Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

জার্মান চ্যান্সেলর হতে পারেন এক মুসলিম

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ মার্চ, ২০১৯, ৬:৪১ পিএম

ভবিষ্যতে একজন মুসলমান জার্মানির খ্রিষ্টীয় গণতন্ত্রী দল, সিডিইউর প্রধান এবং চ্যান্সেলর হতে পারেন বলে মন্তব্য করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন ক্ষমতাসীন আঙ্গেলা মার্কেলের দলের এক অন্যতম কেন্দ্রীয় নেতা রাল্ফ ব্রিংকহাউস৷ ‘আইডিয়া’ নামে একটি গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সিডিইউর ভবিষ্যত রাজনৈতিক নেতৃত্বে বা দেশটির ভবিষ্যৎ চ্যান্সেলর হওয়ার বিষয়ে মুসলিমদের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে দলের অনেক নেতার সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি৷ অবশ্য কয়েকজনের সমর্থনও পেয়েছেন ব্রিংকহাউস৷

গতমাসে ‘আইডিয়া’র সাংবাদিক ব্রিংকহাউসের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে কোনো মুসলিম রাজনীতিবিদ সিডিইউ’র নেতৃত্বে ও দেশের চ্যান্সেলর হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা? উত্তরে তিনি বলেন, ‘যদি কোনো মুসলিম ভালো রাজনীতিবিদ হয় এবং জার্মান সামাজিক মূল্যবোধ ও রাজনৈতিক দর্শনকে ধারণ করে তাহলে কেন নয়?’

সিডিইউর এক্সিকিউটিভ বোর্ডের সদস্য এলিজাবেথ মোটসমান বলেন, ‘আমি বিশ্বাসই করেতে পারছি না যে, রাল্ফ ব্রিংকহাউস এ ধরণের কথা বলেছেন৷’ মুসলিম রাজনীতিবিদের বিষয়ে ব্রিংকহাউসের মন্তব্য প্রত্যাখ্যান করে তিনি বলেন, ‘ইসলামের মূল্যবোধ আর আমাদের মূল্যবোধের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে৷’ উদাহরণ হিসেবে তিনি জার্মান সমাজব্যবস্থায় নারী ও পুরুষের অধিকার এবং ইসলামে নারী ও পুরুষের অধিকারের বিষয়টি উল্লেখ করেন৷

সাক্ষাৎকারে ব্রিংকহাউস বলেছেন, নেতৃত্বের বিবেচনায় একজন মানুষের ব্যক্তিগত মূল্যবোধ তার ধর্মীয় মূল্যবোধের চেয়ে বেশিগুরুত্বপূর্ণ৷ ‘সিডিইউ কোনো ধর্মীয় গোষ্ঠী নয়৷ আর তাই আমরা ক্যাথলিক চার্চ থেকে ভিন্ন,’ বলেন তিনি৷

তবে তার এ বক্তব্যের সাথে দ্বিমত পোষণ করেছেন অনেক রাজনীতিবিদ৷ তারা বলছেন, এ ধরণের বিশ্লেষণের সময় দলটির নাম বিবেচনায় রাখা উচিত৷ সিডিউইর সাংসদ এবারহার্ড গিনগার বিল্ড’কে বলেন, দলটির নামের সাথে ‘খ্রিষ্টীয়’ কথাটি এমনি এমনি আসেনি৷ এসময় তিনি কোনো মুসলিম রাজনীতিবিদের জার্মান চ্যান্সেলর হওয়ার সুযোগ থাকার বিষয়ে ব্রিংকহাউসের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করেন৷ একজন মুসলিমের জার্মানির চ্যান্সেলর হওয়ার মানে হলো দেশটিতে মুসলমানদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে, যা জার্মানির বাস্তবতা নয়, বলেন তিনি৷

জার্মানির মূল রাজনৈতিক দলগুলো ও দেশটির সংবিধান ব্রিংকহাউসের মন্তব্যকেই সমর্থন করে বলে টুইট করেন সিডিইউর এক্সিকিউটিভ বোর্ডের একমাত্র মুসলিম সদস্য সেরাপ গ্যুলার৷ শ্লেসভিগ-হলস্টাইন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী কারিন প্রিয়েন বলেন, দলের প্রধান বা চ্যান্সেলর হতে হলে কেন একজন প্রার্থীকে খ্রিষ্টান হতে হবে, এ বিষয়ে কোনো সুনির্দিষ্ট যুক্তি তার জানা নেই৷

তবে কোনো মুসলিম জার্মান চ্যান্সেলর হতে পারেন কিনা এ বিতর্ককে ‘মুর্খতাপূর্ণ তর্ক’ বলে মন্তব্য করেছেন সংসদে সিডিইউর জোটসঙ্গী সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টির উপনেতা রাল্ফ স্টেগনার৷ স্থানীয় দৈনিক জারব্রুকার সাইটুংকে তিনি বলেন, ‘একজন মানুষ কীভাবে পরিচিত হবে তা নিয়ে শুধু সিডিইউতেই বিতর্ক চলে৷ জার্মানির প্রকৃত সমস্যা নিয়ে তারা কিছুই করে না৷’ সূত্র: ডয়েচ ভ্যালে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন