Inqilab Logo

বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৫ মাঘ ১৪২৮, ১৫ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

রাজনৈতিক কোটায় ৭০ শতাংশ পিপি

সাংবাদিকদের আইনমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বর্তমানে ১০০ শতাংশ পিপি (পাবলিক প্রসিকিউটর) নিয়োগ হয় রাজনৈতিক কোটায়। তবে সরকারের চলতি মেয়াদে ৩০ শতাংশ পিপি নিয়োগ হবে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে। বাকি ৭০ শতাংশ নিয়োগ হবে রাজনৈতিক কোটায়।
গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিউইয়র্ক স্টেট গভর্নরের ২৫ সেপ্টেম্বরকে বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ডে এর ঘোষণাপত্র হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এস কথা বলেন। আইনমন্ত্রী বলেন, জিপি অথবা পিপিদের বেতন ভাতা বাড়ানোর প্রস্তাবটি সক্রিয় বিবেচনায় আছে। আশা করছি আগামী ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের ১ জুলাই থেকে তা কার্যকর হবে। এজন্য বাড়তি ২৬৭ কোটি টাকা লাগবে। ইতোমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী উভয়ের সঙ্গেই কথা বলেছি।
আইনমন্ত্রী আরও বলেছেন, জামায়াত যে নামেই আসুক তাদের কোনও নেতা যদি যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকে তাহলে তাকে অবশ্যই কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। তিনি আরো বলেন, প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজের বিষয়টি তদন্ত হচ্ছে। তাই এই বিষয়ে আমি কোনও মন্তব্য করবো না। এতে তদন্ত কাজ ব্যাহত হতে পারে।
এদিকে দুপুরে সুপ্রিম কোর্টে প্রাঙ্গনে সলিসিটর অনুবিভাগে ই-ফাইলিং সেবা কার্যাক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আইন মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বিচার বিভাগের আসল উদ্দেশ্য হলো বিচারপ্রার্থী জনগণের কাছে তড়িৎ বিচার পৌঁছে দেয়া। আমরা যদি তা না পারি কিংবা সুষ্ঠু বিচার করতে না পারি তাহলে সেটা হবে বিচার বিভাগের ব্যর্থতা। এটি হলে জনগণ বিচার বিভাগের কাছে আসবে না এবং স্ট্রিট জাস্টিস প্রথা চালু হয়ে যাবে।
সারা দেশের বিচার বিভাগকে তথ্য প্রযুক্তির সঙ্গে সম্পৃক্ত করা হবে। এজন্য ই-জুডিসিয়ারি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। মন্ত্রী আরো বলেন, ই-জুডিশিয়ারির একটা ধাপ ই-ফাইলিং চালু হয়েছে। আইন মন্ত্রণালয় খুব ধীর গতিতে এই প্রযুক্তির সঙ্গে সম্পৃক্ত হবে এই কারণে যে, আইনের বিষয়গুলো সঠিকভাবে পৌঁছে দিতে পারবো কি না, সেটা আগে আমাদের শিখতে হবে। আমাদের হয়তো কিছুটা সময় লাগবে। আমরা অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে এগুচ্ছি। একমাসের মধ্যে অ্যাটর্নি জেনারেল অফিস ও সলিসিটর অফিস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে বলেও তিনি জানান। এর আগে আইনমন্ত্রী ই-ফাইলিং পদ্ধতি উদ্বোধন করেন।



 

Show all comments
  • Mohammad Wahid Rana ২৬ নভেম্বর, ২০২০, ১০:৩২ পিএম says : 0
    তরুণ প্রজন্মের আইনজীবীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রসিকিউটর নিয়োগ দিলে তারা ডিজিটাল আদালতে অন্যতম সহায়ক হওয়ার সম্ভব হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আইনমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ