Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।
শিরোনাম

লক্ষীপুরে সরকারি সুবিধাবঞ্চিত ২৪ হাজার জেলে

লক্ষীপুর থেকে এস এম বাবুল (বাবর) | প্রকাশের সময় : ৯ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধি ও জাটকা রক্ষায় মার্চ-এপ্রিল দুই মাস লক্ষীপুরের রামগতি থেকে চাঁদপুরের ষাটনল পর্যন্ত মেঘনা নদীর ১০০ কিলোমিটার এলাকায় মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জরি করে সরকার। ২৮ ফেব্রুয়ারি মধ্যরাত থেকে লক্ষীপুরের জেলেরা মেঘনার মাছ ধরা থেকে বিরত রয়েছে। বিকল্প কোনো কর্মসংস্থান না থাকায় জেলার ৫০ হাজারেরও বেশি জেলে এখন অলস সময় পার করছেন। নদীতে মৎস্য বিভাগ, কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশের টহল দিতে অব্যাহত রয়েছে। রামগতির আলেকজান্ডার মাছঘাট, কমলনগরের মতিরহাট মাছঘাট, রামগতি উপজেলার রামগতি বাজার মাছঘাটে নেই ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়, নেই সরগরম। আড়ৎদার ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।
লক্ষীপুরের মেঘনায় মাছ ধরা থেকে বিরত থাকা প্রায় ২৪ হাজার জেলে সরকারি খাদ্য সহায়তা বঞ্চিত। একদিকে নদীতে মাছ শিকার বন্ধ, অন্যদিকে বিকল্প কর্মসংস্থানও নেই। এমন পরিস্থিতিতে চরম দুর্দিনে আছেন জেলে পরিবারগুলো।
লক্ষীপুরে সরকারি হিসাবে ৪৯ হাজার ৫৫৮ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছেন। জাটকা রক্ষা ও মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে দুই মাস নদীতে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। মাছ ধরা থেকে বিরত থাকা জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় চাল দিচ্ছে সরকার। নিবন্ধিত জেলেদের মধ্য থেকে ২৫ হাজার ৯৪৭ জন এ সুবিধা পাবেন। বাকি ২৩ হাজার ৬১১ জন জেলে বিগত বছরগুলোর ন্যায় এ বছারও সরকারি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
লক্ষীপুর জেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা গেছে, লক্ষীপুর সদর উপজেলায় নিবন্ধিত জেলে ৭ হাজার ৫১৭ জন, খাদ্য সহায়তা পাচ্ছেন ৩ হাজার ২৪৫ জন। রায়পুর উপজেলায় নিবন্ধিত জেলে ৭ হাজার ২২৩ জন, খাদ্য সহায়তা পাচ্ছে ৪ হাজার ১৯৬ জন। কমলনগর উপজেলায় নিবন্ধিত জেলে ১৪ হাজার ১০০জন, খাদ্য সহায়তা পাচ্ছে ৭ হাজার ১৪১ জন। রামগতি উপজেলায় নিবন্ধিত জেলে ২০ হাজার ২১৮ জন, খাদ্য সহায়তার আওতায় রয়েছেন ১১ হাজার ২৬৫ জন জেলে।
বঞ্চিত জেলেরা বলছেন, আমরা নদীতে মাছ শিকারে যেতে পারবো না। সরকারি সাহায্যও পাবো না, তবে আমরা খাবো কি? বাঁচবো কিভাবে? জেলেদের অভিযোগ জনপ্রতিনিধিদের পক্ষপাতিত্ব, স্বজনপ্রীতি ও রাজনৈতিক বিবেচনার কারণে তারা খাদ্য সহায়তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। অন্যদিকে জনপ্রতিনিধিদের বক্তব্য, পর্যাপ্ত বরাদ্দ না থাকায় জেলেরা বঞ্চিত হচ্ছেন।
কমলনগর উপজেলার পাটারিরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম নুরুল আমিন রাজু বলেন, তার ইউনিয়নে ৩ হাজার ৬২৬ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৪৬২ জন জেলের জন্য চাল বরাদ্দ হয়েছে। অন্যরা চাল থেকে বঞ্চিত রয়েছে। বরাদ্দ সীমিত, এ বিষয়টি জেলেদের বোঝানো অসম্ভব। এতে জনপ্রতিনিধিরা বির্তকিত হন ও সমালোচনার মধ্যে পড়েন। আমরা পর্যাপ্ত বরাদ্দের জন্য দাবি জানিয়ে আসছি। জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে সব জেলেকে নিবন্ধন তালিকায় আনার জন্য দাবি জানান তিনি।
লক্ষীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এইচ এম মহিব উল্লাহ বলেন, ৪৯ হাজার ৫৫৮ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৫ হাজার ৯৪৭ জন এ সুবিধা পাচ্ছেন। তারা ফেব্রুয়ারি থেকে চার মাস ৪০ কেজি করে চাল পাবেন। অনিবন্ধিত জেলেরা যাতে খাদ্য সহায়তা পায় সে ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে।

 

নিষিদ্ধ সময়ে মাছ ধরায় ৬ জেলের কারাদন্ড
চাঁদপুর থেকে স্টাফ রিপের্টার
চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নে পদ্মা-মেঘনায় অভিযান করে ৫ হাজার মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল, ১টি নৌকা, ৫ কেজি জাটকা মাছ জব্দ ও ৬ জন জেলেকে আটক করেছে নৌ থানা পুলিশ।
চাঁদপুর নৌ থানার ওসি মো. আবু তাহের খান জানান, গতকাল শুক্রবার পদ্মা-মেঘনায় কয়েক ঘন্টা অভিযান করে কারেন্ট জাল, নৌকা, জাটকাসহ ৬ জেলেকে আটক করা হয়। পরে আটকৃত ইয়াছিন সর্দার, বিল্লাল পেদা, আনোয়ার হোসেন, শাহেদ আলী বেপারী, রশিদ সরকার, নিজাম ওসমান সরকারকে মোবাইল কোর্টে কারাদন্ড প্রদান করা হয়।
জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অলিদুজ্জামান বলেন, চাঁদপুর নৌ থানায় মোবাইল কোর্ট বসিয়ে আটককৃত প্রত্যেক জেলেকে মৎস্য সংরক্ষণ আইনে ১ মাসের করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া জব্দকৃত জালগুলো আগুনে পুড়িয়ে বিনষ্ট করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইলিশ


আরও
আরও পড়ুন