রায় অ্যান্টিবায়োটিক এখন আর কাজ করছে না। বেশি মাত্রায় অ্যান্টিবায়োটিক দিতে হয় ডাক্তারদের । এটা বড়ই দুঃসংবাদ।
মফস্বলের গরিব মানুষ যারা, তারা বেশি অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহারের শিকার হচ্ছেন। কিছু ডাক্তার আছেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই অ্যান্টিবায়োটিক লিখে দেন। রোগীর ক্ষতির দিকটা মোটেই ভাবা হয় না। অ্যান্টিবায়োটিকের অযৌক্তিক ব্যবহার এর কার্যকারিতা কমিয়ে দিচ্ছে। বাড়িয়ে দিচ্ছে মৃত্যু ঝুঁকি। মুড়িমুড়কির মতো ওষুধ বিক্রি আমাদের দেশ ছাড়া কোথাও হয় না। কুসংস্কার আছে, অ্যান্টিবায়োটিক খেলে সব রোগ ভালো হয়। সে কারণে অনেকে কিছু না ভেবেই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করেন। ভুল ওষুধ সেবন শুধু রোগ বাড়িয়েই দেয় না, মৃত্যুর কারণও হতে পারে। জ্বরের সবচেয়ে কার্যকর ওষুধ প্যারাসিটামল। অথচ হরদম আমরা অ্যান্টিবায়োটিক খাচ্ছি। চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি যেসব ডাক্তার পরীক্ষা না করে অনুমান করে অ্যান্টিবায়োটিক দেন, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। নি¤œমানের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধে বাজার সয়লাব। এরা কারা? কোন সাহসে জনগণের স্বাস্থ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। এ অধিকার তাদের কে দিয়েছে। দ্রæত এসব ভুঁইফোড় কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। শুধু বড়দেরই নয়, অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহারের নির্মম বলী কোমলমতি শিশুরা। রাজধানীর শিশুরা বছরে গড়ে ১০ বারের বেশি অ্যান্টিবায়োটিক কোর্স সম্পন্ন করছে। সম্প্রতি আইসিডিডিআর পরিচালিত এক গবেষণায় এ তথ্য ওঠে এসেছে। কী ভয়ঙ্কর ব্যাপার। এর পরিণাম কতটা ভয়াবহ আমরা বোঝাতে পারছি না। একই অ্যান্টিবায়োটিক বারবার গ্রহণ করা হয়। ফলে একসময় এই অ্যান্টিবায়োটিক আর শরীরে কাজই করবে না। এমনটা যদি শিশুকালেই হয়, বড় হওয়ার পরে কী হবে ভাবা যায়! শিশুদের ভাইরাল ডায়েরিয়ায় অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের প্রয়োজন নেই। পরিশেষে এ সত্যটি মনে রাখুন-অ্যান্টিবায়োটিকের পরিমিত ব্যবহার করুন জীবন বাঁচান।

চিকিৎসক-কলামিস্ট
মোবা:০১৭১৬২৭০১২০



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অ্যান্টিবায়োটিক
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ