Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ০৭ ভাদ্র ১৪২৬, ২০ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

নজর কাড়ছে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক জীবন নিয়ে বই

নুর হোসেন ইমন | প্রকাশের সময় : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৩ এএম


অমর একুশে গ্রন্থমেলায় নজর কাড়ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবনের প্রথম ১৫ বছরের সংগ্রাম ও প্রচেষ্টার গল্প নিয়ে বই ‘কন্যা থেকে নেত্রী শেখ হাসিনা’। প্রধানমন্ত্রীর ১৯৮১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের নেত্রী হয়ে উঠার গল্প নিয়ে গবেষণামূলক গ্রন্থটি লিখেছেন ফয়েজ রেজা। মুক্তধারা থেকে প্রকাশিত হওয়া বইটি বিক্রির ধুম পড়েছে বলে জানান বিক্রয়কর্মীরা। দলীয় ও ব্যক্তি মতাদর্শের বাইরে থেকে নিরপেক্ষ বিশ্লেষণের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর জীবনের ২৩টি ঘটনা স্থান পেয়েছে বইটিতে। অমর একুশে গ্রন্থমেলায় মুক্তধারার ১-৩ নম্বর স্টলে পাওয়া যাচ্ছে বইটি। গবেষণায় লেখককে সহযোগিতা করেছেন তামান্না তাসমিয়া তুয়া ও সাজিদ রায়হান। আর প্রচ্ছদ সাজিয়েছে ডালেমি। নিজের লেখা বই সম্পর্কে ফয়েজ রেজা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক জীবন ঘিরে পত্রিকায় প্রকাশিত বিভিন্ন তথ্যের সম্বিলন ঘটেছে বইটিতে। বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের মানুষকে ঘিরে তার জীবনে ঘটে যাওয়া ১৫ বছরের ঘটনাপ্রবাহ এতে স্থান পেয়েছে।
শেখের বেটি হিসেবে রাজনীতিতে প্রবেশ করা শেখ হাসিনা ১৯৮১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত মাঠে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে কিভাবে মানুষের ভালোবাসা অর্জন করেছিলেন সে তথ্য তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে। দীর্ঘ রাজনৈতিক পথ পরিক্রমায় শেখ হাসিনা বারবার বাঁধার সম্মুখীন হয়েছেন, গৃহবন্ধি হয়েছেন, তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে, তারপরেও পিতার আদর্শ বাস্তবায়নে কিভাবে তিনি দৃঢ় ছিলেন এমন ২৩টি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা নিয়ে লেখা বইটি। এর মধ্যে আছে- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রথম সভানেত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর শেখ হাসিনার প্রথম দেশে ফিরে আসা, কেমন ছিল ১৯৮১ সালের বাংলাদেশের আর্থসামাজিক অবস্থা, ১৯৮১-৮২ সালের অর্থ-বাজেট, শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসার পর ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়ির অবস্থা কেমন ছিল, শেখ হাসিনার মা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিবের কথা, শেখ হাসিনার বাবা জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের কথা, একাত্তরে শেখ হাসিনার গৃহবন্ধি জীবনের কথা, দেশে ফেরার পর নতুন রাজনৈতিক দুর্যোগে তার পথ চলা, তখনকার রাজনৈতিক দৃশ্যপট, নব্বইয়ের গণঅভ্যুত্থানে আন্দোলন সংগ্রাম, তাকে বারবার হত্যার চেষ্টার ঘটনা, গণভোটে অংশ গ্রহণ, জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে গঠিত গণআদালতের প্রতি সমর্থন, বিভিন্ন নির্বাচনে অংশগ্রহণ, জাতীয় সংসদে বিরোধী দল হিসাবে তার অবস্থান ও ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে জয় লাভের পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রথম শপথ গ্রহণ পর্যন্ত ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা বিভিন্ন আঙ্গিকে বিশ্লেষণ করা হয়েছে কন্যা থেকে নেত্রী শেখ হাসিনা বইটিতে। শেখ হাসিনা মানে তিনি একা নন, তার সাথে মিশে আছে এদেশের মানুষের স্বপ্ন, আশা-আকাঙ্খা, সংকট ও সম্ভাবনা। তাই এ বইয়ের মাধ্যমে মানুষের এসব কথাও উঠে এসছে। প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে লেখা অন্যান্য বইয়ের সাথে তথ্যে মিল থাকলেও এ বইয়ের নির্মাণ পদ্ধতি ভিন্ন বলে জানান লেখক। তার ভাষায় বইটির মাধ্যমে একটি বড় ঘর নির্মাণের চেয়ে একটি ছোট মজবুত ঘর বানানোর চেষ্টা করা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই বাদ পড়েছে অনেক তথ্য। বাদ পড়া এসব তথ্য না থাকলেও শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবনের প্রথম পনের বছর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে বইটিতে।
সমাজ পরিবর্তনের বইয়ের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ-পারভিন রেজা
গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের স্ত্রী লেখক পারভিন রেজা সমাজ পরিবর্তনের বইয়ের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করে প্রতিটি মানুষের হাতে বই তুলে দিতে আহŸান জানান। গতকাল শুক্রবার গ্রন্থমেলায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ মন্তব্য করেন। পারভিন রেজা বলেন, ছোট বেলা থেকেই আমি লেখালিখি শুরু করি। ক্লাস ফাইভে পড়ার সময় আমার প্রথম কবিতা প্রকাশ পায়। খুলনাতে দৈনিক অর্ণিবাণ পত্রিকায় প্রকাশিত কবিতার নাম একটু সঙ্গ দিতে। বিয়ের পর আমার স্বামী শ ম রেজাউল করিমের অনুপ্রেরণায় ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত হয় প্রথম কাব্যগ্রন্থ নীহারিকা। পারভিন রেজার প্রকাশিত অন্যান্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে, এবং যুদ্ধ (নাটক), ডানা ভাঙ্গা পাখি (কাব্যগ্রন্থ), প্রিয়জন (গল্পগ্রন্থ), প্রিয় শিমুল (কাব্যগ্রন্থ), নোনাজল (কাব্যগ্রন্থ), এ বছরের গ্রন্থমেলায় তার ডাকাতিয়া জয়+পদ্মপাতা কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।
গতকাল সাপ্তাহিক ছুিটর দিনে গ্রন্থমেলা চলে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। গ্রন্থমেলায় এদিন ছিল শিশুপ্রহর। গতকাল মেলায় নতুন বই আসে ৩১৪টি। সকাল সাড়ে ১০টায় অমর একুশের উদযাপনের অংশ হিসেবে শিশু-কিশোর চিত্রাঙ্কন, সংগীত প্রতিযোগিতা, সাধারণ জ্ঞান ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিশু-কিশোরদের পুরস্কার প্রদান করা হয়। পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদ। শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করে বাংলা একাডেমির সচিব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য পত্রিকার শতবর্ষ : ফিরে দেখা শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. মাহবুবুল হক। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন সাইফুদ্দীন চৌধুরী, আলী হোসেন চৌধুরী এবং এম আবদুল আলীম। সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক আবুল আহসান চৌধুরী। গতকাল লেখক বলছি অনুষ্ঠানে নিজেদের নতুন প্রকাশিত গ্রন্থ নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন আলমগীর রেজা চৌধুরী, মোস্তফা সেলিম, মোহাম্মদ সেলিম, সাধনা আহমেদ এবং খন্দকার স্বনন শাহরিয়ার। কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ করেন কবি কুমার চক্রবর্তী, জাহানারা পারভীন, মুস্তাফিজ শফি, মাহবুব আজীজ, তুষার কান্তি দাশ, মাজুল হাসান, প্রত্যয় জসীম এবং আয়শা ঝর্ণা। আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তিশিল্পী ফয়জুল আলম পাপ্পু এবং মো. মাহমুদুল হাকিম। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ছিল লায়লা হাসানের পরিচালনায় নৃত্য সংগঠন ‘নটরাজ’; সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘ক্রান্তি শিল্পীগোষ্ঠী’, নাঈম হাসান সুজার পরিচালনা নৃত্যসংগঠন ‘নৃত্যজন’ এবং ইমন চৌধুরীর পরিচালনায় নৃত্যসংগঠন ‘ফাল্গুনী সামাজিক ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন সংস্থা’র শিল্পীবৃন্দের পরিবেশনা।
আজকের কর্মসূচি :
আজ শনিবার মেলা চলবে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় সকাল ১১টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত মেলায় শিশুপ্রহর থাকবে। বিকেল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশের প্রকাশনা : অতীত ও বর্তমান শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন মাহরুখ মহিউদ্দিন। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন ফরিদ আহমেদ, মোহাম্মদ ইশতাক হোসেন এবং এ এফ এম হায়াতুল্লাহ। সভাপতিত্ব করবেন অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান। সন্ধ্যায় রয়েছে কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ, কবিতা-আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ