Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ১৩ বৈশাখ ১৪২৬, ১৯ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

আঁচিল নিয়ে সমস্যা?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

আঁচিল নিয়ে খুবই সমস্যায় পড়তে হয়। এটা কালো বা বাদামি রঙের হয়। বিশেষ করে হাতে বা মুখে আঁচিল হলে অনেক সময় তা উটকো সমস্যা হয়ে দেখা দেয়। নাক, ঠোঁটের উপর, মুখের অন্য স্থানে আঁচিল মেয়ে বা পুরুষের ব্যাপক সৌন্দর্য হানিরও কারণ হয়ে থাকে। ডাক্তার-কবিরাজ ধরে বহু টাকা ব্যয় করেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এই আঁচিল থেকে নিস্তার মেলে না। অনেকে এ থেকে নিষ্কৃতি পেতে হোমিওপ্যাথি ওষুধও খান। কিন্তু টাকা খরচ করে ওষুধ না খেয়ে ঘরোয়া জিনিস দিয়েও আঁচিল থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কীভাবে তা জেনে নিন।
অ্যাপল সিডার ভিনিগার : ভিনিগারে ভেজানো তুলো আঁচিলের উপর রেখে দিন সারা রাত। পাঁচ দিন এ রকম করুন। অ্যাপল সিডার ভিনিগারে প্রচুর অ্যাসিড রয়েছে। এই অ্যাসিড প্রাকৃতিক ভাবে জড়–ল পুড়িয়ে দেয়। ফলে জড়ুলের বৃদ্ধি রদ হয়।
অ্যালোভেরা : একটা অ্যালোভেরা পাতা কেটে নিন। ভিতরের থকথকে জেলিটা ওই জায়গায় লাগিয়ে দিন। কয়েকদিন লাগালেই জড়–ল শুকিয়ে যাবে। নিজে থেকে ঝরেও যাবে। অ্যালোভেরার মধ্যে থাকা ম্যালিক অ্যাসিড এই ম্যাজিক দেখাবে।
বেকিং পাউডার : ক্যাস্টর অয়েল এবং বেকিং পাউডারের একটি মিশ্রণ তৈরি করে ফেলুন। মিশ্রণটা আঁচিলের উপর ভাল করে লাগিয়ে বেঁধে রাখুন জায়গাটা। সারা রাত এভাবে রাখুন। দু-তিন দিন পর থেকেই ফল পেতে শুরু করবেন। ক্রমশ আঁচিল অদৃশ্য হয়ে যাবে।
রসুন : আঁচিল দূর করতে রসুন খুবই উপকারি। রসুনে রয়েছে অ্যালিসিন। অ্যালিসিন অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল। রসুন থেঁতো করে আঁচিলের জায়গায় লাগালে উপকার পাওয়া যায়।
কলার খোসা : কলা খেতে ভালবাসেন? খান। কিন্তু খেয়ে খোসাটা ফেলবেন না। খোসার উৎসেচক ত্বককে রক্ষা করে। রোজ কলার খোসা আঁচিল বা জড়ুলের উপর ঘষলে ফল পাবেন।
আনারসের জুস : আনারসের জুস বা রস দিয়ে আঁচিল ভিজিয়ে রাখলে ধীরে ধীরে এটা সেরে যায়। আনারসে উচ্চ মাত্রায় অ্যাসিড এবং এক ধরনের জৈবরসায়নিক পদার্থ আছে যা আঁচিলে থাকা জীবাণুকে সরাসরি মেরে ফেলে। দিনে ৩-৪ বার আনাসের জুস দিয়ে আঁচিল ভিজিয়ে রাখলে খুব দ্রুত এটা সেরে যায়।
ভিটামিন সি : ভিটামিন সি তে থাকা অ্যাসিড আঁচিলের সংক্রামণকারী ভাইরাসকে সরাসরি মেরে ফেলতে সক্ষম। ভিটামিন সি ট্যাবলেট গুঁড়ো করে সাথে লেবুর রস দিয়ে পেস্ট তৈরি করবেন। তারপর আঁচিলের উপর সুন্দর করে প্রলেপ দিয়ে রেখে দেবেন। অথবা পরিষ্কার কাপড় দিয়ে বেঁধেও রাখতে পারেন। দিনে ৩-৪ বার এই পেস্ট ব্যবহার করুন। সূত্র : আনন্দবাজার ও ইন্টারনেট।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ