Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬, ২৩ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

নরসিংদীর সিংহপুরুষ আব্দুল আলী মৃধার ইন্তেকাল

সরকার আদম আলী, নরসিংদী থেকে : | প্রকাশের সময় : ১০ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

নরসিংদী রাজনৈতিক অঙ্গনের সিংহপুরুষখ্যাত রায়পুরার সাবেক এমপি, বীর মুক্তিযোদ্ধা, জননেতা আব্দুল আলী মৃধা আর বেঁচে নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রজিউন। রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৭ বছর। তিনি স্ত্রী, এক কন্যা ও দুই পুত্রসহ অসংখ্য রাজনৈতিক অনুসারী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছে।
তার মৃত্যুর খবরে রায়পুরাসহ সারা নরসিংদীতে শোকের ছায়া নেমে আসে। শহর থেকে গ্রামাঞ্চল পর্যন্ত মানুষের মধ্যে হাহাকার পড়ে যায়। শোকের মাতম শুরু হয় নরসিংদীর রাজনৈতিক অঙ্গনে।
গতকাল শনিবার সকাল ১১টায় নরসিংদী সরকারি কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত হয় মরহুম আব্দুল আলী মৃধার প্রথম নামাজে জানাজা। এখানে নামাজ পূর্ব সমাবেশে মরহুমের রাজনৈতিক স্মৃতিচারণ করে বক্তৃতা করেন, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাহ উদ্দিন ইরান, শহর বিএনপির সভাপতি এ কে এম গোলাম কবির কামাল, সাধারণ সম্পাদক ফারুক উদ্দিন ভূঁইয়া, বিএনপি নেতা তারেক আহাম্মেদ তারেক, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি মো. জলিল, জেলা বিএনপি›র যুগ্ম-সম্পাদক হারুনুর রশীদ হারুন। মরহুমের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয় রায়পুরায় সিরাজনগর হাইস্কুল মাঠে। এখানে জানাজায় অংশ নেন রায়পুরার এমপি সাবেক মন্ত্রী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আফজাল হোসেন, রায়পুরা পৌর মেয়র জামাল মোল্লা, রায়পুরা উপজেলা বিএনপির সভাপতি নেছার আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান খোকন প্রমূখ। তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় বালুয়াকান্দি মাদ্রাসা মাঠে। এখানে জানাজা শেষে মরহুম আব্দুল আলী মৃধাকে বালুয়াকান্দি গোরস্থানে দাফন করা হয়।
বর্ষিয়ান রাজনীতিক আব্দুল আলী মৃধা রায়পুর উপজেলার করিমগঞ্জ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন নরসিংদী ব্রাহ্মন্দী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে। কলেজ জীবনে তিনি ছাত্র ইউনিয়ন মেনন গ্রুপের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।
৭০ দশকের শেষ দিকে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের অনুপ্রেরণায় গঠিত জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক যুবদলে যোগদান করেন তিনি। একই সময়ে তিনি নরসিংদী জেলা বিএনপির সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি নরসিংদী জেলা যুবদলের আহ্বায়ক এবং যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ছিলেন। পরে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি, নরসিংদী জেলা শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। একই সময়ে তিনি বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন। পরে তিনি জাতীয়তাবাদী তাঁতী দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন।
নব্বইয়ের দশকে তৎকালীন সরকার বন্ধ করে দিলে তিনি দৈনিক ইনকিলাব চালুর দাবিতে রাজপথে আন্দোলন করেন। এরশাদ সরকারের আমলে দীর্ঘদিন কারাভোগ করেন তিনি। মুক্তি পাওয়ার পর তিনি ১৯৯০ সাল পর্যন্ত এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। রাজপথের নেতাখ্যাত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আলী মৃধা ছিলেন অনলবর্ষী বক্তা। মৌলিক দিক থেকে আব্দুল আলী মৃধা ছিলেন আধিপত্যবাদবিরোধী একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক জাতীয়তাবাদী নেতা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ