Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

ফের ফুটপাথ দখল

সপ্তাহ না ঘুরতেই হকারের আনাগোনা গুলিস্তান-মতিঝিলে

স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ৮ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৯ এএম

রাজধানীর যানজট দূর করার লক্ষে ফুটপাত হকার মুক্ত করার উদ্যোগ আবারও ভেস্তে গেল। ফুটপাত থেকে হকারদের উচ্ছেদ করার মাত্র দশ বার দিনের মাথায় আবারও তাদের দখলে চলে গেল। রাজধানীর দৈনিক বাংলার মোড়ে বা মতিঝিলি দাঁড়িয়ে তাকালে দেখা যায়, পুরো ফুটপাতের দুই পাশে হকাররা আবার পসরা সাজিয়ে বসেছে। মতিঝিলে শাপলার মোড়ে ফুটপাতের মাঝখানে দেড়-দুই ফুট ফাঁকা রেখে হকাররা দোকান সাজিয়ে বসে আছে, তাতে ক্রেতাদের ভিড়। এই অবস্থায় পথচারী চলাচলের অবস্থা একেবারেই নেই। ফুটপাতের এ অবস্থায় বাধ্য হয়ে অনেকে মূল রাস্তা ধরে চলতে গিয়ে যানজট সৃষ্টির পাশাপাশি নানা দুর্ঘটনার আশঙ্কাও তৈরী হয়।
মতিঝিলের পাশাপাশি বায়তুল মোকাররম, পল্টন, গুলিস্তান এলাকায় রাস্তার দুই পাশের ফুটপাতে ছোট ছোট চৌকিতে সাজানো পসরা। এসব চৌকিতে বিক্রি হচ্ছে নানা পণ্য। ফুটপাত দখল করে অনেক স্থানে মূল রাস্তায় নেমেছেন হকাররা। এর মধ্য দিয়ে কোনো রকমে এঁকেবেঁকে চলছেন পথচারীরা।
পথচারীদের এই দুর্ভোগ থেকে মুক্তি দিতে নানা চেষ্টা ও উদ্যোগ ব্যর্থ হয়েছে একাধিকবার। গত দুই বছরে বারবার চালানো হয়েছে হকার উচ্ছেদ অভিযান। এর মধ্যে ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে চালানো হয় সবচেয়ে বেশি আলোচিত উচ্ছেদ অভিযান। তখন সিদ্ধান্ত হয়, হকাররা কেবল শুক্র ও শুনিবার দিনভর আর কর্মদিবসে অফিস ছুটির পর কিছু এলাকায় বসবেন। এ সিদ্ধান্ত কিছুদিন খুব কড়াকড়িভাবে পালন করার পর আবারও তা শিথিল হয়ে পরে এবং ফুটপাত আবার দখল হয়ে পড়ে।
বর্তমান সরকার পুনরায় ক্ষমতায় আসার পর আবারও ফুটপাত হকার মুক্ত করার উদ্যোগ নেয় এবং রাজধানীর ফুটপাত হকারমুক্ত করা হয়। প্রথম প্রথম কড়াকড়ি থাকায় পথচারীরা কয়েকদিন স্বচ্ছন্দে পথ চলতে পারছিল। কিন্তু অতীতের নানা সময়ে যা ঘটেছে, এবারও তাই হলো। ধীরে ধীরে আলগা হয়েছে বাঁধন। ফুটপাত আবারও চলে গেল হকারদের দখলে।
মতিঝিল, ফকিরাপুল, দৈনিক বাংলা, বায়তুল মোকাররম, পল্টন, গুলিস্তান, বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ, বাবুবাজার, ফুলবাড়িয়া, ফকিরাপুল এলাকার রাস্তায় ফুটপাত দখল করে গতকাল হকারদের পণ্য বিক্রি করতে দখা গেছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ