Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

ইলিয়াস কাঞ্চনের পর এবার শাহজালালে পিস্তল নিয়ে ঢুকলেন মামুন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ মার্চ, ২০১৯, ৮:৩৩ এএম

ইলিয়াস কাঞ্চনের পর হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এবার পিস্তল নিয়ে ঢুকলেন মামুন আলী নামে এক যাত্রী। শুক্রবার (৮ মার্চ) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিমানবন্দর সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে প্রথম চেকিং পার হওয়ার পর নিজের কাছে অস্ত্র থাকার কথা স্বীকার করেন মামুন আলী।
ওই কর্মকর্তা আরও জানান, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিএস-১৩১ ফ্লাইটে সিলেটে যাওয়ার জন্য বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে আসেন মোহাম্মদ মামুন আলী। তার সঙ্গে পিস্তল ও সাত রাউন্ড গুলি থাকলেও বিমানবন্দরে প্রবেশের সময় কোনো ঘোষণা না দিয়েই ভেতরে ঢোকেন তিনি। অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের প্রথম গেটের আর্চওয়েতে তার শরীর তল্লাশি করেন আনসার সদস্য রিপন। আর্চওয়ে পার হওয়ার পরেও মামুনের সঙ্গে থাকা অস্ত্র প্রথমে শনাক্ত হয়নি। এ সময় ইউএস-বাংলার ওই যাত্রী মামুন নিরাপত্তাকর্মীদের কাছে জানতে চান, আপনাদের চেকিং কি শেষ হয়েছে?’
দায়িত্বরত আনসার সদস্য জবাবে ‘হ্যাঁ’ বললে যাত্রী মামুন বলেন, আপনি কী চেক করলেন? আমার কাছে তো পিস্তল আছে। এরপর তিনি পিস্তল বের করেন এবং লাইসেন্সও দেখান।
এ ঘটনার পর সেখানে উপস্থিত হন হযরত শাহজালাল (রা.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অ্যাভিয়েশন সিকিউরিটির (এভসেক) পরিচালক নূরে আলম সিদ্দিকী। সে সময় এভসেক থেকে ইউএস-বাংলাকে বলা হয়, ওই যাত্রীকে অফলোড করার জন্য। তবে এভসেক থেকে লিখিত কোনো ডকুমেন্ট না দেওয়ায় মামুন আলীকে অফলোড করেনি ইউএস-বাংলা। পরবর্তীতে যাত্রী মামুন পিস্তল ও গুলি এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে নিয়ম মেনে সঙ্গে করে সিলেটে নিয়ে যান।
এ বিষয়ে নূরে আলম সিদ্দিকী গণমাধ্যমকে বলেন, মামুন আলীর ভুল হয়েছে বলে তিনি স্বীকার করেছেন। বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এখানে নিরাপত্তার কোনো ঘাটতি নেই।
এ বিষয়ে মোহাম্মদ মামুন আলীর বক্তব্য জানার জন্য তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।
উল্লেখ্য, এর আগে গত মঙ্গলবার (৪ মার্চ) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পিস্তল-গুলি নিয়ে প্রবেশ করেন চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। এ ঘটনায় বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষ বিষয়টির জন্য দোষারোপ করছেন ইলিয়াস কাঞ্চনকে। ওই ঘটনায় ইলিয়াস কাঞ্চনের দেওয়া বক্তব্যের প্রতিবাদ করেছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়।
বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ওই ঘটনা প্রসঙ্গে ইলিয়াস কাঞ্চন গণমাধ্যমকে অসত্য কথা বলছেন।



 

Show all comments
  • Nadim ahmed ৯ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫০ পিএম says : 0
    Why head of the aviation security, Nur e Alam not suspended yet? He will not step back of course as he is a Bengali. Bengalis do not step bacp by accepting failure. This is not in their tradition. They are shameless.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিমানবন্দর


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ