Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ০৯ ভাদ্র ১৪২৬, ২২ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

প্রশ্ন : নানা জীবিত থাকতে মা ইন্তেকাল করলে নাতী/নাতনী নানার সম্পত্তির ওয়ারিশ থাকবে কি না জানতে চাই।

আরিফ
বরিশাল

প্রকাশের সময় : ৪ মার্চ, ২০১৯, ১২:২০ এএম

 উত্তর : থাকবে না। কারণ, মা সম্পত্তির মালিক হওয়ার আগেই মারা গিয়েছেন। তবে, এক্ষেত্রে একটি পদ্ধতি আছে, যা প্রয়োগ করা নানার দায়িত্ব ছিল। তিনি ইচ্ছা করলে মায়ের পাওনার পরিমাণ বা কিছু কম বেশি (তা অবশ্যই যেন মোট সম্পত্তির এক তৃতীয়াংশের অধিক না হয়।) অসীয়ত করে যেতে পারতেন। তাহলে বঞ্চিত নাতী/নাতনীরা কিছু পেয়ে যেত। এ বিষয়ে সচেতনতা বা জ্ঞান না থাকায় বঞ্চিতরা কষ্ট পায়, আবার অনেকে ইসলামের উত্তরাধিকার বিধান সম্পর্কে উল্টা পাল্টা মন্তব্য করে। তবে, যুক্তি খুবই সহজ। কেননা, যে মুরব্বীর মৃত্যুর পর তার বেঁচে থাকা সন্তানাদি সম্পত্তি পায়, সেখানে যে সন্তান আগেই মারা গেছে কিংবা যে সন্তান হয়ইনি তারা কীভাবে পেতে পারে? এখানে পাওয়ার শরীয়তি পন্থা হচ্ছে দাদার অসীয়ত এবং তার রেজিষ্ট্রি করে দিয়ে দেওয়া।

সূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতাওয়া বিশ্বকোষ।
উত্তর দিয়েছেন : আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভী

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
inqilabqna@gmail.com



 

Show all comments
  • Faysal Mahmud ৪ মার্চ, ২০১৯, ১২:১৬ পিএম says : 0
    Hujur ke thanks
    Total Reply(0) Reply
  • ইয়াসিরআরাফাতসাগর ১২ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৭ এএম says : 0
    আমি অনেক উপকৃত হইলাম উত্তর পড়ে
    Total Reply(0) Reply
  • বাবু ৮ এপ্রিল, ২০১৯, ৩:৪৭ পিএম says : 0
    মুসলিম পারিবারিক আইন ১৯৬১ (যা স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে কার্যকর হয়েছে) এর বিধান মতে নানা জীবিত থাকতে মা ইন্তেকাল করলেও নাতী/নাতনী নানার সম্পত্তির ওয়ারিশ থাকবে। বিবরণ নিম্নরূপ- ১৯৬১ সালে ১৫ জুলাই পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খাঁন মুসলিম পারিবারিক আইন করেন। উক্ত আইন আজও বাংলাদেশে কার্যকর আছে। উক্ত আইনের ৪ ধারায় বলা হয়েছে যে, যার সম্পত্তি বণ্টন করা হবে তার মৃত্যুর পূর্বে, তার কোন পুত্র বা কন্যা মারা গেলে মৃত পুত্র বা কন্যার যদি সন্তান থাকে তবে তার অংশ পাবে যতটুকু তার পিতা বা মাতা বেঁচে থাকলে পেত। এখানে প্রসংগত উল্লেখ যে, পূর্বে মৃত পুত্র বা কন্যার সন্তানগণ তাদের পিতা বা মাতার স্থলাভিসিক্ত হবে, কিন্তু তাদের স্বামী বা স্ত্রী কিছুই পাবে না। মুসলিম পারিবারিক আইন শুধিুমাত্র নিম্ন লিখিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। যথা- ১. প্রত্রের পুত্র বা কন্যা। ২.কন্যার পুত্র বা কন্যা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রশ্ন :


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ