Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

পুনর্বাসন না করে হকার ও কেমিক্যাল গোডাউন উচ্ছেদে বেকার বাড়বে মূল্যবৃদ্ধি হবে : চরমোনাই পীর সাহেবের প্রতিবাদ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৮ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৪ এএম

পুনর্বাসন না করে হকার ও কেমিক্যাল গোডাউন উচ্ছেদের প্রতিবাদ করেছেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই। গতকাল এক প্রতিবাদে তিনি বলেন, হকারদের ও কেমিক্যাল গোডাউন পুনর্বাসন ছাড়া উচ্ছেদ করা চরম অমানবিক। এতে জিনিসপত্রের মূল্য বৃদ্ধি পাবে। হকারসহ অনেক শ্রমিক বেকার হবে। একজন হকার এবং একজন ব্যবসায়ীর সাথে কেবল একটি পরিবারই নয়, বরং এর সাথে জড়িত দেশের বৃহৎ একটি ক্রেতাগোষ্ঠী। তিনি বলেন, দেশে তৈরি এবং বিদেশ থেকে আসা অনেক পণ্য হকাররা ক্রেতার কাছে পৌঁছে দেয়। দেশে অনেক ছোট ছোট গার্মেন্টস আছে, যারা হকারদের ওপর নির্ভরশীল। হকার উচ্ছেদ হলে বন্ধ হয়ে যাবে এসব ব্যবসা। ফলে লাখ লাখ শ্রমিক ও হকার বেকার হয়ে দেশের জন্য অভিশাপ হিসেবে দেখা দেবে। তাই পুনর্বাসনের পূর্বে উচ্ছেদ করা অমানবিক। পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, কোন হকারই রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে হকারি করতে চায় না। পরিবার পরিজনের ভরণপোষণের জন্যই নিরুপায় হয়ে তারা হকারি করে। পীর সাহেব পুনর্বাসনের কাজ দ্রæত ত্বরান্বিত করার জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন।

মেননের বক্তব্য ধর্মীয় অনুভুতিতে চরম আঘাত -মহাসচিব ইসলামী আন্দোলন
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ রাশেদ খান মেননের দেয়া জাতীয় সংসদের বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ইসলামী শিক্ষা, আল্লামা শফী সাহেবসহ আলেম-ওলামাদের কটাক্ষ, ইসলামী শাসনকে মোল্লাতন্ত্র বলে মেননের বক্তব্য মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভুতিতে চরম আঘাত।
এই বক্তব্য দিয়ে মেনন গংরা নিজেদেরকে নাস্তিক্যবাদী ও কাদিয়ানীদের দোসর হিসেবে আবারো প্রমাণ করেছে। তিনি বলেন, কওমি মাদরাসার সাথে এদেশের আপামর জনগণের আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে। সৎ, যোগ্য ও ধর্মপ্রাণ নাগরিক তৈরির স্থান কওমি মাদরাসাকে রাশেদ খান মেনন 'বিষবৃক্ষ' বলে ধর্মপ্রাণ কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ে প্রতিবাদের আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছে। সরকার স্বীকৃত কওমি মাদরাসাকে বিষবৃক্ষ আখ্যায়িত করে মেননরা রাষ্ট্রবিরোধী অপরাধ করেছে। এজন্য রাশেদ খান মেননকে গ্রেফতার করে কঠোর বিচার করতে হবে। অন্যথায় ঈমানদার জনতার প্রতিবাদের আগুন জ্বলে ওঠবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন